বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > চুপিচুপি এনগেজমেন্ট সেরে ফেললেন এ আর রহমানের মেয়ে, পাত্র কে জানেন?
এনগেজমেন্ট সেরে ফেলল রহমান-কন্যা।
এনগেজমেন্ট সেরে ফেলল রহমান-কন্যা।

চুপিচুপি এনগেজমেন্ট সেরে ফেললেন এ আর রহমানের মেয়ে, পাত্র কে জানেন?

  • খানিকটা গোপনেই ঘরোয়া অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এনগেজমেন্ট সেরে ফেললেন এ আর রহমানের মেয়ে খতিজা রহমান।

শীত পড়লেই যেন বিয়ের মরশুম শুরু হয়ে যায়। বলিউডে একের পর এক তারকা বসেছেন বিয়ের পিঁড়িতে। প্রথমে রাজকুমার রাও, তারপর ক্যাটরিনা কাইফ, অঙ্কিতা লোখাণ্ডে আর সবশেষে মোহিত রায়না! এই একা থেকে দোকা হওয়ার গল্পের তালিকায় এবার যোগ হলো অস্কারজয়ী সুরকার এ আর রহমানের কন্যা খতিজা রহমানের নাম। খানিকটা গোপনেই ঘরোয়া অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এনগেজমেন্ট সেরে ফেললেন তিনি। নিজেই সেই খবর এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলেন রহমান-কন্যা।

খতিজার হবু বরের নাম রিয়াজদিন শেখ মোহম্মদ, যিনি পেশায় একজন অডিও ইঞ্জিনিয়ার। এনগেজমেন্টের অনুষ্ঠান থেকে নিজের একটি ছবি শেয়ার করেছেন খতিজা। গোলাপি এবং রুপোলি রঙের একটি শাড়িতে দেখা গেল খতিজাকে। মুখ ঢাকা পোশাকের সঙ্গে ম্যাচিং গোলাপি মাস্ক-এ। তবে সেই অনুষ্ঠান থেকে রিয়াজদিন-এর কোনও ছবি শেয়ার করেননি তিনি। বদলে হবু বরের আলাদা একটি সাদা-কালো ছবি পোস্ট করেছেন খতিজা। সেখানেই রিয়াজদিন-এর পরিচয় জানানোর পাশাপাশি তাঁর পেশার কথাও জানিয়েছেন। সঙ্গে এও জানালেন গত ২৯শে ডিসেম্বরেই এই শুভ কাজটি সেরেছেন তাঁরা দু'জনে। ঘটনার সাক্ষী ছিল কিছু ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধব এবং দুই পরিবার। এই পোস্ট করামাত্রই নেটিজেনদের পাশাপাশি জনপ্রিয় গায়িকা হর্ষদীপ কউর থেকে নীতি মোহন সকলেই শুভেচ্ছা জানিয়েছেন খতিজাকে।

আগেও একাধিকবার খবরের শিরোনামে এসেছেন এ আর রহমান কন্যা খতিজা। তাঁর বোরখা পরা ছবি দেখে টুইটারে তাঁকে ট্রোল করেছিলেন তসলিমা নাসরিন। বাংলাদেশের নির্বাসিত সাহিত্যিককে জুতসই জবাবও দিয়েছিলেন এই তরুণী।এর পর সরাসরি তসলিমা নাসরিনকে উদ্দেশ্য করে খতিজা লিখেছিলেন, ‘প্রিয় তসলিমা নাসরিন, আমার পোশাক দেখে আপনার শ্বাসরোধ হয়ে আসছে জেনে দুঃখিত। দয়া করে কিছু টাটকা বাতাসে নিঃশ্বাস নিয়ে আসুন কারণ আমার শ্বাসরোধ হচ্ছে না, বরং নিজের অবস্থানে আমি গর্বিত ও শক্তিশালী বোধ করছি। আমার পরামর্শ, আসল নারীবাদের অর্থ জানতে গুগল-এর সাহায্য নিন, কারণ নারীবাদের অর্থ অন্য মহিলাদের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানানো নয় অথবা তাদের বাবাদের এই প্রসঙ্গের মধ্যে টেনে আনা নয়। মনে করতে পারছি না, অনুমোদনের জন্য আপনাকে কখনও নিজের ছবি পাঠিয়েছি বলেও।’

সব শেষে নীল আকাশের ছবি শেয়ার করে খতিজা আরও লিখেছিলেন, ‘যে ভালোবাসা ও সমর্থন ফের পেয়েছি, তার জন্য আমি অভিভূত। সবাইকে ধন্যবাদ। ঘটনার জেরে শ্রীমতী তসলিমার বিরুদ্ধে কোনও ঘৃণামূলক মন্তব্য অথবা অভিযোগ না করতে আপনাদের অনুরোধ করছি। সহবাসীদের পছন্দ মেনে নিয়ে আসুন আমরা খোলা মনের সমাজ গড়ে তোলার চেষ্টা করি এবং শ্রীমতী তসলিমাকে আমাদের প্রার্থনায় স্মরণ করি। জীবনে ব্যক্তিগত সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে তাঁকে যেন কখনও বিচার না করি। শান্তি।’ প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালেও বাবা এ আর রহমানের সঙ্গে একটি অনুষ্ঠানে বোরখা পরে উপস্থিত হওয়ায় সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলের শিকার হন খতিজা।

বন্ধ করুন