বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘আমি সবচেয়ে শক্তিশালী’, জানালেন কঙ্গনা! হাসির খোরাক বানালেন আদালতে হওয়া মামলাকে
কঙ্গনা রানাওয়াত। 
কঙ্গনা রানাওয়াত। 

‘আমি সবচেয়ে শক্তিশালী’, জানালেন কঙ্গনা! হাসির খোরাক বানালেন আদালতে হওয়া মামলাকে

  • কঙ্গনার সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট দেশে ঘৃণা ছড়াচ্ছে বলে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করা হয়েছে। 

বিতর্ক ছেড়ে বের হতে একেবারেই রাজি নন কঙ্গনা রানাওয়াত। মঙ্গলবারই তাঁকে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে এফআইআর করেছিলেন। আর এবার তিনি নিজেকে দিয়ে দিলেন ‘সবচেয়ে শক্তিশালী মহিলা’র তকমা! কারণ কী জানেন? কঙ্গনার সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট সেনরশিপ করা হোক এই আবেদন জমা দেওয়া হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। দিন কয়েক আগে, শিখ সম্প্রদায়কে ‘খলিস্তানি জঙ্গি’ বলে আবার বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি! আর তা নিয়েই এত হল্লা। 

তাঁকে নিয়ে প্রকাশিত খবরের একটি স্ক্রিনশট শেয়ার করেছেন কঙ্গনা নিজের ইনস্টা স্টোরিতে। যেখানে বলা হয়েছে, দেশের আইন-কানুন রক্ষার জন্য ভবিষ্যতে কঙ্গনার সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে সেনশরশিপ লাগানো হোক তাঁর আবেদন জমা পড়েছে সুপ্রিম কোর্টে। আর সেই খবরকেই হাসির খোরাক করে কঙ্গনা লিখেছেন, ‘হা হা হা, এই দেশের সবচেয়ে শক্তিশালী মহিলা আমি’। সঙ্গে একটি মাথার মুকুটের ইমোজিও শেয়ার করেছেন তিনি। 

আইনজীবী চরণজিৎ সিং চন্দরপাল এই আবেদনে এটাও অনুরোধ করেছেন যাতে কঙ্গনার বিরুদ্ধে করা সমস্ত এফআইআর খার পুলিশ স্টেশনে ট্রান্সফার করে দেওয়া হয়। অভিযোগ, সোশ্যাল মিডিয়ায় বাকস্বাধীনতার অধিকারকে ভুল ব্যবহার করছেন কঙ্গনা। এখনই ব্যবস্থা নিতে হবে। দেশের মধ্যে ঘৃণার বাতাবরণ তৈরি করছে সেই পোস্ট। 

প্রসঙ্গত, ২১ নভেম্বর কঙ্গনা নিজের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে একটি স্টোরি শেয়ার করেন। তার ভিত্তিতেই এই অভিযোগ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কৃষি আইন প্রত্যাহার করে নেওয়ার পরেই রুষ্ট হন অভিনেত্রী। আর তারপর সোজাসুজি আঘাত করেন কৃষক সম্প্রদায়কে। কৃষকদের প্রতিবাদকে ‘খলিস্তানি আন্দোলন’-এর আখ্যা দেন কঙ্গনা। প্রতিবাদী কৃষকদের ‘খলিস্তানি সন্ত্রাসবাদী’ বলেন তিনি।

বন্ধ করুন