বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Sudipa Chatterjee: ‘খেয়েদেয়ে’ সন্তোষী মা-র পাঁচালী পড়লেন সুদীপা রান্নাঘরে, ট্রোলিং ফেসবুকে
রান্নাঘরের অনুষ্ঠানে সন্তোষী মা-র পাঁচালী পড়ে ট্রোলড সুদীপা। 

Sudipa Chatterjee: ‘খেয়েদেয়ে’ সন্তোষী মা-র পাঁচালী পড়লেন সুদীপা রান্নাঘরে, ট্রোলিং ফেসবুকে

  • দিনকয়েক আগেই সুইগি নিয়ে সুদীপা সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা পোস্ট করেছিলেন। যা নিয়ে বিতর্কের মেঘ এখনও কাটেনি। নেট-নাগরিকদের নিশানায় এখনও রয়েছেন রান্নাঘরের সঞ্চালিকা। 

জি বাংলার রান্নাঘরের সঞ্চালিকা সুদীপা চট্টোপাধ্যায় এখন নেটিজেনদের নিশানায় রয়েছে। সরাসরি তাঁকে আক্রমণ শানানো হচ্ছে। এমনকী, তাঁর শো বয়কট করার ডাকও উঠেছে। সুইগি বিতর্কে সুদীপার উপরে সবার রাগ যেন আর কমারই নাম নিচ্ছে না। আর এবার তিনি ট্রোল হলেন জি বাংলার শেয়ার করা একটা ভিডিয়ো নিয়ে। যেখানে দেখা গিয়েছিল রান্নাঘর-এ বসে তিনি সন্তোষী মা-র পাঁচালী পড়ছেন।

দিনকয়েক আগেই সুইগি নিয়ে সুদীপা সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন, ‘আমি শুধু জানতে চাই সুইগির একজন ডেলিভারি বয়-ও কেন ফোন না করে গন্তব্যে পৌঁছতে পারে না। আর ফোন করে কেন বলে, আমি আসছি, আপনি গেটটা খুলুন। আমি কি দারোয়ান নাকি যে গেট খুলব।’ এরপর তিনি তর্কে জড়ান শিশু অভিনেতা হিসেবে পরিচিতি পাওয়া অরিত্র দত্ত বণিকের সঙ্গে। কথাপ্রসঙ্গে অরিত্রর বাড়ির লোককেও টেনে আনেন সুদীপা।

জি বাংলার তরফে সম্প্রতি একটি ভিডিয়ো পোস্ট করা হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে দেখা যাচ্ছে শুক্রবার রান্নাঘরের অনুষ্ঠানেই সন্তোষী মার পুজোর পাঁচালী পড়ছেন সুদীপা। আর সেটাই হয়ে ওঠে ট্রোলিংয়ের অন্যতম কারণ। আর তা দেখে নেট-নাগরিকরা লেখেন, ‘কয় বার খেয়ে দেয়ে যে পাঁচালী পড়ছে নিজেই জানে না! আগে খেটে খাওয়া মানুষকে রেস্পেক্ট দিন! তারপর পুজো করবেন। পাঁচালী পড়ে নাটক করছে আবার।’ অপরজন লিখলেন, ‘লোক দেখিয়ে কত নাটক যে এরা করবে। এত ফুটেজ খেতে পারে মহিলা। সারাক্ষণ শো অফ করছে।’ কেউ কেউ তো সুদীপাকে আবার রূপঙ্কর বাগচির সঙ্গে তুলনা টানাও শুরু করেছেন, বলছেন ‘রূপঙ্কর বাগচী লাইট’!

রবিবার রাতে সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট শেয়ার করেন সুদীপা। যেখানে লেখেন, ‘আপনাদের সকলকে বলতে চাই যে সুইগি নিয়ে বলা কথাগুলো খুব সাধারণ কথা ছিল কোম্পানির পলিসি নিয়ে। কোনওভাবেই কোনও ডেলিভারি এক্সিকিউটিভকে অসম্মান করার জন্য নয়। ওদের অ্যাপেও তো কোথাও লেখা নেই তোমাকে দরজা খুলে অর্ডার হাতে পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। আমি যা লিখছি তার মধ্যে কোথাও তো ডেলিভারি বয়ের কথা বলা হয়নি, প্রতিষ্ঠানের সমালোচনা করা হয়েছে। আমি আপনাদের বলছি কেন এসব কথা হচ্ছে। নিজেদের জীবনের হতাশা নিয়ে যে ক্ষোভ আপনাদের মনে রয়েছে সেগুলো ফ্রাস্ট্রেশন হয়ে বেরোচ্ছে।’

 

বন্ধ করুন