বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > মাটন গলৌটি কাবাব,বিরিয়ানি,চিকেন চাঁপ- নীল-তৃণার রিসেপশনের মেনুতে মোঘলাই খানা
রিসেপশনে জমজমাট খানাপিনা
রিসেপশনে জমজমাট খানাপিনা

মাটন গলৌটি কাবাব,বিরিয়ানি,চিকেন চাঁপ- নীল-তৃণার রিসেপশনের মেনুতে মোঘলাই খানা

  • অতিথি তালিকায় চাঁদের হাট, খাবারের মেনুও জমজমাট। কী কী খাবার দিয়ে অতিথি আপ্যায়ন করলেন নবদম্পতি? 

বিয়ের দিন পুরোদস্তুর বাঙালি সাজে পাওয়া গিয়েছিল নীল-তৃণাকে, আর সাজের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে পাতেও ছিল বাঙালি খাবার। রিসেপশনে মুঘল স্টাইলে সাজলেন তৃনীল আর সেইমতো এদিন মেনুতে রাখা ছিল নবাবি খানাপিনা। হ্যাঁ, রবিবার পিসি চন্দ্র গার্ডেনে অনুষ্ঠিত নীল-তৃণার রিসেপশের আসরে রাজকীয় মেনুতে মূলত জায়গা করে নিয়েছেন মোঘলাই খানা। 

৪ঠা ফে্ব্রুয়ারি পরিণতি পেয়েছে নীল-তৃণার প্রেম কাহিনি। ওইদিন সাত পাক ঘুরে, সই-সাবুদ করে চার হাত এক হয়েছে। রিসেপশনের জন্য ভালোবাসার দিন বা ১৪ ফেব্রুয়ারিটাকেই বেছে নিয়েছিলেন দুজনে। এদিন ইন্ডাস্ট্রির কাছের বন্ধু ও পরিবারকে নিয়ে বিয়ের সেলিব্রেশনে মেতে উঠলেন নবদম্পতি। বিয়ের অনুষ্ঠানে সংবাদমাধ্যমের ঢালাও এন্ট্রি থাকলেও রিসেপশনে কিন্তু ছিল উলটো ছবি। 

বিয়ের দিন অনুষ্ঠান স্থল সেজে উঠেছিল সাদা ফুল আর আলোর রোশনাইতে। এ দিন একটি বড় মঞ্চ প্রস্তুত করা হয়েছিল নবদম্পতির বসার জায়গা হিসাবে।জায়েন্ট স্ক্রিনে ফুটে উঠছিল নীল-তৃণার ভালোবাসা ও বিয়ের নানান মুহূর্ত, সে এক মায়াবী পরিবেশ। 

রিসেপশনের মেনুতে ঠিক কী কী ছিল?

শুরুতেই হরেক রমক স্টাটারে আপনার পেটপুজোর আয়োজন। ছিল মাটন গলৌটি কাবাব থেকে শুরু করে পনীর টিক্কা কাবাব। চাইলেন বিভিন্ন রকম ফলের রসে আপনি গলা ভিজিয়ে নিতে পারবেন, অবশ্যই ছিল চা-কফির বন্দোবস্ত। মেনুতে মোঘলাই খানার আধিক্য ছিল ঠিকই তবে একটু অন্যরকম খেতে চাইলে পাস্তা বা নুডলসও গরম গরম বানিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা ছিল। নীল-তৃণা ইন্ডাস্ট্রির বন্ধুদের আপ্যায়নে ১১ রকমের সালাডের ব্যবস্থা করেছিলেন। ব্রকোলি সালাড, ফ্রুট সালাড,গ্রিন সালাড- আরও কত্ত কী! ‘মেইন কোর্স’-এ ভেজ আর নন-ভেজ দুরকম ব্যবস্থাই ছিল। বাটার নান, রুমালি রুটি, ডাল মাখানি, ককটেল ফিশ ফ্রাই, মাটন বিরিয়ানি, চিকেন চাঁপ, বাসমতি রাইস, মুর্গির কষা মাংস, চিংড়ি, এমনই ভিজে জল আনা খাবারের লম্বা তালিকা। অন্যদিকে নিরামিশাষীদের জন্য ছিল বাটার নান, রুমালি রুটি, ডাল মাখানি, পনীর পসন্দ, খুশখা পোলাও, বাসমতি রাইস, আলু-গোবি কষার মতো পদ। শেষপাতে মিষ্টি মুখ হল আলু বোখরার চাটনি, ক্ষীর সহযোগে কেসরি জিলিপি, পাঁপড়, গাজরের হালুয়া, সন্দেশ, ভ্যানিলা আইসক্রিম সহযোগে।

কোনটা ছেড়ে অতিথিরা কোনটা খাবেন সেই নিয়েই ধন্দে পড়লেন অনেকে। রিসেপশনের আসরে হাজির ছিলেন অঙ্কুশ-ঐন্দ্রিলা, ইশা সাহা, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, শঙ্কর চক্রবর্তীরা। পৌঁছেছিল কৃষ্ণকলি পরিবারের সদস্যরাও।  

 

বন্ধ করুন