বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > কেকে-বিতর্কে এবার রূপঙ্করের মা-কে ধর্ষণের হুমকি, হাতের বাইরে যাচ্ছে পরিস্থিতি!
রূপঙ্কর বাগচির মাকে ধর্ষণের হুমকি। 

কেকে-বিতর্কে এবার রূপঙ্করের মা-কে ধর্ষণের হুমকি, হাতের বাইরে যাচ্ছে পরিস্থিতি!

  • রূপঙ্কর বাগচি-র উপর যেন হাত ধুয়ে লেগেছে সোশ্যাল মিডিয়ার বড় একটা অংশ। তবে এভাবে যে তাঁর বয়স্কা মা-কে ধর্ষণ করার কথা বলতে পারে কেউ, এটা স্বপ্নেও ভাবা যায় না! 

কেকে মারা যাওয়ার পর রূপঙ্কর বাগচির উপর রাগ যেন কমছেই না জনতার। ৩১ মে থেকেই নেটপাড়ার রোষের মুখে পড়েছেন তিনি। এমনকী, ট্রোল আর আক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে পারছে না গায়কের পরিবারও। তবে রূপঙ্করের বয়স্ক মা-কে ধর্ষণের হুমকি দেওয়া যেন সব কিছুর সীমা লঙ্ঘন করে গেল।

প্রসঙ্গত, কলকাতায় ৩০ আর ৩১ মে কেকে-র শো নিয়ে যে উন্মাদনা তৈরি হয়েছিল তা নিয়ে একটা ভিডিয়ো আপলোড করেছিলেন রূপঙ্কর। যাতে তিনি প্রশেন তুলেছিলেন কেন বাঙালিরা বাংলা গান নিয়ে এমন উন্মাদনা দেখায় না? সঙ্গে বলেছিলেন, ‘কেকে কেকে কেকে, কে কেকে?’ এমনকী তিনি ইমন, রাঘব, সিধুদের নাম নিয়ে বলেছিলেন এরা সবাই কেকে-র থেকে ভালো গান গায়। এমনকী, তিনি নিজেও।

প্রসঙ্গত, সোশ্যাল মিডিয়ায় একটা ফোটো ভাইরাল হয়েছে। যেখানে নাম রয়েছে পলাশ মাইতি নামে এক ব্যক্তির। আর তাতে লেখা হয়েছে, ‘আমার ভগবানের কাছে একটাই প্রার্থনা, একদিন রূপঙ্কর বাগচির মাকে যেন ধর্ষণ করা হয়।’ সঙ্গে নিজের পোস্টে একটি লাভ সাইনও ব্যবহার করেছেন ওই ব্যক্তি।

এই সেই বিতর্কিত পোস্ট। 
এই সেই বিতর্কিত পোস্ট। 

সোশ্যাল মিডিয়া ধিক্কার জানিয়েছে এই ব্যাপারে। তাঁদের মত, এবার পরিস্থিতি হাতের বাইরে যাচ্ছে। একটা গোটা পরিবারকে নিয়ে যা হচ্ছে, তা কখনোই কাম্য নয়। এমনকী, রূপঙ্কর আর তাঁর স্ত্রী চৈতালী কেকে মারা যাওয়ার পরেরদিন থানাতেও গিয়েছিলেন ক্রমাগত আসা হুমকি নিয়ে অভিযোগ জানাতে।

প্রসঙ্গত, কেকে-বিতর্ক নিয়ে একটি সাংবাদিক সম্মেলনও করেছেন রূপঙ্কর প্রেস ক্লাবে। সেখানে রূপঙ্কর বলেছিলেন, ‘প্রয়াত কেকে সম্পর্কে আমার ব্যক্তিগত কোনও বিদ্বেষ নেই। থাকার প্রশ্নও ওঠে না। আমি শুধু ওর কনসার্ট নিয়ে তৈরি হওয়া উন্মাদনা লক্ষ্য করে বলতে চেয়েছিলাম বাঙালি গায়কদের জন্যও আপনারা একইরকম দরদ দেখান।’ তবে বলেছিলেন বললে ভুল হবে, বরং পড়ে শুনিয়েছিলেন বাড়ি থেকে লিখে আনা বিবৃতি। যা আরও রাগিয়ে তুলেছিল সকলকে।

 

বন্ধ করুন