রঙ্গোলির টুইটার অ্যাকাউন্ট বাতিল (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
রঙ্গোলির টুইটার অ্যাকাউন্ট বাতিল (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

পুলিশের উপর হামলা নিয়ে বিতর্কিত টুইট কঙ্গনার বোন রঙ্গোলির, সাসপেন্ড অ্যাকাউন্ট

  • করোনা মোকাবিলায় জরুরি পরিষেবায় নিযুক্তদের উপর হামলার প্রতিক্রিয়া দিতে দিয়ে বিতর্কিত টুইট রঙ্গোলি চান্দেলের। মোরাদাবাদের ঘটনা নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়েই এমন কাণ্ড ঘটান রঙ্গোলি।

বলিউডের অন্যতম ঠোঁট কাটা ব্যক্তিত্ব হিসাবেই পরিচিত কঙ্গনা রানাওয়াতের দিদি তথা ম্যানেজার রঙ্গোলি চান্দেল। যাঁর জেরে বিতর্ক পিছু ছাড়ে না রঙ্গোলির। মাইক্রো ব্লগিং সাইট টুইটারে হামেশাই বিতর্কিত মন্তব্য করে থাকেন রঙ্গোলি। মোরাদাবাদে চিকিত্সক, স্বাস্থ্যকর্মী ও পুলিশ কর্মীদের উপর পাথর ছোঁড়ার ঘটনায় রঙ্গোলির বিতর্কিত টুইটের জেরেই সাসপেন্ড করা হল তাঁর অ্যাকাউন্ট।

দেশজুড়ে স্বাস্থ্যকর্মীদের উপর ঘটে চলা হামলার নিন্দায় সরব হয়েছেন বহু বলিউড তারকা। অজয় দেবগণ থেকে সলমন খান-তালিকাটা বেশ দীর্ঘ। কিন্তু রঙ্গোলি তাঁর টুইটে সরাসরি নিশানা করেন এক নির্দিষ্ট ধর্মের মানুষকে। সাম্প্রদায়িক উস্কানি মূলক মন্তব্যের অভিযোগ উঠে রঙ্গোলির বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয় সেই টুইটে ভুয়ো অভিযোগও তোলেন রঙ্গোলি। তিনি জানান করোনায় মৃত এক জামাতির পরিবারের সদস্যদের পরীক্ষার জন্য নিয়ে আসতে গেলে পাথর ও ইট বৃষ্টির শিকার হল স্বাস্থ্যকর্মী ও কর্তব্যরত পুলিশ কর্মচারীরা। ঘটনায় মৃত্যু হয় এক চিকিত্সকের। যা সম্পূর্ন ভুয়ো দাবি। এক চিকিত্সক গুরুতর আহত হলেও ঘটনায় কারুর মৃত্যু হয়নি।

এখানেই থেমে না থেকে রঙ্গোলি আরও বলেন সেই সব ব্যক্তি এবং ভারতের 'তথাকথিত সেকুলার মিডিয়া'কে এক লাইনে দাঁড় করিয়ে গুলি করে হত্যা করা উচিত। তাতে ইতিহাস যদি তাদের নাৎসি বলে মনে রাখতে চায় তাহলেও কুছ পরোয়া নেই, জীবনের মূল্য অনেক বেশি 'ফেক ইমেজ' ধরে রাখার থেকে, বক্তব্য রঙ্গোলির।

এরপরই রঙ্গোলির বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফেটে পড়েন নেটিজেনদের একাংশ। রঙ্গোলির এই মন্তব্যর তীব্র সমালোচনা করেন সেক্রেড গেমস অভিনেত্রী কুবরা সেইট। রঙ্গোলির অ্যাকাউন্টের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ জমা পরে টুইটার ইন্ডিয়ায়। মুম্বই পুলিশ ও টুইটার ইন্ডিয়ার উদ্দেশে কুবরা লেখেন, আমি রঙ্গোলিকে ব্লক করেছি এবং ওঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছে। কিন্তু এইধরণের হিংসা ছড়িয়ে দেওয়ার কাজ একেবারেই মেনে নেওয়া যায় না। দয়া করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হোক।

পরিচালক রীমা কাগতি লেখেন, মুম্বই পুলিশ, আপনারা কি দয়া করে বিষয়টা দেখবেন এবং কোনও ব্যবস্থা নেবেন? ভুয়ো খবর ছড়ানো এবং একটা বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষের বিরুদ্ধে হিংসা ও ঘৃণা ছড়িয়ে দেওয়া কি শাস্তিমূলক কাজ নয়?

রঙ্গোলির এই টুইট ভাইরাল হওয়ার পরই টুইটারের তরফে সাসপেন্ড করে দেওয়া হয় তাঁর অ্যাকাউন্ট। এই মাসের শুরুতেই টুইটারের তরফে সচেতন করা হয়েছিল রঙ্গোলিকে। সেই সময়ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ভঙ্গ ও ধর্মীয় উস্কানিমূলক মন্তব্যের অভিযোগ উঠেছিল রঙ্গোলির বিরুদ্ধে। এরপর মাইক্রো ব্লগিং সাইটের বিরুদ্ধেই 'অ্যান্টি-ন্যাশন্যাল' হওয়ার অভিযোগ এনেছিলেন রঙ্গোলি।

বন্ধ করুন