বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > SSC Scam: পার্থ-অর্পিতার কুবের ভাণ্ডার নিয়ে মিম সোশ্যালে, প্রতিবাদে টলি তারকারা
পার্থ-অর্পিতাকে নিয়ে প্রতিবাদে সামিল হলেন তারকারা। 

SSC Scam: পার্থ-অর্পিতার কুবের ভাণ্ডার নিয়ে মিম সোশ্যালে, প্রতিবাদে টলি তারকারা

  • গত সপ্তাহে টালিগঞ্জ থেকে উদ্ধার হয়েছিল ২২ কোটি। আর বুধবার অর্পিতার বেলঘরিয়ার বাড়িতে মিলল ২৭ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা। সঙ্গে ৪ কোটি ৩১ লক্ষের সোনার বার, সোনার গয়না ও একটি সোনার পেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পার্থ চট্টোপাধ্যায় ও অর্পিতা মুখোপাধ্যায়। দুজনেই এখন রয়েছেন ইডি-র হেফাজতে। জিজ্ঞাসাবাদ করা চলছে। ইতিমধ্যেই অর্পিতার টালিগঞ্জ আর বেলঘরিয়ার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে ৫০ কোটির কাছাকাছি ক্যাশ টাকা পেয়েছেন ইডি কর্তারা। সঙ্গে কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথি আর প্রায় ৩ কেজি সোনা।

অনেকটা নাটকীয় ভঙ্গিতে টাকা উদ্ধার হয়েছে অর্পিতার বেলঘরিয়ার ফ্ল্যাট থেকে। বাথরুমের মধ্যে ক্যাবিনেট বানিয়ে লোকানো ছিল টাকা। বীরভূম, কলকাতা মিলিয়ে অন্তত পক্ষে ৩২টি সম্পত্তির হদিশ মিলেছে অর্পিতা ও তার বিভিন্ন সংস্থার নামে।

অর্পিতা ইডিকে জানিয়েছেন, এই টাকা তাঁর নয়। বরং তাঁর ফ্ল্যাটে টাকা রেখেছিলেন পার্থ। বুধবার রাত যত গড়িয়েছে, মানুষের অবাকভাব তত বেড়েছে। যখের ধন দেখে তখন সবার চোখ ছানাবড়া। ফলত সোশ্যাল মিডিয়া এখন মিমে ছয়লাপ। বিরক্তি প্রকাশ করেছেন তারকারাও। সাধারণ মানুষের সঙ্গে তাঁদেরও দাবি, এই দুর্নীতির কাণ্ডকারখানা জলদি বন্ধ হোক।

টলিউডের তরুণ তুর্কি রুদ্ধি সেন লিখেছেন, ‘একদিকে চলতে থাকুক বঙ্গভূষণ, বঙ্গবিভূষণ আর মহানায়ক সম্মান, অন্য দিকে আরও ২০ কোটি উদ্ধার আরেকটা ফ্ল্যাটে, আবিস্কার হবে আরও, বাড়বে আরও কিছু শূন্য l শুধু এর মাঝখানে রাস্তায় দিন রাত এক করে ন্যায্য দাবি নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকার জন্য আরও দুটো শুন্যে যোগ হলো ৫'এর সাথে, তাদের , যারা সৎ ভাবে স্বপ্ন দেখেছিলো। ছিঃ। মিম আর সার্কাস্টিক ইমোজির ভিড়ে আমরা যেন হারিয়ে না যাই, এই ঘটনা কোনো হাসির বিষয় না।’

ঋদ্ধি সেনের সোশ্যাল পোস্ট। 
ঋদ্ধি সেনের সোশ্যাল পোস্ট। 

অভিনেত্রী সুদীপ্তা চক্রবর্তী লিখলেন, ‘চ্যানেলে চ্যানেলে শুধু টাকার পাহাড়ের ছবি। সোশ্যাল মিডিয়ায় শুধু টাকার অঙ্কের আপডেট। সবাই হাসছে, এখনও! কি অশ্লীল দৃশ্য! কি জঘন্য দৃশ্য! একটুও হাসি পাচ্ছে না আমার...এখনও!’

বাম-ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত শ্রীলেখা লিখলেন, ‘বন্ধুরা এসব দেখে হেসে, মজা করে ওই মেয়েটা কতটা খারাপ বলে দায়িত্ব এড়াবেন না। মিনিস্টারবাবু তো ছাড়া পেয়ে যাবেন দিদি আর মোদির সেটিংসে। ভুগবে চাকরির জন্য হাহাকার করা ছেলেমেয়েগুলো। হ্যাঁ বামফ্রন্ট জিরো ঠিকই তবে জোচ্চুরিতে। পরেরবার মনে রাখবেন।’

ঋত্বিকের সোশ্যাল পোস্ট।
ঋত্বিকের সোশ্যাল পোস্ট।

অভিনেতা ঋত্বিকও সেই ধর্নায় থাকা মানুষগুলোর কথাই মনে করিয়ে দিলেন। লিখলেন, ‘এত আমোদের মাঝে যেন ভুলে না যাই যোগ্যতায় যাদের শিক্ষক হওয়ার কথাছিল তারা ধর্না মঞ্চে অবস্থানকরী পরিচয়ে ৫০০ দিন কাটিয়ে দিলেন।’

পরিচালক অনীক দত্ত লিখলেন, ‘এই পরিস্থিতিতে কি দুর্নীতির তলে পৌঁছতে থার্ড ডিগ্রি দেওয়া সম্ভব?’

 

বন্ধ করুন