সেক্রেড গেমসের একটি দৃশ্যে অভিনেতা আমির বশির এবং সইফ আলি খান
সেক্রেড গেমসের একটি দৃশ্যে অভিনেতা আমির বশির এবং সইফ আলি খান

'সিএএ নিয়ে মন্তব্য করার আগে চিন্তার প্রয়োজন', সইফের মন্তব্যে চটলেন আমির

  • সিএএর প্রভাব সতরাজ এবং মাজিদের বন্ধুত্বে! সইফ আলি খানের সিএএ বিষয়ক মন্তব্য মেনে নিতে পারলেন না অভিনেতা আমির বশির।
  • সইফের মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করে টুইট করলেন তাঁর সেক্রেড গেম কো-স্টার।

নেটফিক্সের জনপ্রিয় সিরিজ সেক্রেড গেমসে পুলিশ অফিসার সতরাজ সিংয়ের সবসময়ের সঙ্গী ছিলেন ইন্সপেক্টর মাজিদ আলি খান। তবে সংশোধিক নাগরিকত্ব আইন চিড় ধরাল এই গভীর বন্ধুত্বে! হ্যাঁ সিএএ নিয়ে যখন গোটা দেশ উত্তাল, তখন সেই ইস্যু নিয়ে মন্তব্য করা থেকে বিরত থেকেছেন সইফ আলি খান। সইফ জানিয়েছেন সংশোধিক নাগরিকত্ব আইন নিয়ে মন্তব্য করার আগে তাঁকে আরও ভাবনাচিন্তা করতে হবে। এতেই চটেছেন অভিনেতা আমির বশির। সেক্রেড গেমসে পুলিশ ইন্সপেক্টর মাজিদ আলি খানের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন আমির।

টুইটারে সইফের এই মন্তব্য সংক্রান্ত একটি খবরের লিঙ্ক রি-টুইট করে অভিনেতা লেখেন, সতরাজ তুমি মাজিদের সঙ্গে কথা বলো! গাইতোন্ডেও জানত ওর নিজের নোংরামি গুলো। #NotSacredGames #AntiCAAProtests #NRC_CAA_Protests."


সেক্রেড গেমসে নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির দেখা মিলেছে গাইতোন্ডের ভূমিকায়। সিএএ ইস্যুতে এখনও মুখ খোলেন নি নওয়াজও।

সইফ জানিয়েছেন তিনি গোটা বিষয়টি বোঝার চেষ্টা করেছেন এবং পুরো ব্যাপারটি না জেনে কোনও আলটপকা মন্তব্য তিনি করতে চান না। অভিনেতার কথায়, ‘আমি চাই যে বিষয়ে প্রতিবাদ করছি ঠিক তার সঙ্গেই জড়িত থাকতে। এমনও তো একটি সম্ভাবনা থাকতে পারে যে আমি অন্য ধরণের প্রতিবাদের প্রতিনিধিত্ব করে ফেলবো। সুতরাং আমি এখনও বিষয়ি নিয়ে পুরোপুরি নিশ্চিত নই। যতক্ষণ না আমি নিশ্চিত হচ্ছি যে কিসের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছি এবং এই প্রতিবাদ যথাযথভাবেই বিবেচিত হবে কিনা, ততক্ষণ পর্যন্ত আমাকে আরও ভাবতে হবে’।

সইফ আরও বলেন, সংবাদ মাধ্যমে অনেক কিছু লেখালেখি হচ্ছে, এমন অনেক বিষয় রয়েছে যেগুলো আমার উদ্বেগের কারণ হতে পারে, যা আমরা পড়ছি। ভারত কেমন রাষ্ট্র তা সংজ্ঞায়িত করবে বিচারব্যবস্থা, সরকার অথবা স্বয়ং জনগণ। আমরা কোন পরিস্থিতিতে বাস করছি সেটা সকলেরই জানা। কিন্তু তা হলেও এটা সামান্য.. আমি যা পড়ছি এবং আমাকে যা বলা হচ্ছে দুটোর মধ্যেও একটা সংঘাত চলছে।

পিটিআইকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে সইফ আরও জানান, অনেক কিছুই ঘটে যা আমাদের উদ্বিগ্ন করে, আমরা পর্যবেক্ষণ করি ও ভাবি কখন এবং কীভাবে এর সমাপ্তি ঘটবে। অনেক বলিউড তারকাই এই ব্যাপারে মুকে কুলুপ এঁটেছেন, সেই নিয়ে সইফের মন্তব্য সকলেরই মৌলিক অধিকার রয়েছে এ ব্যাপারে শান্তিপূর্ন প্রতিবাদ জানানোর আবার প্রতিবাদ না জানানো।

সিএএ আইনকে সংবিধানবিরোধী এবং বিভেদমূলক আখ্যা দিয়ে এর বিরুদ্ধে পথে নেমেছেন ফারহান আখতার, স্বরা ভাস্কর, সুশান্ত সিং, জাভেদ জাভরি, অনুরাগ কশ্যপের মতো বলিউড তারকারা।







বন্ধ করুন