মুক্তি পেল মিমির ড্রিমস অ্যালবমের তিন নম্বর গান 'পরী হু মেয়' (সৌজন্যে-ইন্সটাগ্রাম)
মুক্তি পেল মিমির ড্রিমস অ্যালবমের তিন নম্বর গান 'পরী হু মেয়' (সৌজন্যে-ইন্সটাগ্রাম)

জন্মদিনে ভক্তদের রিটার্ন গিফট দিলেন 'পরী' মিমি চক্রবর্তী

  • সোমবার মিমির জন্মদিনে প্রকাশ্যে এল তাঁর ড্রিমস অ্যালবামের তিন নম্বর তথা শেষ গান ‘পরী হু মেয়’।

মঙ্গলবার মিমি চক্রবর্তীর জন্মদিন। বার্থ ডে গার্ল মিমি বলছেন, ‘আমার মন ভেঙো না..পরী হু মেয়, আমার মনেই থাকো..পরী হুঁ মেয়’। এদিন প্রকাশ্যে এল মিমির ড্রিমস অ্যালবামের তিন নম্বর তথা শেষ গান ‘পরী হু মেয়’। এটাই জন্মদিনে ফ্যানেদের জন্য মিমির উপহার। অভিনেত্রীর আগের দুটো গানের মতো এই গানের কথাও হিন্দি আর ইংরাজির মিশেলে। পরী হু মেয় গানটির সুর দিয়েছেন ডাব্বু। গানের কোরিওগ্রাফার বাবা যাদব।


অনজানা এবং পলের মতো এই গানেরও শ্যুটিং হয়েছে ইস্তানবুলে। তুরস্কের রাজধানী ইস্তানবুলের সমুদ্র সৈকত এবং জঙ্গলের এই গানের ভিডিয়ো শ্যুট করেছেন যাদবপুরের সাংসদ। মিমির কথায়, 'এই গানটা হল জীবন আর ভালোবাসাকে সেলিব্রেট করার গান। খুশি আর আনন্দে মেখে থাকার গান.. পরী হুঁ মেয়। গানগুলো শ্যুট করা হয়েছে একদম লার্জার দ্যান লাইফ স্কেলে। শুভঙ্করদা(ভর,সিনেমাটোগ্রাফর) এক কথায় ম্যাজিক তৈরি করেছে'।

গত বছর পুজোর আগে মুক্তি পেয়েছিল অনজানা। সেই সময় মিমি জানিয়েছিলেন, ‘স্বপ্ন দেখা এবং সেটা পূরণ হওয়ার আনন্দটাই আলাদা’। গান গাওয়ার স্বপ্নটা মিমির অনেক দিনের। সেই স্বপ্ন প্রথম পূরণ হয় গত বছরের গোড়ার দিকে।মন জানে না ছবিতে কেন যে তোকে-র আনপ্লাগড ভার্সন রেকর্ড করেন মিমি। এরপরই শুরু শেষমেষ বাস্তবায়িত হয় তাঁর অ্যালবামের পরিকল্পনা।


প্রসঙ্গত, সম্প্রতি নিজের কামব্যাক ফিল্ম ড্রাকুলা স্যারের শ্যুটিং শেষ করেছেন মিমি। ড্রাকুলা স্যারে মিমি লুক খুব পছন্দ করছে দর্শকরা।


এই পিরিয়ড ছবিতে মঞ্জরী মানে মিমির বিপরীতে রয়েছেন অনির্বাণ ভট্টাচার্য। ছবির পরিচালক দেবালয় ভট্টাচার্য। শীঘ্রই জিতের বিপরীতে বাজির কাজও শুরু করবেন মিমি। এই ছবিতেই প্রথমবার জিতের সঙ্গে জুটি বাঁধছেন নায়িকা। তাই বাজি নিয়ে বাড়তি এক্সাইটমেন্ট তো রয়েইছে। ২০২০-র ইদে মুক্তি পাবে বাজি।


বন্ধ করুন