বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Mithun Chakraborty: ‘চাই না আমার বায়োপিক কেউ বানাক’, মিঠুনের এই অদ্ভুত দাবির পিছনে রয়েছে বড় কারণ!

Mithun Chakraborty: ‘চাই না আমার বায়োপিক কেউ বানাক’, মিঠুনের এই অদ্ভুত দাবির পিছনে রয়েছে বড় কারণ!

কেরিয়ার শুরুর স্ট্রাগল নিয়ে মুখ খুললেন মিঠুন। 

কেরিয়ার শুরুর দিকের স্ট্রাগল নিয়ে এর আগেও কথা বলেছেন মিঠুন। জানিয়েছেন, একসময় ঠিক করে খেতে পারতেন না। রাতে ঘুমোতেন ফুটপাথে। সঙ্গে গায়ের রং নিয়ে ধেয়ে আসা বিরূপ মন্তব্যরা তো ছিলই।

গায়ের রং নিয়ে কটাক্ষ শুনতে হয়েছে মিঠুন চক্রবর্তীকে। এমনকী রাতে এই নিয়ে চোখের জলও ফেলতেন তিনি, সম্প্রতি এমন কথাই বলতে শোনা গেল এই বাঙালি অভিনেতাকে। হাজির হয়েছিলেন তিনি সম্প্রতি সারেগামাপা লিটল চ্যাম্পস-এ। ডিস্কো কিং স্পেশাল এপিসোডে তিনি এসেছিলেন সঙ্গে পদ্মিনী কোলাপুরে। 

মিঠুন বলেন, ‘আমি কখনও চাই না কেউ সেরকম সময়ের মধ্যে দিয়ে যাই যেরকমটা আমাকে যেতে হয়েছে। অনেকেই নানা ধরনের স্ট্রাগলের মুখে পড়ে তবে আমাকে তো সবসময় আমার গায়ের রং নিয়ে কটাক্ষ করা হত। অনেকগুলো বছর এই অপমান আমাকে সহ্য করতে হয়েছে। এমনও দিন গিয়েছে যখন আমি খালি পেটে শুতে গিয়েছি। কাঁদতে কাঁদতে ঘুমিয়ে পড়তাম। এরকমও দিন গেছে যখন আমাকে ভাবতে হয়েছে পরের মিলে আমি আদৌ খাবার পাব তো? একাধিক দিন তো ফুটপাথে ঘুমিয়েছি। ’

মিঠুন বলেন এই কারণের জন্যই তিনি কখনও চান না যে তাঁকে নিয়ে বায়োপিক বানানো হোক। কারণ তাঁর উপর দিয়ে যেটা গিয়েছে সেটা যাতে আর কাউকে ভোগ করতে না হয়। বলেন, ‘এই কারণেই আমি চাই না কখনও আমার বায়োপিক বানানো হোক। কারণ আমার গল্প কখনোই কাউকে অনুপ্রেরণা যোগাবে না। বরং তাঁদের মন ভেঙে দেবে। লোককে নিজেদের স্বপ্ন পূরণের পথে এগোতে ভয় পাওয়াবে। আমি চাই না এটা ঘটুক। আমি যদি করতে পারি, তাহলে অন্যরাও পারবে। নিজেকে ইন্ডাস্ট্রিতে প্রমাণ করতে অনেক স্ট্রাগল করেছি। আমি হিট ছবি দিয়েছি বলে লেজেন্ড নই, বরং নিজেকে লেজেন্ড ভাবি কারণ অতিক্রান্ত করেছি আমি সমস্ত কষ্ট আর জীবনসংগ্রাম।’

১৯৭৬ সালে মৃগয়া দিয়ে বলি ডেবিউ করেন মিঠুন, আর প্রথম ছবির জন্যই পান জাতীয় পুরষ্কার। আশি আর নব্বইয়ের দশকের মাঝে একাধিক হিট দিয়েছেন যেমন ডিস্কো ডান্সার, ওয়ার্ডাট, বক্সার, অগ্নিপথ। চলতি বছরেই তাঁকে শেষ দেখা গিয়েছে ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’ ছবিতে। 

 

বন্ধ করুন