বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > KBC 13: রেল নিয়ে প্রশ্নের জবাব দিয়ে ২৫ লক্ষ জিতলেন নীরজ-শ্রীজেশ, উত্তর জানা আছে?
২৫ লক্ষ টাকা জেতেন নীরজ ও শ্রীজেশ
২৫ লক্ষ টাকা জেতেন নীরজ ও শ্রীজেশ

KBC 13: রেল নিয়ে প্রশ্নের জবাব দিয়ে ২৫ লক্ষ জিতলেন নীরজ-শ্রীজেশ, উত্তর জানা আছে?

  • ভারতীয় রেলওয়ে নিয়ে এই প্রশ্নের জবাব দিয়ে ২৫ লক্ষ টাকা জেতেন নীরজ-শ্রীজেশ, আপনি জানেন এই প্রশ্নের জবাব? 

অলিম্পিকের মঞ্চে দেশের মুখ উজ্জ্বল করা দুই তারকা নীরজ চোপড়া ও পিআর শ্রীজেশকে চলতি সপ্তাহ পাওয়া গেল কৌন বনগে ক্রোড়পতির মঞ্চে। ‘শানদার শুক্রবার’ এপিসোডে হাজির হয়েছিলেন অলিম্পিকে দেশকে ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডে প্রথম পদক এনে দেওয়া জ্যাভেলিন থ্রোয়ার নীরজ চোপড়া এবং ভারতীয় হকি টিমের গোলকিপার পিআর শ্রীজেশ। গোটা এপিসোডে মাত্র দুটো-লাইফ লাইন ব্যবহার করেছেন এই দুই তারকা। 

২৫ লক্ষ টাকা জেতবার জন্য ভারতীয় রেলওয়ে নিয়ে একটি প্রশ্ন রাখা হয়েছিল নীরজ ও শ্রীজেশের সামনে, খুব সহজেই এই প্রশ্নের উত্তর দেন তাঁরা। অমিতাভ তাঁদের প্রশ্ন করেন, ২০১৯ সালে ভারতীয় রেলওয়ের তরফে চালু করা নতুন ট্রেন সার্ভিস সম্পর্কে।

বিগ বি প্রশ্ন ছিল, ২০১৯ সালের ২৫শে ডিসেম্বর ভারতীয় রেলওয়ের তরফে নতুন কোন ট্রেন সার্ভিস চালু করা হয় যা পুরোপুরিভাবে ভিস্তাডোম (Vistadome) কোচ দ্বারা সজ্জিত। 

a) জন শতাব্দী এক্সপ্রেস, b) ডেকান এক্সপ্রেস, c) হিমালয়ান কুইন এবং d) হিম দর্শন এক্সপ্রেস। এর মধ্যে সঠিক জবাব অপশন d) হিম দর্শন এক্সপ্রেস। 

নীরজ ও শ্রীজেশ সঠিক উত্তর দিলেও, সময় শেষের ভেঁপু বেজে যায়। তাই এই গেম আর আগে চালিয়ে যাওয়া সম্ভবপর হয়নি।

অগস্ট মাসেই জাপানের টোকিও-তে অনুষ্ঠিত অলিম্পিক প্রতিযোগিতায় দুর্ধর্ষ পারফরম্যান্স দিয়েছেন দুই তারকা। অলিম্পিকের ইতিহাসে ভারতের হয়ে দ্বিতীয় ব্যক্তিগত (অভিনব বিন্দ্রার পর) সোনা জিতেছেন নীরজ চোপড়া, পাশাপাশি ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ড ইভেন্টে ভারতের হয়ে অলিম্পিক ইতিহাসের প্রথম পদক এনে দিয়েছেন হরিয়ানার এই ২৩ বছরের ভূমিপুত্র। অন্যদিকে চার দশক পর অলিম্পিকের মঞ্চে পদক পেয়েছে ভারতীয় হকি টিম, যার অন্যতম কারিগর শ্রীজেশ। 

এদিন কেবিসির মঞ্চে দুই তারকার গলায় ঝোলানো অলিম্পিকে জেতা মেডেলের দিকে ইঙ্গিত করে 'বিগ বি' জিজ্ঞেস করেন তিনি একবার সেই মেডেল দু'টি ছুঁয়ে দেখতে পারেন কিনা। শোনামাত্রই নিজেদের গলা থেকে ওই মেডেল দুটি খুলে অমিতাভের হাতে তা তুলে দেন দুই অলিম্পিকজয়ী। আপ্লুত স্বরে বলে ওঠেন যে তিনি এই মেডেল দুটো মোটেই পড়বেন না কেবল একটু ছুঁয়ে দেখতে চান। 'আমার জীবনে তো আর কোনওদিন এই মেডেল জিততে পারব না, তাই একবার ছুঁয়ে দেখতে পারলেই আমি খুশি।এটাই বিরাট ব্যাপার তা আমার কাছে', সহজভাবে অমিতাভের মুখে এই কথা শুনে ততক্ষণে ফের একবার হাততালি দিয়ে উঠেছেন শোয়ে উপস্থিত থাকা দর্শকের দল। মেডেল দু'টি হাতে তুলে অমিতাভকে বলতেও শোনা যায় যে ওজনেও যথেষ্ট ভারি ওগুলো।

বন্ধ করুন