বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Pallavi Dey Death: ‘খুন করেছেন’ সাগ্নিক ও পল্লবীর বান্ধবী, থানায় অভিযোগ দায়ের অভিনেত্রীর পরিবারের
সাগ্নিকের সঙ্গে পল্লবী দে (বাঁদিকে, সৌজন্যে ইনস্টাগ্রাম), পল্লবীর মৃতদেহ (ডানদিকে)

Pallavi Dey Death: ‘খুন করেছেন’ সাগ্নিক ও পল্লবীর বান্ধবী, থানায় অভিযোগ দায়ের অভিনেত্রীর পরিবারের

  • Pallavi Dey Death: সূত্রের খবর, পল্লবী দে'র বাবা অভিযোগ করেছেন যে নিয়মিত অভিনেত্রীর থেকে টাকা নিতেন সাগ্নিক। পল্লবীর পরিবারের হাতে সেই সংক্রান্ত তথ্যও আছে বলে দাবি করা হয়েছে। সেইসঙ্গে পরিবারের অভিযোগ, পল্লবীর সঙ্গে লিভ-ইন করলেও অপর এক তরুণীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে সাগ্নিকের।  

পল্লবী দে মৃত্যু মামলায় খুনের অভিযোগ দায়ের করল টেলি অভিনেত্রীর পরিবার। পল্লবীর লিভ-ইন সঙ্গী সাগ্নিক চক্রবর্তী এবং পল্লবীর বান্ধবীর বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

সোমবার দুপুরের দিকে গড়ফা থানায় আসেন পল্লবীর বাবা নীলু, মা সংগীতা এবং পরিবারের আইনজীবী। সাগ্নিক এবং পল্লবীর এক বান্ধবীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন তাঁরা। সূত্রের খবর, পল্লবীর বাবা অভিযোগ করেছেন যে নিয়মিত অভিনেত্রীর থেকে টাকা নিতেন সাগ্নিক। পল্লবীর পরিবারের হাতে সেই সংক্রান্ত তথ্যও আছে বলে দাবি করা হয়েছে। সেইসঙ্গে পরিবারের অভিযোগ, পল্লবীর সঙ্গে লিভ-ইন করলেও অপর এক তরুণীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল সাগ্নিকের। সেই বিষয়টি জানতে পেরে গিয়েছিলেন পল্লবী।

খুন নাকি আত্মহত্যা? পল্লবীর পরিবার ও লিভ-ইন সঙ্গীর দাবি

রবিবার পল্লবীর পরিবারের তরফে ইঙ্গিত দেওয়া হয়, ‘হয়তো খুনই করা হয়েছে ওকে।’ আদতে হাওড়ার রামরাজাতলার মেয়ে পল্লবীর বাবার দাবি, শনিবারই নাকি ফোন করে মায়ের কাছে কার ডালনার রেসিপি জানতে চেয়েছিলেন পল্লবী। তারপরই প্রশ্ন ছুড়ে দেন, কেউ যদি আত্মহত্যা করার কথা ভাবেন, তার আগে কি নতুন কোনও রান্না শিখতে চান? সঙ্গে অভিনেত্রীর বাবাব যোগ করেন, পল্লবী খুব বুঝদার মেয়ে ছিলেন। আত্মহত্যা করার মতো মানুষ নন বলেই মনে করেন তাঁর বাবা।

আরও পড়ুন: Pallavi-Sagnik: পল্লবীর মৃত্যুর দিনে পর পর কী কী ঘটেছিল? তদন্তে উঠে আসছে একের পর এক নতুন তথ্য

যদিও পল্লবীর লিভ-ইন সঙ্গী সাগ্নিক নিজের দাবিতে অনড় থেকেছেন। রবিবার তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। পুলিশ সূত্রে খবর, জিজ্ঞাসাবাদে সাগ্নিক দাবি করেছেন যে একটি বেসরকারি সংস্থায় কাজ করেন। শনিবার রাতে (পল্লবীর দেহ উদ্ধারের আগেরদিন রাতে) পল্লবীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়েছিল। রবিরার সকালেও ঝগড়া চলেছিল। সেই পরিস্থিতিতে ধূমপান করতে বাইরে বেরিয়েছিলেন। বাড়ি ফিরে দেখেন যে ভিতর থেকে দরজা বন্ধ করা আছে।

হেল্পলাইন নম্বর: ওয়ালাইফ ফাউন্ডেশন - ৭৮৯৩০৭৮৯৩০

বন্ধ করুন