বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'আসুন, এই জয়ে আমরা সবাই সংযত থাকি' বার্তা 'শুভাকাঙ্খী’ পরমব্রতর
পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।(ছবি সৌজন্যে - হিন্দুস্তান টাইমস)
পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।(ছবি সৌজন্যে - হিন্দুস্তান টাইমস)

'আসুন, এই জয়ে আমরা সবাই সংযত থাকি' বার্তা 'শুভাকাঙ্খী’ পরমব্রতর

  • এবার তৃণমূল সরকারকে সংযত থাকার বার্তা দিলেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।

বিধানসভা নির্বাচনে কলকাতায় যত ভোট পেয়েছিল, তার থেকে এবারের কলকাতা পুরনির্বাচনে তৃণমূলের ভোট বেড়েছে ১১ শতাংশ। এবার ৭২ শতাংশ ভোট পেয়েছে তৃণমূল। জিতেছে ১৩৪ টি ওয়ার্ডে। কলকাতায় আরও মজবুত হল তৃণমূলের অবস্থান।কলকাতা পুরসভা নির্বাচনে ১৪৪টির মধ্যে ১৩৪ টি ওয়ার্ডেই জয়ী তৃণমূল। পুরভোটের এই বিরাট জয়ের পরে শাসক দলকে সংযত থাকার বার্তা দিলেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়।

জনমানসে তাঁর এতদিনের পরিচিতি ছিল একজন 'বামমনস্ক' হিসেবেই। তবে পুরভোটের আগে ঘাসফুল শিবিরের হয়ে প্রচার সারতে দেখা গেছিল পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়কে। নেতাজিনগরে ৯৮ নম্বর ওয়ার্ডে তৃণমূল প্রার্থী অরূপ চক্রবর্তীর সমর্থনে প্রচার করতে দেখা গেল এই জনপ্রিয় তারকাকে। পরমের সঙ্গে ছিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস, তারকা বিধায়ক রাজ চক্রবর্তী, সোহম চক্রবর্তী ও জুন মালিয়া। সেই মুহূর্তের ভিডিয়ো নিজের ফেসবুকে পোস্ট করেছেন অরূপ চক্রবর্তী স্বয়ং। ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস চলন্ত জিপে মাইক হাতে একনাগাড়ে বক্তৃতা দিচ্ছেন, তারই পিছনে দাঁড়িয়ে রয়েছেন টলিপাড়ার এই নায়ক। ফেরা যাক পরমের ওই 'সতর্ক বার্তা'র প্রসঙ্গে। টুইট করে তৃণমূল সরকারের উদ্দেশে যে বার্তা দিয়েছেন এই জনপ্রিয় অভিনেতা-পরিচালক তা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করা হচ্ছে রাজনৈতিক মহলে। সেই টুইট নিজেকে নিজেকে ‘বর্তমানে বাংলার পরিস্থিতির শুভাকাঙ্খী’ হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন তিনি।তবে এ প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখা ভালো ইতিমধ্যেই এই তারকাকে দেউচা পাচামিতে প্রস্তাবিত কয়লা খনি নিয়ে এলাকার মানুষের মতামত জানতে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে 'শুভাকাঙ্খী’ পরমব্রতকে।

ওই টুইট পরম লিখেছেন, 'বিরাট সাফল্যের পর বিরোধীদের পার্টি অফিস ভাঙচুরের ঘটনা এবার অবিলম্বে থামাতে হবে। এমন একটিও ঘটনা যেন আর না শোনা যায়। বর্তমানে বাংলার পরিস্থিতির শুভাকাঙ্খী হিসেবেই এ কথা আমি বলছি। আমি নেতাদের অনুরোধ জানাব যাতে দলের সদস্য সমর্থকরা এমন কোনও ঘটনা না ঘটায়, তা নজর রাখতে'। এখানেই থামেননি তিনি। আরও একটি টুইটে এ প্রসঙ্গে তাঁর সংযোজন, ' এক্ষেত্রে লড়াই করা শুরু করেছে, দোষ কোন পক্ষের এইসব কোনও অজুহাত হতে হতে পারে না। এইসব ঘটনা তখনও নিন্দনীয় ছিল, আজও নিন্দনীয় হিসেবেই তালিকাভুক্ত হবে। আসুন, এই জয়ে আমরা সবাই মিলেই সংযত থাকি'।

বন্ধ করুন