বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > পরিচালক সত্রাজিতকে ডেলিভারি বয়ের হিন্দিতে কথা বলার নির্দেশ, ক্ষমা চাইল সংস্থা
পরিচাক সত্রাজিৎ সেন। (ছবি সৌজন্যে - ফেসবুক)
পরিচাক সত্রাজিৎ সেন। (ছবি সৌজন্যে - ফেসবুক)

পরিচালক সত্রাজিতকে ডেলিভারি বয়ের হিন্দিতে কথা বলার নির্দেশ, ক্ষমা চাইল সংস্থা

  • ডেলিভারি বয়কে ফোনে সমস্যা বুঝিয়ে বুঝিয়ে দিতে ফোন করেছিলেন পরিচালক সত্রাজিৎ সেন। নির্দেশ আসে হিন্দিতে কথা বলার!এবার গোটা ঘটনার জন্য চশমার কোম্পানির তরফ থেকে টুইটারে ক্ষমা চাওয়া হল।

গত শুক্রবারই বাঙালি পরিচালক-প্রযোজক সত্রাজিৎ সেনের করা একটি টুইটের পর উত্তাল হয়েছিল নেটপাড়া। কী ব্যাপার? না, অনলাইনেই বেশ নামী ব্র্যান্ডের একটি চশমার অর্ডার দিয়েছিলেন সত্রাজিৎ। তবে চশমার পাওয়ারে গন্ডগোল টের পাওয়াতে তা ফেরত দিতে গেছিলেন জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত এই পরিচালক-প্রযোজক। এরপরেই শুরু হয় গন্ডগোল। ডেলিভারি বয়কে ফোনে সমস্যাটি বুঝিয়ে দিতে যাওয়ার সময় ও প্রান্ত থেকে সে পরিচালককে একপ্রকার নির্দেশ দেয় হিন্দিতে কথা বলার! খোদ কলকাতায় বাংলায় কথা বলার জন্য যে তাঁকে এরকমটা শুনতে হবে, তা কল্পনার বাইরে ছিল সত্রাজিতের। গোটা ঘটনায় যারপরনাই হতবাক ও ক্ষুব্ধ তিনি। 

গোটা ঘটনার কথা একাধিক টুইটের মাধ্যমে তিনি শেয়ার করেছেন। ওই নামী চশমার ব্র্যান্ডকেও সেই টুইটে ট্যাগ করেছিলেন তিনি। এবার গোটা ঘটনার জন্য চশমার কোম্পানির তরফ থেকে ক্ষমা চাওয়া হল।

টুইটারে ক্ষমা চেয়ে ওই সংস্থা জানিয়েছে, এরকম অনভিপ্রেত ঘটনার জন্য তাঁরা যারপরনাই দুঃখিত। আরও লেখা হয়েছে তাঁদের লক্ষ্য থাকে প্রতিটি গ্রাহকের সঙ্গে যেন তাঁদের অভিজ্ঞতা দুর্দান্ত হয়। তাই সেই ব্যাপার থেকে একচুলও যদি বিষয়টি এদিক ওদিক হয়, আশাহত হন তাঁরাও। টুইট শেষে চশমার ওই সংস্থার তরফে বলা হয়েছে এই ঘটনা থেকে তাঁরা শিক্ষা নিয়েছেন। ভবিষ্যতে যেন এরকম কোনও কিছুর মুখোমুখি তাঁদের তরফে আর কাউকে পড়তে না হয়, সেই বিষয়ে সম্পূর্ণ সচেতন থাকবেন তাঁরা।

টুইটারে ওই চশমার সংস্থার ক্ষমাপ্রার্থনা এবং পালা জবাব সত্রাজিতের। (ছবি সৌজন্যে - টুইটার)
টুইটারে ওই চশমার সংস্থার ক্ষমাপ্রার্থনা এবং পালা জবাব সত্রাজিতের। (ছবি সৌজন্যে - টুইটার)

তাঁর উত্তরে পরিচালক লিখেছেন, ‘বাঙালি আমি, বাংলায় লিখছি। রিফান্ড করে দেবেন। আমার আপনাদের সঙ্গে আর কোনও লেনদেনের ইচ্ছে নেই। বেশ কয়েক বছর করলাম। রোমানে লিখলাম যাতে পড়তে সুবিধা হয়। নয়তো বাঙালি কেউ তো আছেই আপনাদের কোম্পানিতে আশা করি। তাকে দিয়ে অনুবাদ করিয়ে নেবেন।’ 

প্রসঙ্গত, সত্রাজিতের প্রথম সেই টুইটটি চোখে পড়া মাত্রই পরিচালকের সমর্থনে মুখ খুলেছিলেন সৃজিত মুখোপাধ্যায়, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, আবির চট্টোপাধ্যায়ের মত ব্যক্তিত্বরা। সত্রাজিতের সমর্থনে মুখ খুলে সেই ডেলিভারি বয়ের উদ্দেশে পাল্টা তোপও দেগেছেন তাঁরা। 'বাকিটা ব্যক্তিগত' ছবির প্রযোজককে সমর্থন জানিয়ে টুইট করেছেন বলি-অভিনেতা চন্দন রায় সান্যালও।

বন্ধ করুন