বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > একটা কারণে 'জানি দুশমন' ছবিতে কাজ পান অক্ষয়! জুহুর বাংলো কেনেন সেই টাকায়
‘কফি উইথ করণ সিজন ৭’-এর নতুন এপিসোডে অক্ষয় কুমার

একটা কারণে 'জানি দুশমন' ছবিতে কাজ পান অক্ষয়! জুহুর বাংলো কেনেন সেই টাকায়

  • জুহুতে বিলাসবহুল সাগরমুখী বাংলোটা কেনার একসময় টাকা ছিল না অক্ষয়ের কাছে। কিন্তু 'জানি দুশমন' ছবি জীবন বদলে দিয়েছেন তাঁর।

অভিনেতা অক্ষয় কুমার এবং সামান্থা রুথ প্রভু বৃহস্পতিবার করণ জোহরের ‘কফি উইথ করণ সিজন ৭’-এর নতুন এপিসোডে বিশেষ অতিথি হিসেবে হাজির হয়েছিলেন। মুম্বই জুহুতে সাগরমুখী বিলাসবহুল বাংলো অক্ষয়ের। এই পর্বে অভিনেতা বলেছিলেন কীভাবে তিনি তাঁর অভিনয় জীবন শুরু করেছিলেন এবং কোন ছবির কারণে তিনি তাঁর বাড়ি কিনতে পেরেছিলেন।

পরিচালক রাজকুমার কোহলির 'জানি দুশমন: এক আনোখি কাহানি' ছবির শ্যুটিং করে বেশি অর্থ উপার্জন করেছিলেন অভিনেতা। এরপরই এই বাড়ি কিনেছিলেন। স্মৃতির সাগরে ডুব অক্ষয়ের। 

কফি উইথ করণের হোস্ট করণ জোহর অক্ষয় কুমারকে স্বজনপ্রীতি নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন। অক্ষয় জানিয়েছেন, তাঁর ইংরেজি খুব একটা ভালো নয়। তিনি আগে নেপোটিজমের অর্থও জানতেন না। তিনি তাঁর স্ত্রী টুইঙ্কল খান্নাকে প্রশ্ন করেছিলেন যে, নেপোটিজম কী? অক্ষয় আরও বলেন, তিনি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে এসেছিলেন অর্থ উপার্জনের জন্য। অন্যেরা কী করছে, কখনই দেখেন না তিনি। বরং হাতে কোনও প্রকল্প পেলে যদি সঠিক মনে হয়, তবে তিনি তা করেন।

আরও পড়ুন: ‘আমাদের এক ঘরে রাখলে…’, প্রাক্তন স্বামীর সঙ্গে সম্পর্কের তিক্ততা নিয়ে সামান্থা

অক্ষয় কুমার বলেন- 'আমি এই ইন্ডাস্ট্রিতে উপার্জন করতে এসেছিলাম। আমার লক্ষ্য ছিল সহজ। এখানে আসার পর শুরুতে মাসে পাঁচ হাজার টাকা আয় করতাম। একদিন একটা বিজ্ঞাপন পেলাম। দু'ঘণ্টা কাজ করে প্রায় ২১ হাজার টাকা পেয়েছিলাম। আমি ভাবলাম মানুষকে মার্শাল আর্টের প্রশিক্ষণ দিয়ে আমি কী করছি। এখানে ২ ঘণ্টায় এত টাকা পাচ্ছি। কখনো ভাবিনি কে কার ছেলে। কাজ পাবো নাকি পাবো না? যা কাজ পাচ্ছিলাম তাই করছিলাম। আমি বিশ্বাস করি যে কোন প্রকল্প আপনার কাছে সঠিক মনে হলে তা করা উচিত। ভাববেন না এটা তিনজন নায়ক, চারজন নায়কের ছবি। ৭টি নায়কের সঙ্গে ছবিতেও কাজ করেছি। ছবির নাম ছিল ‘জানি দুশমন’।'

এরপর করণ জোহর অক্ষয় কুমারকে ‘জানি দুশমন’ ছবির গল্প শোনাতে বলেন। অক্ষয় কুমার জানিয়েছেন, এই ছবিতে তাঁর চরিত্রকে মারা যেতে হয়েছে। কিন্তু তাঁকে হত্যা করে জীবিত করা হয়েছিল। 'জানি দুশমন' ছবির জন্য দিন হিসেবে পারিশ্রমিক পেতেন অক্ষয়।

তিনি বলেন- 'দিনের হিসেবে টাকা পাচ্ছিলাম। আমি কাজ করছিলাম। দৃশ্যটি ছিল ভিলেন আমার চরিত্রকে হত্যা করে। আমার চরিত্র মারা গিয়েছিল। তখন জানতে পারলাম, যে অভিনেতা এখানে অভিনয় করবেন তিনি নিউইয়র্কে আটকে আছেন। তিনি আসতে পারবেন না। এরপর আমি পরিচালককে জিজ্ঞেস করেছিলাম, আগামীকাল থেকে কাজে আসব কিনা। উনি জানিয়েছিলেন, আমার চরিত্র মরেনি, কোমায় আছে। এরপর আরও ৫ দিন শ্যুটিং করেছি। টাকা কামিয়েছি। বললে বিশ্বাস করবে না, এখন যেই বাড়িতে আমি থাকি, সেই সময় এই বাড়ি কেনার জন্য আমার অর্থের প্রয়োজন ছিল। 'জানি দুশমন'-এর জন্যই বাড়িটা কিনতে পেরেছিলাম।'

এ বিষয়ে সামান্থা তাকে প্রশ্ন করেন, কোন অভিনেতার কারণে এমনটি হয়েছে। অক্ষয় জানিয়েছিলেন, 'তিনি সানি দেওল। কিছু অস্ত্রোপচারের কারণে নিউইয়র্কে আটকে পড়েছিলেন সানি। 'জানি দুশমন' আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে।'

 

 

বন্ধ করুন