বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > স্বপ্ন দেখার স্পর্ধা পান শাহরুখের থেকে! জন্মদিনে প্রিয় নায়ককে খোলা চিঠি রাহুলের
শাহরুখ খান-রাহুল অরুণোদয় বন্দ্যোপাধ্যায়
শাহরুখ খান-রাহুল অরুণোদয় বন্দ্যোপাধ্যায়

স্বপ্ন দেখার স্পর্ধা পান শাহরুখের থেকে! জন্মদিনে প্রিয় নায়ককে খোলা চিঠি রাহুলের

  • রাহুলের কথায়, 'আজ একটা বিজয়গড়-এর ছেলে শুধু নিজের মেধা দিয়ে একটা জায়গা করে নিয়েছে, পরিশ্রমকে নিজের পাথেয় করেছে কাকে দেখে? এতো স্পর্ধা সাধারণ মানুষকে দেওয়ার কোনও মানে হয়?’

৫৬-তে পা দিল বলিউদের বাদশা শাহরুখ খান। এই দিনটা শাহরুখ অনুরাগীদের কাছে নিতান্তই স্পেশ্যাল। এদিন রাত ১২টা থেকেই আরব সাগর ঘেঁষা মন্নতের বাইরে ভিড় জমায় অভিনেতার অগণিত ভক্তরা। ইন্ডাস্ট্রিতে তিন দশের বেশি কেরিয়ার। দিল্লির গৌতম নগরের সাধারণ ঘরের ছেলেটা একসময় মুম্বই পাড়ি দেয়। শত পরিশ্রমের ফল, আজ সে বলিউডে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। 

বলিউডের বাদশার বিশেষ দিনে শুভেচ্ছা বার্তা আসছে বিভিন্ন মহল থেকে। তেমনি ‘মন্নত’ থেকে কয়েকশো মাইল দূরে কলকাতায় বুকে বসে নিজের আইডলের জন্য কলম ধরলেন অভিনেতা রাহুল অরুণোদয় বন্দ্যোপাধ্যায়। ফেসবুকে খোলা চিঠিতে প্রিয় অভিনেতাকে জানালেন নিজের মনের কথা। রাহুলের কথায়, শাহরুখই বার বার স্বপ্ন দেখতে শেখায় তাঁকে। সাধারণ থেকে অসাধারণ হয়ে ওঠার স্বপ্নের জাল বুনতে শিখিয়েছেন তাঁকে। 

ফেসবুকে খোলা চিঠিতে রাহুল লেখেন, ‘শ্রদ্ধেয় স্যার, না আমি এমন কিছু বলবো না যাতে মনে হবে আরিয়ান একজন নায়ক। বরং উলটোটাই, ওর উচিৎ ছিল আপনার লড়াইকে মর্যাদা দেওয়ার। ওর উচিৎ ছিল মনে রাখার ও কার ছেলে। কিন্তু খুব যে ঘৃণা করব তারই বা উপায় কোথায়? নিজেও তো নেশা কম করিনি এবং নেশা করেছি বলেই জানি যা রিক্রিয়েশন হিসেবে শুরু হয় তা ক্রমশ রোগ হয়ে ওঠে অজান্তে’।

এখানেই শেষ করেননি অভিনেতা। তিনি আরও লেখেন, ‘কিন্তু স্যার দোষ আপনার, আপনি দিল্লি থেকে এসে এতকিছু কেন করলেন? আমার মতো সাধারণ দেখতে মানুষদের মাথায় কেন ঢোকালেন "তোমরাও পারো".... কেন নিজের প্রত্যেকটা সাক্ষাৎকার এর মধ্যে দিয়ে আমার মধ্যে ঢোকালেন "knowledge is power"... আজ একটা বিজয়গড়-এর ছেলে শুধু নিজের মেধা দিয়ে একটা জায়গা করে নিয়েছে, পরিশ্রমকে নিজের পাথেয় করেছে কাকে দেখে? এতো স্পর্ধা সাধারণ মানুষকে দেওয়ার কোনও মানে হয়?’

মনের কথা উজাড় করে রাহুল লেখেন, ‘আমরা থাকতাম নিচে, ফ্রন্ট রো তে, পোস্টার এর যোগ্য করে তুলেছেন শুধু আপনি। আপনি তো শালা উলটো-পালটা ছবি করেন আজকাল,বন্ধুরা আমাকে আওয়াজ দেয়। প্রত্যেকবার প্রতিজ্ঞা করি আর দেখবো না, প্রত্যেকবার শ্যুটিং কামাই করে 1st day 1st show যেতেই হয়... কি করব? প্রত্যেকবার একঘেয়ে গালের টোল দেখে মনে হয় এবার নতুন কিছু হবে। আসলে একটা সময় আমরা ভারতবর্ষ বলতে আপনি বুঝতাম, তারপর ভারতবর্ষ বদলে গেল। সেই বদলে যাওয়া ভারতবর্ষ যেখানে কলকাতায় প্রবলভাবে গনেশ পুজো হয় তার সাথে আপনি তাল মেলাতে পারলেন না। আপনি পিছিয়ে গেলেন’।

শেষে অভিনেতা লেখেন, 'আপনার সাথে সাথে আমরাও... তবু বলবো যা দিয়েছেন অনেক... আপনি একটা বেঁটেখাটো বিজয়গড় কলোনির ছেলের স্বপ্নে এসে বলেছেন "yes you are best "... এই যাবতীয় স্বপ্ন অস্বীকার করি কি করে বলুন? আপনি এখনও কাভি হা কাভি না-এর সুনীল, হাজার স্বপ্নভঙ্গের পর যে অন্যের লাগেজ বয়ে নিয়ে যায়, আমার মতো সাধারণ ছেলেদের স্বপ্নের লাগেজ ... শুভ জন্মদিন স্যার’।

 

 

বন্ধ করুন