বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Khorkuto: গুনগুন-মিষ্টির ঝগড়ার মাঝে পড়ে গেল পুচুসোনা! অসহ্য ঠেকছে গুনগুনের 'অসভ্যতামি'
গুনগুনের ন্যাকামিতে বিরক্ত দর্শক
গুনগুনের ন্যাকামিতে বিরক্ত দর্শক

Khorkuto: গুনগুন-মিষ্টির ঝগড়ার মাঝে পড়ে গেল পুচুসোনা! অসহ্য ঠেকছে গুনগুনের 'অসভ্যতামি'

  • গুনগুনের এই বাড়াবাড়ি একদম সহ্য করতে পারছে না দর্শক, কটাক্ষের মুখে তৃণা সাহা। 

বর্তমানে বাংলা টেলিভিশনের অন্যতম চর্চিত ধারাবাহিক ‘খড়কুটো’ তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। তবে আচমকাই এই ধারাবাহিকের গল্প যেন একদম বদলে গিয়েছে। মধ্যবিত্ত পরিবারের সুখ-দুঃখের গল্পের বদলে একজন বাচ্চা ‘অবসেশড’ গুনগুনকে দেখতে না-রাজ দর্শক। পুচুসোনার উপর গুনগুনের অহেতুক অধিকারবোধ দেখতে দেখতে বিরক্ত তারা। একরত্তি মেয়েকে নিজের মায়ের কাছেও থাকতে দিচ্ছে না গুনগুন। কীভাবে মিষ্টির সঙ্গে এমনটা করতে পারছে সে? কিছুতেই এই প্রশ্নের উত্তর মিলছে না।

ধৈর্যের বাঁধ ভেঙেছে মিষ্টিরও। সে গুনগুনকে সাফ জানিয়েছে, যতক্ষণ না পর্যন্ত মেয়েকে পুরোপুরিভাবে নিজের কাছে পাচ্ছে সে ততক্ষণ মেয়েকে স্তন্যপান করাবে না সে, গুনগুন পুরোটাই নিজের মতো বুঝে নিক। গুনগুনের কাছ থেকে মেয়েকে আপন করে নিতে প্রয়োজনে আইনের সাহায্য নেবে সে, তা স্পষ্ট করেছে মিষ্টি। কিন্তু কিছুতেই হেলদোল নেই গুনগুনের। সে যেন অন্য কোনও জগতেই রয়েছে! পুচু সোনাকে খাওয়ানো নিয়ে মিষ্টির সঙ্গে গুনগুনের ঝগড়ার মাঝে আচমকাই মেঝেতে পড়ে যায় মিষ্টির মেয়ে। সেই নিয়ে হইচই কাণ্ড বেঁধেছে সোমবারের এপিসোডে। 

আজকের এপিসোডে দর্শক দেখবে, গুনগুন চিকিত্সকের কাছে নিয়ে যাবে মিষ্টির মেয়েকে। অন্যদিকে মুখার্জি পরিবারের সকলে বিরক্ত গুনগুনের এই ব্যবহারে। মিষ্টির অভিযোগ, বাড়ির সকলের প্রশয়ে আজ গুণগুন এই কাণ্ড ঘটাচ্ছে। বাবিনের মা সাফ জানায়, 'এমন বৌমার দরকার নেই আমার'। বাবিনকে নির্দেশ দেন, ‘যত তাড়াতাড়ি পারো ওকে বাপের বাড়ি পাঠানোর ব্যবস্থা কর’। একই সুর বড়মা, জেঠাইয়ের গলাতেও। তবে নিজের ঘাড়ে সব দোষ নিতে রাজি নয় বাবিনও। তাঁর কথায়, ‘বিয়েটা কিন্তু আমি করতে চাইনি, তোমরা জোর করে দিয়েছিলে’। সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে আক্ষেপ রয়েছে, এমনই হাবভাব পটকা ছাড়া বাড়ির সকলের মুখেই। অন্যদিকে গুনগুনের ডাক্তার অ্যাঙ্কেল স্পষ্ট জানান ‘রিস্ক নিয়ে লাভ নেই, তুমি বাচ্চাটাকে হাসপাতালে ভর্তি করে দাও’। মাথায় চোট পেয়ে দু-বার বমি করেছে পুচুসোনা, তাই একথা জানান চিকিত্সক। গুনগুনের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, বাচ্চাকে হাসপাতালে ভর্তি করতে অবশ্যই তাঁর বাবা-মায়ের সই-সাবুদ লাগবে এবং একমাত্র মা-কেই হাসাপাতালে থাকতে দেওয়া হবে, অন্য কাউকে নয়। এই কথা শুনে কিছুটা ভেঙে পড়ে গুনগুন। 

পুচুসোনাকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে জেনে উদ্বিগ্ন বাবিন-পটাকারাও। গুনগুনের এই অবসেশন কীভাবে কাটবে? মিষ্টি কি গুনগুনকে ক্ষমা করতে পারবে? বাবিন-গুনগুনের সম্পর্কই বা এরপর নতুন কী মোড় নেবে, তা উঠে আসবে ধারাবাহিকের আগামী এপিসোডে। তবে গুনগুনের এই ‘পাগলামি’ দেখে বিরক্ত দর্শক। তৃণা সাহাকে এর জেরে পড়তে হচ্ছে মারাত্মক কটাক্ষের মুখে, কেউ বিষয়টাকে গুনগুনের ন্যাকামি বলছেন, কারুর মতে পুরোটাই অতিরঞ্জিত- এমনটা বাস্তবে হয় না। 

বন্ধ করুন