বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ফ্যালফ্যাল করে চেয়ে থাকত! যোগা দিবসে রঙ্গোলির অ্যাসিড হামলার গল্প শোনালেন কঙ্গনা
দিদি রঙ্গোলির সঙ্গে কঙ্গনা। 
দিদি রঙ্গোলির সঙ্গে কঙ্গনা। 

ফ্যালফ্যাল করে চেয়ে থাকত! যোগা দিবসে রঙ্গোলির অ্যাসিড হামলার গল্প শোনালেন কঙ্গনা

  • আপাতত কঙ্গনার মিডিয়া ম্যানেজারের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন অ্যাসিড অ্যাটাক সারভাইভার কঙ্গনা রানাওয়াত।

নিজের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর জানানোর সময় ইনস্টাগ্রামে একটি যোগার ছবি পোস্ট করেছিলেন কঙ্গনা রানাওয়াত। এহেন এভিনেত্রী আন্তর্জাতিক যোগা দিবসে কিছু পোস্ট করবেন না তা কখনও হয়। যদিও নিজের ব্যাপারে নয়, এবারের যোগা দিবসে দিদি রঙ্গোলির গল্পই শুনিয়েছিলেন কঙ্গনা রানাওয়াত। কিন্তু সেই পোস্ট নিয়েও তাকে ট্রোলিংয়ের শিকার হতে হল। ‘মোটি ভক্ত’ বলে কটাক্ষ করলেন এক নেট-নাগরিক।

বর্তমানে কঙ্গনার মস্ত বড় সাপোর্ট দিদি রঙ্গোলি চান্ডেল। যদিও, একসময় রঙ্গোলি অ্যাসিড আক্রান্ত হওয়ার পর পাশে পেয়েছিলেন বোন কঙ্গনাকেই। সে গল্প তাঁরা বহুবার করেছেন মিডিয়ায়। ফের একবার রঙ্গোলির অ্যাসিড আক্রান্ত হওয়ার ও সেরে ওঠার যে সংগ্রাম তা নেটদুনিয়ায় শেয়ার করলেন কঙ্গনা। ইনস্টায় এদিন যে ছবি শেয়ার করেছেন তাতে দেখা যাচ্ছে স্বামী ও ছোট ছেলের সঙ্গে রঙ্গোলির যোগাসন করতে ব্যস্ত।

আর এই ছবি পোস্ট করেই অভিনেত্রী লেখেন, ‘রঙ্গোলির যোগাসনের গল্প সবচেয়ে অনুপ্রেরণাদায়ক। ওর যখন মাত্র ২১ বছর তখন এক রোড সাইড রোমিও ওর মুখে অ্যাসিড ছোঁড়ে। ভয়ংকর অবস্থা হয়েছিল। ওর মুখের অর্ধেক পুড়ে গিয়েছিল। এক চোখের দৃষ্টিশক্তি নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। একটা কান গলে গিয়েছিল, স্তনও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। ২-৩ বছরে মোট ৫৩টি অস্ত্রোপচার হয়। তাতে শারীরিকভাবে ঠিক হলেও ওর মানসিক যন্ত্রণা ছিল আমার কাছে সবচেয়ে চিন্তার বিষয়। কথা বলা অবধি বন্ধ করে দিয়েছিল আমাদের সঙ্গে। অনেক ডাক্তার দেখিয়েও উপকার আসেনি। কেমন ফ্যালফ্যাল করে চেয়ে থাকত। তখনও আমি নিয়মিত যোগাসন করতাম। ওকে নিয়ে গেলাম আমার যোগাসনের ক্লাসে। ও ধীরে ধীরে যোগাভ্যাস করা শুরু করল। কিছুদিনের মধ্যেই উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন দেখতে পেলাম। শরীরের যন্ত্রণার সঙ্গে লড়াইয়ের ক্ষমতা ফিরে পেল। শুধু তাই নয়, চোখের দৃষ্টিও ধীরে ধীরে ফিরে পেল। আমার মতে সব সমস্যার সমাধান লুকিয়ে আছে যোগাসনেই।’

বন্ধ করুন