বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > সুশান্ত মৃত্যুর ‘মিডিয়া ট্রায়াল’ নিয়ে টিভি চ্যানেলদের একহাত বম্বে হাইকোর্টের
সুশান্ত সিং রাজপুত (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
সুশান্ত সিং রাজপুত (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

সুশান্ত মৃত্যুর ‘মিডিয়া ট্রায়াল’ নিয়ে টিভি চ্যানেলদের একহাত বম্বে হাইকোর্টের

  • সুশান্তের মৃত্যুর পর রিপাবলিক ও টাইমস নাও-এর কভারেজে আপাতদৃষ্টিতে আদালতের অবমাননা হয়েছে বলে মনে করে আদালত।

সুশান্ত মামলায় যে কার্যত মিডিয়া ট্রায়াল হয়েছে, সেটা স্পষ্ট করে দিল বম্বে হাই কোর্ট। আদালত বলে যে সুইসাইডের ঘটনায় আরো সংবেদনশীল ভাবে রিপোর্ট করা উচিত মিডিয়ার। গণমাধ্যম যদি সমান্তরাল ভাবে আদালতের কাজ করে, তাহলে ন্যায় বিচার দিতে অসুবিধা হয় বলে মনে করে আদালত। একই সঙ্গে এটি আদালত অবমাননা বলেও মনে করে বম্বে হাই কোর্ট। 

প্রধান বিচারপতি দীপঙ্কর দত্তের বেঞ্চ বলে যে মিডিয়ায় তদন্ত নিয়ে শুধু তথ্যমূলক তথ্য দেওয়া উচিত। এই নিয়ে বিতর্ক শুরু করা উচিত নয়। সুশান্তের মৃত্যুর পর রিপাবলিক ও টাইমস নাও-এর কভারেজে আপাতদৃষ্টিতে আদালতের অবমাননা হয়েছে বলে মনে করে আদালত। তবে তাদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না আদালত। 

যেভাবে মিডিয়া ট্রায়াল হয়ে সেটা টিভির প্রোগ্র্যামিং কোডের পরিপন্থী বলে আদালত মনে করে। সাংবাদিকতার এথিকস অনুযায়ী কভারেজ না করলে অবমাননার দায় তারা পড়তে পারে বলে জানিয়েছে আদালত। সুশান্তের মৃত্যুর পর যেভাবে টিভিতে কভারেজ হয়েছিল তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়েছিল। এদিন তারই রায় দিল আদালত। 

যতদিন না টিভি চ্যানেলগুলির জন্য কোনও কোড আসছে, তাদের প্রেস কাউন্সিলের গাইডলাইন মানতে বলেছে আদালত, যেটা সংবাদপত্রের জন্য প্রযোজ্য। সংযত ভাবে রিপোর্টিং করা উচিত যাতে অভিযুক্ত ও সাক্ষীদের অধিকার লঙ্ঘিত না হয় বলে জানায় হাইকোর্ট। সংবেদনশীল তথ্য লিক করা, সাক্ষীদের সঙ্গে সাক্ষাৎকার, ক্রাইম সিনের পুনর্নির্মাণ করা থেকে বিরত থাকতে বলেছে হাইকোর্ট। কোনও অভিযুক্তের স্বীকারোক্তি যদি পুলিশকে দেওয়া হয়ে থাকে, সেটা যে আদালতে গ্রাহ্য নয়, সেটা না বলে রিপোর্ট করা যাবে না, এটাও জানিয়েছে আদালত। সুইসাইডের ক্ষেত্রে ব্যক্তি মানসিক ভাবে দুর্বল ছিল, এমন কথাও বলা যাবে না। তদন্তকারী সংস্থারা প্রয়োজনে গোপনীয়তা বজায় রাখতে পারে বলে জানায় আদালত। 

গত বছরের সুশান্ত সিং রাজপুত ১৪ জুন মারা যান। মুম্বইয়ে তাঁর দেহ বাসস্থান থেকে উদ্ধার হয়। তিনি আত্মহত্যা করেছেন না খুন হয়েছেন, তাঁর বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী এর সঙ্গে কীভাবে জড়িত, এই নিয়ে মাসের পর মাস টিভি চ্যানেলগুলি খবর চালিয়েছে। সেটির ফলে যে ন্যায় বিচার দিতে সমস্যা হয়েছে, সেটা জানাল আদালত। একই সঙ্গে এদিন আদালত বলে যে সুশান্তের মৃত্যু সংক্রান্ত খবর নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষেত্রে নিজেদের দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হয়েছে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক। 

বন্ধ করুন