বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > সহ অভিনেতাদের দামি উপহার, বাড়িও কিনে দিতেন রাজেশ খান্না! স্মৃতি হাতড়ে শর্মিলা
রাজেশ খান্নাকে নিয়ে স্মৃতিতে ভাসলেন শর্মিলা ঠাকুর

সহ অভিনেতাদের দামি উপহার, বাড়িও কিনে দিতেন রাজেশ খান্না! স্মৃতি হাতড়ে শর্মিলা

  • সুপারস্টার রাজেশ খান্না নেই ১০ বছর হয়ে গিয়েছে। অভিনেত্রী শর্মিলা ঠাকুরের কথায়, ‘রাজেশ খান্না বৈপরীত্য ও জটিলতায় পূর্ণ একটি মানুষ ছিলেন। বন্ধু এবং সহকর্মীদের সঙ্গে খুব উদার হতে দেখেছি।’

২০১২ সালের ১৮ জুলাই ইহলোকের মায়া ত্যাগ করেন বলিউড সুপারস্টার রাজেশ খান্না। ১০ বছর হয়ে গেল তিনি আর নেই। কাছের মানুষদের সঙ্গে রেখে গিয়েছেন অজস্র স্মৃতি। ক্যানসারের সঙ্গে দীর্ঘ লড়াইয়ের পর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। 

রাজেশ খান্নার সঙ্গে প্রায় ১০টি ছবিতে একসঙ্গে কাজ করেছিলেন শর্মিলা। পর্দায় যার সঙ্গে কাকা কেমিষ্ট্রি সব থেকে জনপ্রিয় হয় তিনি হলেন অভিনেত্রী শর্মিলা ঠাকুর। রাজেশ খান্নার স্মৃতি হাতড়ে তেমনই এক গল্প শুনিয়েছিলেন অভিনেত্রী।

প্রয়াত বলিউড সুপারস্টার সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে অভিনেত্রী বলেছিলেন, প্রয়াত অভিনেতা তাঁর বন্ধুদের এবং সহ-অভিনেতাদের দামী উপহার এবং এমনকি বাড়িও উপহার হিসেবে দিতেন। 

আরও পড়ুন: ‘ওঁ পিছল খেলে আমি হাসতাম’, ‘দিওয়ার’ মুক্তির পর অমিতাভকে ‘ঈর্ষা’ করতেন রাজেশ!

‘রাজেশ খান্না: এক তানহা সিতারা’ অডিওবুকে বলিডের কাকাকে স্মরণ করে শর্মিলা ঠাকুর বলেছিলেন, ‘রাজেশ খান্না বৈপরীত্য ও জটিলতায় পূর্ণ একটি মানুষ ছিলেন। বন্ধু এবং সহকর্মীদের সঙ্গে খুব উদার হতে দেখেছি। আশেপাশে মানুষ কিংবা সহ অভিনেতা-অভিনেত্রীদের দামী দামী উপহার দিতেন। শুধু উপহার নয় এমনকী বাড়ি পর্যন্ত কিনে দিতেন। কিন্তু তাঁর বিনিময়ে আশা থাকত তাঁদের কাছ থেকে অনেক বেশি কিছুর। সেই জন্য সম্পর্কগুলিতে আন্তরিকতা ছিল না।’ বইটি Audible-এ পাওয়া যাচ্ছে।

শর্মিলা ঠাকুর এবং রাজেশ ষাটের দশকের শেষের দিকের থেকে সত্তরের দশকের শুরুতে বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় অন-স্ক্রিন জুটি ছিলেন তাঁরা। একসঙ্গে আরাধনা (১৯৬৯), সফর (১৯৭০), অমর প্রেম (১৯৭২), আবিষ্কার (১৯৭৪), দাগ: এ পোয়েম অফ লাভ (১৯৭৩), ত্যাগ (১৯৭৭), রাজা রানি (১৯৭৩)-এর মতো সুপারহিট ছবিতে একসঙ্গে অভিনয় করেছেন।

 

বন্ধ করুন