বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘একটু দেখেন না আমার দিকে, কী করে বেঁচে আছি’, শেখ হাসিনার কাছে আবেদন পরীমনির
পরীমনি
পরীমনি

‘একটু দেখেন না আমার দিকে, কী করে বেঁচে আছি’, শেখ হাসিনার কাছে আবেদন পরীমনির

  • বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কাছে নিরাপত্তার আবেদন পরীমনির।

বাংলাদেশে চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে অভিনেত্রী পরীমনি। ২৬ দিন পর জামিনে বেরিয়ে এসেও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন তিনি। চর্চিত এই অভিনেত্রীর ফেসবুক পোস্ট এখন তেমনই ইঙ্গিত দিচ্ছে। জেলখানার ২৬ দিন তাঁর জীবন থেকে যেন নতুন উপলব্ধি। 

সোমবার সামাজিক মাধ্যমে একটি নতুন পোস্ট করেন পরীমনি। লিখেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু কন্যা, আমাকে কি একটু নিরাপত্তা দিতে পারেন! রাস্তার মানুষগুলোও এত অনিরাপদ না। একবার একটু দেখেন না আমার দিকে, কী করে বেঁচে আছি।’

পরীমনির এই পোস্টে যেন লুকিয়ে রয়েছে নিরাপত্তাহীনতার স্বর। রবিবার পরীমনি হাতে লেখা একটি চিঠির ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে ভক্তদের জানিয়েছিলেন নিজের লড়াই করে বেঁচে থাকার নেপথ্যের গল্প। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, ‘একটা চিঠি। আমার সব শক্তির গল্প এখানেই।’ চিঠিতে লেখা ছিল, ‘নানু, আমি ভালো আছি। কোনো চিন্তা করবা না। তোমার সাথে শীঘ্রই দেখা দিব।’

পরীমনি গ্রেফতার হওয়ার পর তাঁর একমাত্র অভিভাবক, তাঁর নানু তাঁকে চিঠি লিখেছিলেন। এবিষয় বাংলাদেশের এক সংবাদমাধ্যমকে পরীমনি জানিয়েছেন, 'আমি গ্রেফতার হওয়ার পর নানু ভাই আমাকে চিঠিটি দিয়েছিলেন। এরপর থেকেই আমি এটি অক্ষত রাখার চেষ্টা করেছি। আটক, রিমান্ড, জেলসহ নানান প্রতিকূলতার মধ্যেও শেষ পর্যন্ত আমি এটি অক্ষত রাখতে পেরেছি। এই চিঠিটি আমার জীবনের একটি শক্তি।'

গত ৪ অগস্ট রাতে প্রায় চার ঘণ্টার অভিযান শেষে বনানীর বাড়ি থেকে মাদকসহ পরীমনি ও তাঁর সহযোগী দীপুকে আটক করে র‌্যাব। এরপর ৫ অগস্ট র‌্যাব মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পরীমনি ও তাঁর সহযোগীর বিরুদ্ধে বনানী থানায় মামলা করে। এরপর রিমান্ড, জেল শেষে গত ৩১ অগস্ট ৫০ হাজার টাকা মুচলেকা ও তিন দফা রিমান্ডের পর পরীমনির জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ।

 

 

বন্ধ করুন