বাড়ি > বায়োস্কোপ > কেরলে নৃংশভাবে গর্ভবতী হাতি হত্যার নিন্দায় সরব আলিয়া-শ্রদ্ধারা,দাবি কঠোর আইনের
কেরলে গর্ভবতী হাতি হত্যার প্রতিবাদে সরব বলিউড তারকারা
কেরলে গর্ভবতী হাতি হত্যার প্রতিবাদে সরব বলিউড তারকারা

কেরলে নৃংশভাবে গর্ভবতী হাতি হত্যার নিন্দায় সরব আলিয়া-শ্রদ্ধারা,দাবি কঠোর আইনের

  • পশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে কঠোর আইন দাবি বলিউড তারকাদের।

কেরলে নৃংশভাবে এক গর্ভবতী হাতিকে মেরে ফেলার ঘটনা সামনে আসার পর থেকেই সমালোচনার ঝড় সোশ্যাল মিডিয়ায়।রাজ্যের বন বিভাগের অফিসার মোহন কৃষ্ণন সোশ্যাল মিডিয়ায় এই নক্কারজনক ঘটনা প্রকাশ্যে আনেন। আনারসের মধ্যে বাজি ভরে খাওয়ানো হয়েছিল ওই হাতিকে। ঘটনা কেরলের মালাপ্পুরম জেলার।বিস্ফোরণের জেরে শরীরের ভিতরে গভীর ক্ষতের সৃষ্টি হয়েছিল ওই হাতির। এরপর সেই অবস্থাতেই তীব্র যন্ত্রণায় বেশ কয়েকদিন গ্রামের আশেপাশে ঘুরে বেড়ায় হাতিটি,এরপর ভেল্লিয়ার নদীতে নেমে যায় যন্ত্রণা লাঘব হওয়ার আশায়। সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থাতেই মৃত্যু হয় হাতিটির। পরে জানা যায় হাতিটি গর্ভবতী ছিল। এই ঘটনার প্রতিবাদে মঙ্গলবার থেকেই সরব নেটিজেনরা। এই বর্বর ও নৃশংস ঘটনা ফের একবার চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছিল মনষ্যত্ব আজ কোথায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে! গর্ভবতী হাতির মৃত্যু ঘিরে প্রতিবাদী তারকারাও। পশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে আরও কঠিন আইন দাবি করলেন আলিয়া ভাট, শ্রদ্ধা কাপুর, অনুষ্কা শর্মরা। 

টুইটারের দেওয়ালে শ্রদ্ধা লেখেন, কীভাবে? এইরকম ঘটনা কীভাবে ঘটতে পারে? মানুষের কী হৃদয় নেই?  আমার মন ভেঙে আছে…অপরাধীদের কঠিনতম শাস্তির দাবি জানাচ্ছি'।

অনলাইনে একটি পিটিশন সই করার আর্জিও জানিয়েছেন অভিনেত্রী। 

পশুপ্রেমী হিসাবে পরিচিত রণদীপ হুডা পরিবেশ মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর ও কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নকে ট্যাগ করে টুইটে দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি তোলেন। তিনি লেখেন, এই ঘটনা একবারেই অমানবিক! বাজি ভর্তি আনারস খাইয়ে একটা গর্ভবতী,বন্ধুসুলভ হাতিকে হত্যা কোনওভাবেই মেনে নেওয়া যায় না.. দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোরতম শাস্তির দাবি জানাচ্ছি'

অন্যদিকে অভিনেত্রী আলিয়া ভাট এই ঘটনা অত্যন্ত নিন্দনীয় বলে উল্লেখ করে লেখেন, নিন্দনীয়..মারাত্মক নিন্দনীয়। আমাদের ওদের আওয়াজ হতে হবে! এটা কোন ধরণের অসুস্থ মানসিতার পরিচয়? মন ভেঙে যাচ্ছে'।

অনুষ্কা-আলিয়ার ইনস্টাগ্রাম স্টোরি
অনুষ্কা-আলিয়ার ইনস্টাগ্রাম স্টোরি

পশু সুরক্ষা নিয়ে বরাবরই সরব অনুষ্কা শর্মা। তিনি ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে লেখেন, ‘ঠিক এই কারণেই পশু নির্যাতনের বিরুদ্ধে কঠোর আইন দরকার’।

হাতিটির অটপসি রিপোর্ট বলছে অন্তত দিন কুড়ি আগে আহত হয়েছিল হাতিটি। অর্থাত ঘটনাটি ঘটেছে মে মাসের শুরুর দিকে। এই দীর্ঘ সময় ধরে সহ্য যন্ত্রণা বয়ে বেরিয়েছে হাতিটি। এই গর্ভবতী হাতির নৃসংশ হত্যা ফের একবার দেশে অবলাদের সুরক্ষা নিয়ে বেশকিছু প্রশ্নচিহ্ন তুলে দিল।

বন্ধ করুন