বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Nawazuddin Siddiqui: শাশুড়ি-বউমার চুলোচুলি! নওয়াজের বউয়ের নামে এফআইআর অভিনেতার মায়ের, সমন আলিয়াকে

Nawazuddin Siddiqui: শাশুড়ি-বউমার চুলোচুলি! নওয়াজের বউয়ের নামে এফআইআর অভিনেতার মায়ের, সমন আলিয়াকে

শাশুড়ি মামলা ঠুকলেন আলিয়া সিদ্দিকির নামে

বউমার বিরুদ্ধে পুলিশের দ্বারস্থ নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির মা। আলিয়ার নামে একাধিক অভিযোগ এনে ঠুকলেন মামলা। অভিনেতার স্ত্রীকে তলব ভারসোভা পুলিশের। 

ফের প্রকাশ্যে অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির পারিবারিক বিবাদ। এবার অভিনেতার বউয়ের নামে থানায় এফআইআর দায়ের করলেন নওয়াজের মা মেহেরুন্নিসা সিদ্দিকি। ইতিমধ্যেই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নওয়াজ-পত্নী আলিয়াকে সমন পাঠিয়েছে ভারসোভা পুলিশ।

দীর্ঘদিন ধরেই একটি সম্পত্তির অধিকার নিয়ে আইনি বিবাদ চলছিল শাশুড়ি-বউমার, এবার আলিয়ার নামে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৫২ (আঘাত করার উদ্দেশে অন্য়ের সম্পত্তিতে প্রবেশ), ৩২৩ (সামান্য চোটাঘাত দেওয়া), ৫০৪ (গালিগালাজ করা) এবং ৫০৬ (অপরাধমূলক হুমকি) ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে।

আলিয়া ইনস্টাগ্রামে তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের মামলার প্রতিলিপ পোস্ট করে লেখেন, ‘আশ্চর্যজনক ঘটনা…. আমার স্বামীর বিরুদ্ধে আমার দায়ের করা ফৌজদারী মামলা, যেখানে সব অভিযোগ সত্য ছিল তাকে পুলিশ পাত্তা দিল না। কিন্তু আমি নিজের স্বামীর বাড়িতে প্রবেশ করলাম, আর আমার নামে পুলিশে অভিযোগ দায়ের হয়ে গেল কয়েক ঘন্টার মধ্যে, আমি কি কোনওদিন সুবিচার পাব?’

এর আগে ২০২০ সালে নওয়াজের বিরুদ্ধে একাধিক বিস্ফোরক অভিযোগ এনেছিলেন আলিয়া। নওয়াজকে ‘বিশ্বাসঘাতক' তকমা দিয়ে অভিনেতার বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ এনেছিলেন আলিয়া। পিঙ্কভিলাকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে নওয়াজ পত্নী বলেছিলেন, তিনি যখন নওয়াজের প্রথম সন্তানের মা হতে চলেছিলেন তখন অন্য মহিলাদের সঙ্গে ব্যস্ত থাকতেন অভিনেতা। আলিয়া জানিয়েছিলেন, ‘আমার খুব ভালো ভাবে মনে আছে যখন আমাদের যখন প্রেমপর্ব চলছিল তখনও একটা অন্য মেয়ের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছিল ও। বিয়ের পরেও ও বদলায়নি। সেই নিয়ে কম ঝগড়া হত না। এরপর যখন আমি প্রেগন্যান্ট ছিলাম, আমাকে এটা সমস্ত চেক-আপের জন্য যেতে হত। আমাকে চিকিত্সক বলেছিলেন আমি পাগল,কারণ আমি নাকি ওঁনার কেরিয়ারে দেখা প্রথম মহিলা এটা সন্তানের জন্ম দিতে হাসপাতালে এসেছে। যখন আমি প্রসব যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছিলাম ও ফোনে গার্লফ্রেন্ডের সঙ্গে ব্যস্ত ছিল’।

নওয়াজউদ্দিন ও আলিয়ার দাম্পত্যের মেয়াদ ১২ বছর। ২০১০ সালে দ্বিতীয় বিয়ে করেন নওয়াজ, আলিয়া-নওয়াজের দুই সন্তান রয়েছে। ২০১৭ সালে তাঁদের সম্পর্কে চিড় ধরে বলে জানা যায়। তারপর থেকেই আলাদা থাকেন দুজনে। এরপর ২০২০ সালের মে মাসে নওয়াজের নামে ডিভোর্স মামলা ঠুকে দেন আলিয়া। তবে পরের বছরই সুর পালটে সেই মামলা প্রত্যাহার করেন, জানান ফের একবার সংসার করতে আগ্রহী তিনি।

করোনাকালে দুই ছেলেমেয়ের দেখভাল করেছেন নওয়াজ, এমনকী মানসিক চাপে থাকা আলিয়ার পাশেও দাঁড়ান অভিনেতা। সেই কারণেই মত বদল, জানিয়েছিলেন আলিয়া।

Speaking to Times Of India then about her decision she had said, "I was down with COVID, and Nawaz not only took care of the children, but also me. This was despite what I said about him. He kept our differences aside and looked after me. Whenever I have been under stress, he has always helped me. This pandemic was an eye-opener. I realised what matters the most is the well-being of your children and good health. Our children need us, and if their happiness lies in us being together, we can keep our disagreements aside. I have withdrawn the legal notice that I had filed. I don't seek divorce anymore, and I want to give this marriage a chance."

বন্ধ করুন