বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Rupankar Bagchi: ‘তোমার ছেলের নাম রূপঙ্কর, বেঁচে থাকলে ৭৩-এ ধর্ষণের হুমকি পেতে মা’, আক্ষেপ গায়কের
মায়ের জন্মবার্ষিকীতে আফসোস রূপঙ্করের

Rupankar Bagchi: ‘তোমার ছেলের নাম রূপঙ্কর, বেঁচে থাকলে ৭৩-এ ধর্ষণের হুমকি পেতে মা’, আক্ষেপ গায়কের

  • মায়ের জন্মবার্ষিকীতে আবেগঘন রূপঙ্কর। গানে গানে শ্রদ্ধার্ঘ্য জানালেন মা'কে, সঙ্গে আশঙ্কা প্রকাশ করলেন রূপঙ্করের মা হওয়ায় বেঁচে থাকলে ধর্ষণের হুমকি পেতে হত তাঁকে। 

কেকে-বিতর্কের পর দীর্ঘ আড়াই-মাস কেটে গেলেও এখনও কোণঠাসা হয়ে রয়েছেন রূপঙ্কর বাগচি। আসলে কেকে মারা যাওয়ার ঠিক আগে তাঁকে নিয়ে যে বিতর্কিত কথা বলেছিলেন এই বাঙালি গায়ক, সেই স্মৃতি আজও টাটকা মানুষের মনে। ‘হু ইজ কেকে ম্যান?’ রূপঙ্করের এই ‘ঔদ্ধত্য’-এর কড়া জবাব দিয়েছিল বাঙালি। ৩১শে মে থেকে নেটপাড়ার রোষের মুখে রূপঙ্কর। ট্রোলের হাত থেকে কোনওভাবেই রক্ষা পাচ্ছেন না গায়ক এবং তাঁর পরিবার। এমনকী রূপঙ্করের প্রয়াত মা-কেও ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হয়েছিল। 

সেই যন্ত্রণার ক্ষত দগদগে রূপঙ্করের মনে। বুধবার ছিল সঙ্গীতশিল্পীর মায়ের জন্মবার্ষিকী। এইদিনে মা-কে নিয়ে আবেগী পোস্ট রূপঙ্করের। মায়ের উদ্দেশে একটি গান গেয়ে ভিডিয়ো পোস্ট করেছেন তিনি, সঙ্গে লেখেন- ‘মা, তোমার আজ জন্মদিন। তুমি যদি বেঁচে থাকতে তাহলে তোমার বয়স হতো ৭৩।ভালোই হয়েছে তুমি আর নেই মা।নাহলে এই বয়সে ধর্ষণের হুমকি পেতে হয়তো! কারণ তোমার ছেলের নাম রূপঙ্কর। এই গানটি তোমার প্রিয়। তাই তোমার জন্য।’

মা'কে উৎসর্গ করে তাঁকে গাইতে শোনা গেল, ‘সকাতরে ওই কাঁদিছে সকলে, শোনো শোনো পিতা।’ কেকে বিতর্ক কিছুটা হলেও থিতু হয়েছে। রূপঙ্করের প্রতি কিছু মানুষের রাগের পারদ যেমন কমেনি, তেমন তাঁর ভক্তরাও রূপঙ্করের পাশে দাঁড়িয়েছে। একজন শুভাকাঙ্খী লেখেন,'তুমি সব সময় আমার প্রিয়। আর প্রিয় থাকবেও। মাসিমার আত্মার চির শান্তি কামনা করি। যা ঘটে গেছে সেটা ভেবে নিজেকে আর গুটিয়ে রেখনা আমার প্রিয় দাদা। তোমার নতুন অ্যালবাম চাই। অনেক ভালবাসা নিও'। 

ভিডিয়োর কমেন্ট বক্সে মন্তব্য করেছেন গায়িকা লোপামুদ্রা মিত্র, জোজোরা। লোপামুদ্রা লেখেন, ‘মাকে আমার ভালোবাসা। এমন একজন গায়ক আমরা তাঁর জন্যই পেয়েছি।’ 

কেকে-র মৃত্যুর পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে রূপঙ্করকে। যদিও শিল্পী আগেই ক্ষমা চেয়ে আগেই জানিয়েছেন, ‘নিজেই নিজের বক্তব্যের মধ্যে নিজেকে খুঁজে পাইনি, পেয়েছিলাম ঔদ্ধত্যকে।' রূপঙ্কর তো নিজের ভুল মেনে নিয়েছেন, এখন দেখবার জনতার রাগ কবে কমে!

বন্ধ করুন