বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > অমিতাভের বাবার সেবা করলেও মায়ের ‘দায়িত্ব’ নিতে রাজি হননি সেই নার্স! কেন জানেন?
কেবিসি ১৩-র হট সিটে অমিতাভ বচ্চন। (ছবি সৌজন্যে - হিন্দুস্তান টাইমস)
কেবিসি ১৩-র হট সিটে অমিতাভ বচ্চন। (ছবি সৌজন্যে - হিন্দুস্তান টাইমস)

অমিতাভের বাবার সেবা করলেও মায়ের ‘দায়িত্ব’ নিতে রাজি হননি সেই নার্স! কেন জানেন?

  • জমিয়ে শুরু হয়ে গেছে 'কৌন বনেগা ক্রোড়পতি'-র ১৩ নম্বর সিজন।চলতি সপ্তাহে ডাক্তার ও নার্সদের উদ্দেশে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করা হবে এই গেম শো-র একটি এপিসোডে।

জমিয়ে শুরু হয়ে গেছে 'কৌন বনেগা ক্রোড়পতি'-র ১৩ নম্বর সিজন। গত মাস থেকেই শুরু হয়েছে এই নতুন সিজনের সম্প্রচার। সোম থেকে শুক্র সোনি টিভিতে সম্প্রচারিত হয় এই গেম শো। পাশাপাশি সোনি লিভ অ্যাপ এবং জিও টিভি-তে দেখা যায় কৌন বনেগা ক্রোড়পতি।মাস ঘুরতে না ঘুরতেই ছোটপর্দায় রমরমিয়ে চলছে কেবিসি-র ওই নতুন সিজন। এবারের কেবিসি-র চলতি সিজন আরও ঝলমলে, আরও রঙিন, আরও মজার। চলতি সপ্তাহে ডাক্তার ও নার্সদের উদ্দেশে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করা হবে এই গেম শো-র একটি এপিসোডে।

সম্প্রতি, কেবিসি-র এক এপিসোডে যোধপুর থেকে হাজির হয়েছিলেন সবিতা ভাটি। পেশায় তিনি একজন নার্স সুপারিন্টেন্ডেন্ট। প্রশ্নোত্তর পর্বের ফাঁকে তাঁর সঙ্গে গল্প-আড্ডা দেওয়ার সময় নিজের প্রয়াত বাবা হরিবংশ রাই বচ্চন-এর স্মৃতিচারণ করলেন অমিতাভ। সেই প্রসঙ্গেই কথা বলার ফাঁকে উঠে এল এক অভিনব ঘটনার কথা। 'বিগ বি' জানালেন তাঁর বাবার অসুস্থতার সময় অষ্টপ্রহর একজন নার্স থাকতেন ওঁর সঙ্গে। সেবা করতেন। তবে বাবার মৃত্যুর পর সেই নার্স আর কারও সেবা করতে রাজি হননি!

ইন্ডিয়া টুডে-র প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী অমিতাভের বাবা যখন অসুস্থ ছিলেন তখন তাঁর দেখভালের জন্য একজন নার্স রেখেছিলেন। সর্বক্ষণ সেই নার্স থাকতেন তাঁর বাবার সঙ্গে। মনপ্রাণ দিয়ে সেবাও করতেন।

হরিবংশ রাইয়ের মৃত্যুর পর এতটাই নড়ে গেছিলেন সেই নার্স যে আর কারও নার্সিংয়ের দায়িত্বই তিনি নেননি। 'বিগ বি'-র কথায়, ‘বাবুজীর প্রতি সেই নার্সের এতটা ভালোবাসা দেখে ওঁকে ফের আমরা ডেকে পাঠিয়েছিলাম যখন আমার মা অসুস্থ হলেন। তবে আমাদের সেই প্রস্তাবে সটান না করে দিয়েছিলেন তিনি। কারণ হিসেবে জানিয়েছিলেন, ‘বাবুজী’-র মৃত্যুতে তিনি এতটাই কষ্ট পেয়েছেন যে আর কারও নার্সিংয়ের দায়িত্ব নতুন করে তিনি নিতে পারবেন না। আমি জানিও না যে এরপর তিনি আর সেই পেশাতেই ছিলেন না কি পাল্টে ফেলেছিলেন'।

গল্প আড্ডার ফাঁকে উঠে আসে আরও নানান মজার মুহূর্ত। দর্শকের আসনে বসে থাকা সবিতার স্বামী অমিতাভকে জানান যে তাঁর স্ত্রী পেশায় একজন নার্স হওয়া সত্বেও বেজায় ভয় পান ইঞ্জেকশন নিতে! সঙ্গে সঙ্গে অমিতাভও জানান তাঁর মেয়ে শ্বেতা এখনও ভয় পান ইঞ্জেকশন নিতে। রীতিমতো পালিয়ে বেড়ান ইঞ্জেকশন নেওয়ার কথা শুনলে। তবে তিনি যে এসব কিছুতে মোটেই ডরান না, তা সগর্বে জানিয়ে দিয়েছেন 'শাহেনশাহ'।

বন্ধ করুন