বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > বাথরোব পরে গোয়া এয়ারপোর্টে ‘কুমকুম ভাগ্য’-খ্যাত জিশান খান, হতবাক নেটিজেনরাও!
অভিনেতা জিশান খানের এয়ারপোর্ট স্টান্ট। 
অভিনেতা জিশান খানের এয়ারপোর্ট স্টান্ট। 

বাথরোব পরে গোয়া এয়ারপোর্টে ‘কুমকুম ভাগ্য’-খ্যাত জিশান খান, হতবাক নেটিজেনরাও!

এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে উঠতে জিশানকে বাধা দেওয়া হলে, কর্মীদের ‘নিষ্কর্মা’ বলে উল্লেখ করেন তিনি!

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার শখ যে কোথায় যেতে পারে, তা আরও একবার প্রমাণিত হল। গোয়া বিমানবন্দরে বাথরোব পরে হাজির হলেন ‘কুমকুম ভাগ্য’-খ্যাত জিশান খান। নিজের ইউটিউব চ্যেনেলের জন্য ব্লগ বানানোই ছিল তাঁর লক্ষ্য। এর আগে কেউ বাথরোব পরে প্লেনে ওঠেনি। তাই নতুন ‘গিনিস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড’ সেট করতে চেয়েছিলেন জিশান

ইউটিউবে ‘They almost stopped me from boarding the flight Ft. KKB Cast & Crew’ নামে সম্প্রতি একটি ভিডিয়ো আপলোড করেছেন জিশান। যেখানে দেখা যাচ্ছে, বাথরোপ পরেই তিনি বিমানবন্দরে হাজির হয়েছেন। আর সঙ্গে থাকা একটি মেয়েকে বোঝাচ্ছেন এভাবে তিনি গিনিস বুকে নাম লেখাবেন। যদিও, এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীরা জিশানকে আটকায় এবং জানায় বাথরোবে প্লেনে চড়ার অনুমতি তিনি পাবেন না। এমনকী এই ভিডিয়োতে জিশানকে বলতে শোনা যাচ্ছে, ‘এয়ার ইন্ডিয়ার কর্মীরা সব নিষ্কর্মা’।

জিশানের মতে, ‘আমাদের একটাই জীবন। আর আমার মতে এর প্রতিটা মুহূর্ত উপভোগ করা উচিত। কে বলেছে পাবলিক প্লেসে বাথরোব পরা যায় না! আমি নিজে যেটা মনে করি, সেটা করাতেই বিশ্বাস রাখি। আমি যদি সাবলীল হই, তাহলে অন্যের কী সমস্যা। কিছু নিয়ম, নীতির ওপর প্রশ্ন তোলা উচিত, কারণ সেগুলো বদলানোর সময় এসেছে।’

জিশানকে সমর্থন জানিয়েছেন তাঁর ইউটিউব ফলোয়ার্সরা। তাঁদের মতে, ‘জি সবসময় টেনশন ফ্রি হয়ে বাঁচে’, ‘তুমিই আমার হিরো জিশান’, ‘সত্যি, এসব নিয়ম ভিত্তিহীন’-এর মতো কমেন্ট পড়েছে সেখানে। একজন আবার মনে করেন, জিশান যদি ফ্লাইটে বসেও ব্লগিং করেন, তিনি অবাক হবেন না।

কিছুদিন আগে কাস্টিং কাউচ প্রসঙ্গেও সরব হয়েছিলেন জিশান। জানিয়েছিলেন, ‘শুনতে খারাপ লাগলেও আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে কাস্টিং কাউচ রয়েছে। আমি যখন নতুন, যখন এরকম অফার ফিরিয়ে দিয়েছিলাম, তখন হেসে আমাকে বলা হয়েছিল আমি কোনওদিন বড় অভিনেতা হতে পারব না। এই ধরনের কথা মন ভেঙে দেয়। তা সত্ত্বেও আজ আমি নিজের একটা জায়গা করতে পেরেছি। এখন কে হাসছে?’

বন্ধ করুন