বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Koel-Jeet: ‘সাথী’র জন্য পরিচালকের প্রথম পছন্দ ছিলেন কোয়েল, বাধ সাধেন ‘কড়া বাবা’ রঞ্জিত মল্লিক!
জিতের নায়িকা হিসাবে সাথী ছবিতে কাজ করার কথা ছিল কোয়েলের!
জিতের নায়িকা হিসাবে সাথী ছবিতে কাজ করার কথা ছিল কোয়েলের!

Koel-Jeet: ‘সাথী’র জন্য পরিচালকের প্রথম পছন্দ ছিলেন কোয়েল, বাধ সাধেন ‘কড়া বাবা’ রঞ্জিত মল্লিক!

এই শর্ত পূরণ করতেই কোয়েলকে অভিনয় দুনিয়ায় আসবার অনুমতি দিয়েছিলেন রঞ্জিত মল্লিক!

বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম জনপ্রিয় জুটি জিত-কোয়েল। একসঙ্গে বহু ব্লকবাস্টার ছবি উপহার দিয়েছেন তাঁরা। ‘নাটের গুরু'র সঙ্গে সফর শুরু এই জুটির। কিন্তু রঞ্জিত মল্লিক রাজি থাকলে, এই জুটির ইনিংস কিন্তু শুরু হত ‘সাথী’ ছবির সঙ্গেই!  ভাবছেন ব্যাপারটা কী? মঙ্গলবার রঞ্জিত মল্লিকের জন্মদিনে এমনই সত্যি সামনে আনলেন তাঁর দীর্ঘদিনের বন্ধু হরনাথ চক্রবর্তী।

আসলে অভিনেতা হিসাবে যতখানি দক্ষ, বাবা হিসাবেও ততখানি যত্নশীল রঞ্জিত মল্লিক। হরনাথ চক্রবর্তীর ছবি 'নাটের গুরু'র সঙ্গেই অভিনয় দুনিয়ায় আত্মপ্রকাশ রঞ্জিত কন্যা কোয়েল মল্লিকের। বর্ষীয়ান পরিচালক আনন্দবাজারকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন, ‘২০০২ সালে সাথী ছবির সময় আমি প্রথম কোয়েলকেই চেয়েছিলাম। তখনও সাইকোলজি নিয়ে ওর পড়া শেষ হয়নি। রঞ্জিতদা কড়া বাবা, মেয়ে প়ড়া শেষ করে তার পর অভিনয়ে আসবে তা ঠিক করেছিলেন। তার আগে নয়’। 

পরের বছর 'নাটের গুরু' ছবির চিত্রনাট্য পছন্দ হওয়ায় মেয়েকে কাজের অনুমতি দিয়েছিলেন রঞ্জিত মল্লিক। সেই ছবিতে নিজেও অভিনয় করেন তিনি। পর্দাতে বাবা-মেয়ের ভূমিকাতেই পাওয়া গিয়েছিল তাঁদের। ডিসেম্বরেই মুক্তি পাবে হরনাথ চক্রবর্তীর আগামী ছবি ‘তারকা মৃত্যু’, সেখানে লিড রোলে সেই রঞ্জিত মল্লিক। এছাড়াও থাকছেন ঋত্বিক চক্রবর্তী, পার্নো মিত্র। পাশাপাশি, তাঁর পরবর্তী এক কমেডিধর্মী ছবিতেও মুখ্য ভূমিকায় দেখা যাবে রঞ্জিত মল্লিককে।

এদিন বাবাকে জড়িয়ে ধরে মিষ্টি ছবি পোস্ট করেন কোয়েল। রঞ্জিত মল্লিকের উদ্দেশে তাঁর বার্তা- ‘আজকের দিনটা কীভাবে সম্পূর্ণ হবে বাবার সঙ্গে ছবি না পোস্ট করলে? আমি এই ছবিতে হাসতেই থাকব’। 

মঙ্গলবার ৭৭-এ পা দিলেন রঞ্জিত মল্লিক। হরনাথ চক্রবর্তীর প্রায় ২০টি ছবিতে অভিনয় করেছেন রঞ্জিত মল্লিক। অভিনেতার আন্তরিকতায় মুগ্ধ ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’ পরিচালক। তাঁর কথায়, ‘বাড়িতেও দাদা একই রকম আন্তরিক। অদ্ভুত আতিথেয়তা বাড়ির সবার। অত বড় বনেদি বাড়ির সদস্যদের মনে একটুও অহঙ্কার নেই! সবাই ভীষণ মাটির কাছাকাছি'।

বন্ধ করুন