বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > যশের পাশে আচমকা নুসরতের জায়গা নিলেন মধুমিতা! ব্যাপারটা কী?
যশের পাশে কে? 
যশের পাশে কে? 

যশের পাশে আচমকা নুসরতের জায়গা নিলেন মধুমিতা! ব্যাপারটা কী?

ফ্যানেদের দৌলতে সবই সম্ভব! যশের পাশে ছিলেন নুসরত, পালটে হয়ে গেল মধুমিতা।

যশ দাশগুপ্ত এবং মধুমিতা সরকার বাংলা টেলিভিশনের সর্বকালের সেরা জুটিগুলির মধ্যে অন্যতম। ‘বোঝে না সে বোঝা না’ ধারাবাহিকের অরন্য আর পাখিকে আজও ভুলতে পারেনি দর্শক। এই জুটির ফ্যানেরা বারবার একসঙ্গে দেখতে চেয়েছে এই জুটিকে। তবে বোঝে না সে বোঝে শেষ হওয়ার পর প্রায় পাঁচ বছর কেটে গেলেও একসঙ্গে কোনও প্রোজেক্টে কাজ করেননি যশ-মধুমিতা। অন্যদিকে টলিউড কেরিয়ারের শুরুর দিকেই যশের নায়িকা হয়েছিলেন নুসরত। একসঙ্গে দুটি ছবিতে (ওয়ান,এসওএস কলকাতা) কাজ করেছেন তাঁরা। আপতত এই জুটির প্রেম সম্পর্কের গুঞ্জনও ডানা মেলেছে টলিউডের অলিতে গলিতে। 

এবার নেটদুনিয়ায় ভাইরাল হস যশ-মধুমিতার একটি ছবি যা দেখে রীতিমতো ধন্দে নেটিজেনরা। কারণ সেই ছবিতে যশের পাশে নুসরতের জায়গায় দেখা যাচ্ছে মধুমিতাকে! দিন কয়েক আগেই ডিকশনারির প্রিমিয়ারে যশের হাত ধরে হাজির হয়েছিলেন নুসরত। হুবহু একইরকম পোশাকে যশের পাশে দাঁড়িয়ে রয়েছেন মধুমিতা।  সেই ছবি প্রথমবার দেখলে ধন্দে পড়বেন আপনিও। তবে একটু মন দিয়ে দেখলে বোঝা যাবে পুরোটাই ফটোশপের কারসাজি। মধুমিতা-যশের ফ্যানক্লাবের তরফে টেকনোলজির সাহায্য নিয়ে নুসরতের মুখের জায়গায় বসিয়ে দেওয়া হয়েছে মধুমিতার মুখ। আর এই কাণ্ডটি ঘটিয়েছেন  ‘যশ মধুমিতা ফ্যানস্পিকস' নামের একটি ফ্যানক্লাব।

‘ডিকশনারি’র প্রিমিয়ারে লাল গাউনে দেখা গিয়েছিল নুসরতকে। যশ এসেছিলেন ডেনিম শার্ট এবং জিনসে। সেই লুকের ছবিই এডিট করেছে যশ-মধুমিতা ভক্তরা, যা নিমেষে ভাইরাল হয়ে যায়। ছবিটির সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয় মধুমিতার নতুন গান ‘আমার চালাকি’র দুটি লাইন- ‘যদি তোমার কথা লিখি, তুমি শুনতে চাইবে কি, তুমি ভাব আমার চালাকি’।

নুসরতের সঙ্গে যশের আসর ছবি (ডান দিক) ফটোশপে এডিট করা মধুমিতা-যশের ছবি ( বাঁ দিক)
নুসরতের সঙ্গে যশের আসর ছবি (ডান দিক) ফটোশপে এডিট করা মধুমিতা-যশের ছবি ( বাঁ দিক)

অন্যদিকে তৃণমূল সাংসদ নুসরতের বিশেষ বন্ধু যশের পদ্মপ্রাপ্তি নিয়েও নতুন জল্পনা রাজনৈতিক মহলে। যশের বিজেপিতে যোগদান নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি নুসরত জাহান। বুধবার দিনভর ‘দিদির দূত’ নুসরত ব্যস্ত ছিলেন দলের হয়ে নির্বাচনী প্রচারাভিযানে। বিজেপিতে যোগ দেওয়াজেরে যশ-নুসরতের বন্ধুত্বে ফাটল ধরবে না তো? যশ নিজেই এই প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। অভিনেতার কথায়, ‘আমি আজ বিজেপিতে যোগদান করছি সেকথা নুসরতকে জানাইনি। তাছাড়া আমাদের বন্ধুত্ব অভিনয়কে ঘিরে। রাজনীতিতে আসা মানুষের কাজ করার জন্য। আমার আরেক বন্ধু মিমিও তৃণমূলের সাংসদ। যে যার ব্যক্তিগত পছন্দ অনুযায়ী রাজনীতি করে। এক বাড়িতে স্বামী – স্ত্রীও আলাদা রাজনৈতিক দলের সদস্য হতে পারেন। বন্ধুত্বের মধ্যে রাজনীতি না ঢোকানোই ভাল।’

বন্ধ করুন