বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > পাপারাৎজিকে দেখে এ কী করল ছোট্ট জেহ! সইফ-তনয়ের কাণ্ড দেখে অবাক হবেন আপনিও
পাপারাৎজিকে দেখে কী করল তৈমুর?

পাপারাৎজিকে দেখে এ কী করল ছোট্ট জেহ! সইফ-তনয়ের কাণ্ড দেখে অবাক হবেন আপনিও

দাদা তৈমুরের সঙ্গে আলাপ সেই কবেই সারা। এ বার জেহর সঙ্গেও প্যাপারাৎজির সাক্ষাৎ!

উপচে পড়া ভিড় আর অবিরাম হাঁকডাক। সবার হাতেই বাহারি সব ক্যামেরা। তারই সঙ্গে হাজার আলোর ঝলকানি। এ সব হচ্ছেটা কী? বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে থাকা প্যাপারাৎজির দেখে বোধ হয় এই প্রশ্নই জেগেছে ছোট্ট জেহ অর্থাৎ জাহাঙ্গীর আলি খানের মনে।

দাদা তৈমুরের সঙ্গে আলাপ সেই কবেই সারা। এ বার জেহর সঙ্গেও প্যাপারাৎজির সাক্ষাৎ! বাড়ির সামনে আলোকচিত্রিদের ভিড় অবাক করেছে একরত্তিকে। গেটের সামনে দাঁড়িয়ে তাঁদের দিকে চেয়ে রইল সে। জেহর ন্যানি তাকে হাত ধরে ভিতরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন ঠিকই। কিন্তু কে শোনে কার কথা! ন্যানির হাত ছাড়িয়ে সেই অবাক করা দৃশ্য দেখতে ফের ছুটে যায় সইফ-করিনার আদরের পুত্র! সবটা ভালো করে বুঝে নিতে প্রায় মাটিতেই বসে পড়ে নবাব পরিবারের সদস্য! অবশেষে কোলে করে বাড়ির ভিতরে নিয়ে যেতে হয় তাকে।

এই দৃশ্য ভিডিয়োর আকারে নেটমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়তেই আপ্লুত অনুরাগীরা। একজন রসিকতা করে লিখেছেন, 'ও বোধ হয় সংবাদমাধ্যমের সামনে এসে সাক্ষাৎকার দিতে চায়।' তৈমুরের সঙ্গে তার তুলনা করে অন্য জনের টিপ্পনি, 'জেহ খুব মিষ্টি। তৈমুর ক্যামেরা দেখলে পালায়, আর ও ক্যামেরার কাছে যেতে চায়।' আবার প্যাপারাৎজিদের উদ্দেশে জনৈকের অনুরোধ, 'জেহ বাবাকে আপনারা বিব্রত করবেন না। ওকে ওর মতো থাকতে দিন।'

গত বছর ২১ ফেব্রুয়ারি নতুন সদস্যের আগমন হয় পটৌডি পরিবারে। জন্মের পর থেকে খুব সন্তর্পনেই সন্তানকে পাপারাৎজির ক্যামেরার ঝলকানি থেকে দূরে রেখেছিলেন সইফ আলি খান এবং করিনা কাপুর খান। তবে এখন আর সেই বিধিনিষেধ নেই। মাঝেমধ্যেই মা, বাবা এবং দাদার সঙ্গে লেন্সবন্দি হয় ছোট্ট জেহ।

(আরও পড়ুন: সব সময়ে মুখ গোমড়া কেন জাহাঙ্গিরের? ছোট ছেলেকে নিয়ে কী বলছেন মা করিনা কাপুর খান)

বন্ধ করুন