বাড়ি > বায়োস্কোপ > অনুরাগীদের কাছে ক্ষমা চাইলেন অঙ্কুশ,প্রকাশ্যে এল কেস জন্ডিসের শেষ ৫টি এপিসোড
শুক্রবার মুক্তি পেল কেস জন্ডিসের শেষ পাঁচ এপিসোড (ছবি সৌজন্যে-ইনস্টাগ্রাম)
শুক্রবার মুক্তি পেল কেস জন্ডিসের শেষ পাঁচ এপিসোড (ছবি সৌজন্যে-ইনস্টাগ্রাম)

অনুরাগীদের কাছে ক্ষমা চাইলেন অঙ্কুশ,প্রকাশ্যে এল কেস জন্ডিসের শেষ ৫টি এপিসোড

  • শুক্রবার মুক্তি পেল কেস জন্ডিসের শেষ পাঁচ এপিসোড।

এক করোনায় রক্ষে নেই তার দোসর হয়ে বাংলার মানুষের জীবন জেরবার করে চলে গিয়েছে আমফান। ২০ মে বয়ে যাওয়া এই ধ্বংসাত্মক ঘূর্ণীঝড়ের জেরে এখনও ব্যাহত জনজীবন। গত ২২ মে মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল অঙ্কুশ-পরমব্রত-অনিবার্ণের লকডাউন ওয়েব সিরিজ ‘কেস জন্ডিস’-এর শেষ পাঁচ এপিসোডের। কিন্তু পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে সেই মুক্তি পিছিয়ে দেয় টিম হইচই। অবশেষে শুক্রবার, ২৯ মে মুক্তি পেল কেস জন্ডিসের বাকি পাঁচটি এপিসোড। 

অপেক্ষা বাড়ানোয় অনুরাাগীদের কাছ থেকে ক্ষমা চেয়ে নিলেন অঙ্কুশ। এদিন ফেসবুকে একটি ভিডিয়ো বার্তা পোস্ট করে অভিনেতা জানান, ‘ খুব দুঃখিত এই দেরির জন্য।.. তোমরা সবাই জানো আমফান ঝড়,নেটওয়ার্ক ইস্যু অনেক কারণ ছিল সেই সময় রিলিজ না করার। তাই আমরা সেই সঠিক সময় মনে করিনি এপিসোড গুলো আপলোড করার। আজকে কেস জন্ডিসের বাকি এপিসোড মানে ৬-১০ এপিসোড গুলো মুক্তি পেল। দুঃখের এই সময়ে এটা আমাদের হাসার একটা বাহানা বলতে পারো’।

করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই তৈরি হয়েছে  শুভঙ্কর চট্টোপাধ্যায় পরিচালিত এই ওয়েব সিরিজ। কেস জন্ডিস অঙ্কুশের ডিজিট্যাল প্ল্যাটফর্মে ডেব্যিউ। লকডাউনের সব নিময় মেনে যে যার বাড়ি বসেই এই ওয়েব সিরিজের শ্যুটিং সেরেছেন অঙ্কুশ,পরমব্রতরা। 

একটি কোর্টরুম ড্রামাকে ঘিরে তৈরি হয়েছে কেস জন্ডিস। সিরিজে দুই আইনজীবী মিস্টার সেন ও মিস্টার দাস-যে চরিত্রে রয়েছেন পরমব্রত ও অঙ্কুশ। বিচারকের ভূমিকায় রয়েছেন অনির্বাণ চক্রবর্তী। বাদী ও বিবাদী পক্ষের আইনজীবীর মজাদার সওয়াল-জবাব ঘিরেই এগিয়েছে এই সিরিজ।প্রথম পাঁচটি এপিসোড সম্পর্কে দর্শকদের প্রতিক্রিয়ায় দারুণ খুশি অঙ্কুশ। তিনি জানালেন, তোমরা ভীষণ ভালোবেস এই ওয়েব সিরিজটা তার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ, আমরা সব জায়গা থেকে খুব ভালো রিভিউ পেয়েছি'।

শেষ পাঁচটি এপিসোডে কী থাকছে?  সেই হদিও ফ্যানেদের দিলেন অভিনেতা। জানালেন পরবর্তী পাঁচটা এপিসোডের থিম- ওয়ার্ক ফ্রম হোম ভার্সেস ওয়ার্ক ফ্রম অফিস, ল্যাদখোর বাঙালি ভার্সেস (পরিশ্রমী) বাঙালি,ক্লাসিক রোম্যান্স বনাম ডিজিট্যাল রোম্যান্স, ফিল্ম ভার্সেস সেন্সার বোর্ড, আই ডু ফিয়ার ভার্সেস আই ডোন্ট কেয়ার।

এই কঠিন সময়ে মনের জোর নিয়ে একে অপরের পাশে দাঁড়ানোটা জুরুরি, তাহলেই এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভবকর হবে মনে করছেন অঙ্কুশ। আগামিদিনেও কী এই ধরণের জন্ডিস কেস নিয়ে কোর্টে সওয়াল-জবাব করবেন অঙ্কুশ-পরমব্রতরা? নতুন সিজনের সম্ভবানাও এক্কেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

বন্ধ করুন