বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > চিকুর কবর চোখের জলে ভাসালেন মিমি, 'সন্তান'-এর আত্মার শান্তি কামনা নায়িকার
চিকুর কবরে মিমি (ছবি সৌজন্যে-ইনস্টাগ্রাম)
চিকুর কবরে মিমি (ছবি সৌজন্যে-ইনস্টাগ্রাম)

চিকুর কবর চোখের জলে ভাসালেন মিমি, 'সন্তান'-এর আত্মার শান্তি কামনা নায়িকার

  • গত ১৭ই এপ্রিল না ফেরবার দেশে চলে গিয়েছে মিমির আট বছরের সারমেয় চিকু। 

মিমির হৃদয়ের একটা টুকরো সঙ্গে নিয়ে চলে গিয়েছে তাঁর প্রাণের চেয়েও প্রিয়, তাঁর চারপেয়ে সন্তান চিকু। গত ১৭ই এপ্রিল মৃত্যু হয় অভিনেত্রীর ক্যানসার আক্রান্ত সারমেয়র। চিকু আর ম্যাক্স, এই দুই সারমেয়কে ঘিরেই মিমির গোটা জীবন। চিকুর মৃত্যুকে কার্যত ভেঙে পড়েছেন নায়িকা। গত কয়েকদিনে মিমির সমাজিক যোগাযোগের দেওয়াল বিবর্ণ, চাপা কষ্টের রেশ সেখানেও ধরা পড়ছে। মঙ্গলবার মৃত ছেলের সঙ্গে দেখা করতে গেলেন মিমি। এদিন চিকুর কবরে হাজির হয়েছিলেন অভিনেত্রী। সাদা পোশাক, কান্না ঢাকতে চোখে কালো রঙা রোদ-চশমা। ছেলের পছন্দের খাবারের থালা সাজিয়ে রাখলেন কবরে। রজনীগন্ধার মালা, লাল গোলাপে সাজানো কবর ধূপ জ্বালিয়ে চিকুর আত্মার শান্তি কামনা করলেন।

ঠাকুরপুকুর নিখিল বঙ্গ কল্যাণ সমিতির পোষ্য করবস্থানে নিময় মেনে গোরস্থ করেছিলেন মিমি। এদিন সেখানে গিয়ে ওখানকার সারমেয়দেরও নিজের হাতে খাওয়ালেন মিমি। সঙ্গে ছিলেন অভিনেত্রীর কাছের বন্ধু, অভিনেতা অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়। 

চিকুর জন্য প্রার্থনা মিমির
চিকুর জন্য প্রার্থনা মিমির

এদিন নিজের বাড়িতেও চিকুর আত্মার শান্তিতে পাঠ রেখেছিলেন মিমি। একটু একটু সেরে উঠছেন মিমি, সে কথাও সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টে জানান তিনি। নিজের দুটি ছবি পোস্ট করে লেখেন- ‘সেরে উঠছি’।

 

দুদিন আগেই চিকুর উদ্দেশে একটি দীর্ঘ আবগেঘন বার্তা লেখেন মিমি। জানান, 'আমার চোখ জলে ঝাপসা, দম বন্ধ হয়ে আসছে, খুব ক্লান্ত। আমার হাত দুটো খালি, আমার আত্মাটাও। আমার ঘরটা ফাঁকা তবুও ঘরে তোর গন্ধ ছড়িয়ে রয়েছে। আমি জানি তুই আমাদের দেখছিস সেখান থেকে… যেখানে কোনও কস্ট নেই, আমি জানি তুই এখন খুশি আছিস। আমি জানি তুই আমার মধ্যে আজীবন বেঁচে থাকবি, আমার বাচ্চা আবার দেখা হবে…..আমি তোকে খুব ভালোবাসি চিকু'।

বন্ধ করুন