বাড়ি > বায়োস্কোপ > নেই পাখা,বিছানার ব্যবস্থা-বাইকুল্লা জেলের ছোট্ট কুঠুরির চাটাইতে দিন কাটছে রিয়ার
আগামিকাল রিয়ার জামিনের শুনানি  (PTI)
আগামিকাল রিয়ার জামিনের শুনানি  (PTI)

নেই পাখা,বিছানার ব্যবস্থা-বাইকুল্লা জেলের ছোট্ট কুঠুরির চাটাইতে দিন কাটছে রিয়ার

  • রিয়ার পাশের কুঠুরিতেই বন্দি রয়েছেন অপর হাই প্রোফাইল মামলা, শিনা বোরা হত্যাকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত ইন্দ্রানী মুখোপাধ্যায়। 

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর সঙ্গে জড়িত মাদককাণ্ডে এনসিবির হাতে গ্রেফতার হয়েছেন রিয়া চক্রবর্তী ও তার ভাই শৌভিক চক্রবর্তী। ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের পর আজ সেশন কোর্টেও খারিজ হয়ে গেল অভিযুক্ত ভাই-বোনের জামিনের আর্জি। বিচারক সাফ জানিয়ে দেন ‘জামিন মিলছে না’। তাই আপতত রিয়ার ঠিকানা মুম্বইয়ের বাইকুল্লা সংশোধনাগার। রিয়ার সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে তাঁকে সাধারণ ব্যরাকে নয়, রাখা হয়েছে একটি পৃথক সেলে। সেই সিঙ্গল সেলে না আছে সিলিং ফ্যান না রয়েছে বিছানা।

মঙ্গলবার এনসিবির হাতে গ্রেফতার হওয়ার পর বুধবার সকাল সোয়া দশটা নাগাদ রিয়াকে বাইকুল্লা জেলে স্থানান্তিরত করা হয়। এখানে রিয়ার একদম পাশের সেলে ঠাঁই শিনা বোরা হত্যাকাণ্ডের অভিযুক্ত ইন্দ্রানী মুখোপাধ্যায়। 

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর মূল অভিযুক্তর উপর জেলেও হামলা পারে, এই আশঙ্ক্ষা থেকেই একদম আলাদা সেলে রাখা হয়েছে রিয়াকে। সুশান্ত কাণ্ডে জনতার একটা বড় অংশের রোষের মুখে রিয়া। যদিও সম্প্রতি বলিউডের বেশকিছু তারকা সহ বুদ্ধিজীবীরা রিয়ার পাশে দাঁড়িয়ে বলেছেন ‘দোষী প্রমাণ না হওয়া পর্যন্ত নির্দোষ রিয়া’। 

তিনটে শিফটে দুই জন করে কনস্টেবল শুধুমাত্র রিয়াকে গার্ড দেওয়ার জন্য রাখা হয়েছে বাইকুল্লা জেলে। রিয়াকে ঘুমানোর জন্য একটি চাটাই দেওয়া হয়েছে, নেই কোনও বালিশ বা বিছানার বন্দোবস্ত। আদালত অনুমতি দিলে টেবিল ফ্যান দেওয়া হবে বলে জানান জেলের এক আধিকারিক। 

করোনার আবহে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বৃদ্ধি করবার জন্য জেলবন্দিদের হলুদ গোলা দুধ দেওয়া হচ্ছে। মুম্বইয়ের একমাত্র মহিলা সংশোধনাগর বাইকুল্লা জেল।গত কয়েক মাসে এখানে বেশ কয়েকটি কোভিড-১৯ মামলা সামনে এসেছে। 

এনসিবির দাবি মেনে মঙ্গলবার রিয়াকে ১৪ দিনের বিচার বিভাগীয় হেফাজতে পাঠায় ম্যাজিস্ট্রেট কোর্ট। সেই রায় বহাল থাকল সেশন কোর্টেও। সুশান্তের জন্য মাদক দ্রব্য সংগ্রহ করতেন রিয়া, সেই মাদকের আর্থিক লেনদেনও করতে অভিযুক্ত। উল্লেখ্য এনসিবি এনডিপিএস আইনের একাধিক ধারায় রিয়াকে গ্রেফতার করেছে, যেখানে রয়েছে ২৭ (এ) ধারা।  এটি জামিন অযোগ্য ধারা। মূলত এর জেরেই দুই বার খারিজ হল রিয়ার জামিনের আর্জি। আজও অভিনেত্রীর জামিনের তীব্র বিরোধিতা করে এনসিবি। এই ড্রাগ সিন্ডিকেটের উপযুক্ত তদন্তের জন্য রিয়া সহ সকল অভিযুক্তের জেলে থাকাটা প্রয়োজনীয়, জানিয়ে দেয় এনসিবি। 

রিয়ার আইনজীবী সতীশ মানেসিন্ধে জানিয়েছেন আগামী সপ্তাহে বম্বে হাইকোর্টে রিয়া,শৌভিকের জামিনের আর্জি জানানো হবে। তাই সোমবার পর্যন্ত নিশ্চিতভাবেই বাইকুল্লা জেলই ঠিকানা রিয়ার। 

বন্ধ করুন