থাপ্পড় নিয়ে টুইট করতে গিয়ে নতুন বিতর্কে রঙ্গোলি চান্দেল
থাপ্পড় নিয়ে টুইট করতে গিয়ে নতুন বিতর্কে রঙ্গোলি চান্দেল

গালে চড় আর নিতম্বে চড়ের পার্থক্য জানতে চেয়ে নতুন বিতর্কে কঙ্গনার দিদি রঙ্গোলি

  • 'গালে চড় মারা বেঠিক আর নিতম্বে চড় মারা ঠিক? এটা কেমন। গালে চড় বেশি গুরুত্ব কেন পাবে'? টুইটারে এই প্রশ্নের জেরে নতুন বিতর্কে রঙ্গোলি চান্দেল। কঙ্গনার ব্যক্তিগত জীবনের কথা ফাঁস করে অভিনেত্রীর রোষের মুখে দিদি।

টুইটারে বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য সবসময়ই চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে থাকেন কঙ্গনা রানাওয়াতের দিদি তথা ম্যানেজার রঙ্গোলি চান্দেল। বি-টাউনের ঠোঁটকাটা ব্যক্তিত্বদের মধ্যে একদম উপরের সারিতেই রয়েছে রঙ্গোলির নাম। তবে এবার টুইটারে যৌন নির্যাতন এবং BDSM-নিয়ে নতুন বিতর্ক তৈরি করল রঙ্গোলির টুইট। ঘটনার সূত্রপাত আন্তর্জাতিক নারী দিবসের দিন রঙ্গোলির 'থাপ্পড়' কেন্দ্রীক এক টুইটকে ঘিরে। তাপসী পান্নুর এই ছবি সম্পর্কে নিজের মত জানাতে গিয়ে রঙ্গোলি বলেন, 'আমার পার্টনার আমাকে চড় মারলে আমি সাময়িকভাবে তার থেকে দূরে চলে যাব, তাকে হয়ত বাড়ির বাইরে বার করে দেব কিছু মাস বা বছরের জন্য। কিন্তু সারাজীবনের জন্য তাঁকে আমি ছেড়ে দেবো না যদি সে নিজের ভুল বুঝে ক্ষমা চেয়ে নেয়'। এরপর তিনি লেখেন, এই নিয়ে নাকি বোন কঙ্গনার সঙ্গেও তিনি আলোচনা করেছেন। তাতে কঙ্গনা জানিয়েছেন, 'কেউ আমাকে চড় মারলে আমি তাকে ধ্বংস করে দেবো। কিন্তু যদি কেউ তাকে নিতম্বে চড় মারে তাহলে সেটা ওর ভালো লাগে!'



এরপর থেমে থাকেননি রঙ্গোলি। তিনি লেখেন, 'বন্ধুরা আমি তোমাদের কাছে জানতে চাই গালে চড় মারা বেঠিক আর নিতম্বে চড় মারা ঠিক? এটা কেমন। গালে চড় বেশি গুরুত্ব কেন পাবে'?


রঙ্গোলির এই নিতম্বে চড় মারা( spanks) শব্দটাই ভালোভাবে নেননি নেটজেনরা। পাশাপাশি এক সংবাদমাধ্যম এই বিষয় নিয়ে রঙ্গোলির উদ্দেশে এক খোলা চিঠি লিখে বসে। তাঁরা জানায়, অনুমতিটাই হল শেষ কথা। মেয়েটি কোন বিষয়ে সহমত পোষণ করছে তার উপরই নির্ভর করে কোনটা সঠিক আর কোনটা বেঠিক।

গোটা ঘটনাক্রম দেখে অবশেষে সোমবার ফের একাধিক টুইট করেন রঙ্গোলি। সেখানে তিনি জানান, বোনের সঙ্গে নিজের ব্যক্তিগত কথোপথন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ফাঁস করায় কঙ্গনার রোষের মুখে পড়তে হয়েছে তাঁকে। কঙ্গনা তাঁকে জানিয়েছে সে বোঝাতে চাইছিল পুরোটাই নির্ভর করে কোনও পুরুষের মনোভাবের উপর, কোনটা সে জেনেবুঝে করেছে এবং কোনটা অজান্তে। কখনও কখনও একটা খারাপ দৃষ্টিও একটা সম্পর্ক ভেঙে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট।


যদিও বিতর্কিত টুইটের সাফাই দিতে গিয়েও একাধিক বিতর্কিত কথা বলে বসলেন রঙ্গোলি। তিনি লেখেন, স্বরার(ভাস্কর)হস্তমৈথুন এদের নারীর ক্ষমতায়ন বলে মনে হয় আর কঙ্গনা নিজের পার্টনারের সঙ্গে স্পাংকিং(নিতম্বে চড় খাওয়া) করছে না BDSM তাতে তোমাদের কী আসে যায়? তোমরা বলে দেবে নারীর অধিকারের আসল অর্থ? দু-পয়সায় বিক্রি হয়ে যাওয়া সাংবাদিকরা নিজেদের অবস্থা দেখো.. মা-বাবা পকেটমানি না দিলে নর্দমায় পড়ে থাকবে।

বন্ধ করুন