বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > বক্স অফিসে ব্যর্থ ‘৮৩'; পরিচালককে কীভাবে চাঙ্গা করেছিলেন কপিল দেব?
কপিল দেব-রণবীর সিং। (ছবি সৌজন্যে - ইনস্টাগ্রাম)
কপিল দেব-রণবীর সিং। (ছবি সৌজন্যে - ইনস্টাগ্রাম)

বক্স অফিসে ব্যর্থ ‘৮৩'; পরিচালককে কীভাবে চাঙ্গা করেছিলেন কপিল দেব?

  • সমালোচকদের তারিফ পেলেও বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পড়েছে ‘৮৩'।ব্যর্থ

সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে তারকারা, ‘৮৩’র ভরে ভরে প্রশংসা করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায় সেখানে অ্যানালিসিস্টরা জানিয়েছিলেন, মার খাচ্ছে ছবিটি। সেভাবে ব্যবসা করতে পারছে না থিয়েটারে। 'আমরা সকলেই জানি এই মুহূর্তে বক্স অফিসে কী হচ্ছে। আমার তো মনে হয় এই মুহূর্তে বক্স অফিস নিয়ে কথা বলাও একটু ছোট মনের পরিচয়। আমরা একটা মহামারীর মধ্যে দিয়ে চলেছি। আমরা কখনও ভাবিনি যেই মুহূর্তে আমরা ছবিটা রিলিজ করব সেই মুহূর্তে একাধিক রাজ্য নাইট কার্ফু ঘোষণা করে দেবে।' বলেছিলেন পরিচালক কবীর খান।  তবে এসব সত্বেও ভেঙে পড়েননি কবীর, তার অন্যতম কারণ কপিল দেবের আশ্বাসবাণী।

ফিল্ম কম্প্যানিয়নকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে '৮৩'র পরিচালক জানালেন বক্স অফিসে তাঁর ছবির ব্যর্থতা তাঁকে ভাবিয়েছে, কষ্ট দিয়েছে বটে। তবে তা সত্বেও একমুহূর্তের জন্যেও এই ছবিকে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে স্ট্রিমিং করার ইচ্ছে তাঁর মনে আসেনি। কবীরের কথায়, 'দেখুন ব্যাপারটা কষ্টকর তো ঠিকই। প্রতিদিনই সকালে উঠেছি আর দেখেছি করোনা, ওমিক্রন আতঙ্কে যখন একের পর এক রাজ্যে সিনেমা হলের দরজায় তালা পড়ছে লাগাতার। একের পর এক রাজ্যে নাইট কার্ফু জারি হচ্ছে।'

তবে দুঃখের সাগরে খড়কুটোর মতো ভেসে যাননি তিনি। কারণ? কপিল দেব। দিল্লিতে সিনেমা হলের ঝাঁপ বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর প্রাক্তন এই বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় ক্রিকেট দলের ক্যাপ্টেন কবীরকে বলেছিলেন, 'তুমি ইতিমধ্যেই জয়ী হিসেবে নির্বাচিত হয়ে গেছ। এই ছবিই তোমার বিশ্বকাপ। সেটি তুমি পেয়ে গেছ। আমরা যখন বিশ্বকাপজয়ী হয়ে ফিরেছিলাম, আমরা কিন্তু কোনও টাকাপয়সা পাইনি তেমন। যা পেয়েছিলাম তা হলে সম্মান। আর সেই সম্মান পেয়েছিলাম বলেই না আজ আমাদের নিয়ে তুমি এই ছবি তৈরি করেছ।' এখানেই না থেমে কপিল '৮৩'র পরিচালককে ভেঙে না পড়ার উপদেশ দিয়ে আরও জানিয়েছিলেন বক্স অফিসে '৮৩' কত আয় করল তা না ভেবে এই ছবির সুবাদে কতটা ভালোবাসা, সম্মান পেয়েছেন তিনি, তা নিয়ে যেন চিন্তা করেন কবীর।

বন্ধ করুন