বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > কুকুর মৃত্যুর জেরে 'শ্রীলেখা অনুগামী'-দের হাতে মারধর, থানায় অভিযোগ যুবকের
শ্রীলেখা ও শশাঙ্ক। (ছবি সৌজন্যে - ফেসবুক)
শ্রীলেখা ও শশাঙ্ক। (ছবি সৌজন্যে - ফেসবুক)

কুকুর মৃত্যুর জেরে 'শ্রীলেখা অনুগামী'-দের হাতে মারধর, থানায় অভিযোগ যুবকের

  • বিতর্ক বাড়ছে শ্রীলেখা এবং রেড ভলান্টিয়ার শশাঙ্ক ভাভসারের 'কান্ড' ঘিরে।তরজা আরও চরমে পৌঁছয় যখন শশাঙ্কের বাড়িতে এসে তাঁকে ঘেরাও করে হামলা করে 'শ্রীলেখা অনুগামী'-রা।

বিতর্ক বাড়ছে শ্রীলেখা এবং রেড ভলান্টিয়ার শশাঙ্ক ভাভসারের 'কান্ড' ঘিরে। সম্প্রতি, অভিযোগ উঠেছে দত্তক নেওয়া সত্বেও কুকুরছানার যত্ন নিতে পারেননি শশাঙ্ক, যার ফলে মৃত্যু হয় সেই পোষ্যের। এরপর নেটমাধ্যমে শশাঙ্ককে সামনে পেলে মেরে ফেলতেন বলেও বিতর্কিত মন্তব্য করেন শ্রীলেখা। তরজা আরও চরমে পৌঁছয় যখন শশাঙ্কের বাড়িতে এসে তাঁকে ঘেরাও করে ২ মহিলা সহ সাত, আটজন পশুপ্রেমী 'হামলা' করেন। বুধবার তাঁর ওপর মারধরের অভিযোগ তুলেছেন শশাঙ্ক।

শশাঙ্কের দাবি, তিনি বুধবার সকালে নিজের ঘরেই ঘুমোচ্ছিলেন। সকাল ১০টা নাগাদ দময়ন্তী সেন সহ একদল মানুষ তাঁর বাড়িতে চড়াও হয়। 'টুম্পা' নামের ওই দত্তক নেওয়া কুকুরছানাটির মৃত্যুর ব্যাপারে জানতে চান তাঁরা। জবাবে শশাঙ্ক জানান যে তাঁর অন্যমানস্কতার ফলে বাড়ির দরজা খোলা পেয়ে রাস্তায় বেরিয়ে যায় ছোট্ট 'টুম্পা'। অন্য পা়ড়ার কুকুররা ওকে বাগে পেয়ে মেরে ফেলেছে। এ ব্যাপারে যে তাঁরও সামান্য দোষ আছে তাও প্রকাশ্যে স্বীকার করেছেন তিনি। এই কথাবার্তা চলার মাঝেই নাকি তাঁকে চড় থাপ্পড় মারতে শুরু করেন ওই মহিলারা। আরও জানান, পাড়ার লোক এসে তাঁকে উদ্ধার করেন। তাঁরাই পুলিশে খবর দেন। তবে মাথায় চোট লাগার ফলে তিনি আগে চিকিৎসা করাতে গেছিলেন। পরে বেলঘরিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। কিন্তু সেই অভিযোগে কার নামে কী বলা হয়েছে, সেই বিষয়ে এখনই মুখ খুলতে রাজি নন তিনি।

সংবাদমাধ্যমে শশাঙ্ক অকপটে স্বীকার করেছেন যে 'টুম্পা'-র ব্যাপারে আরও সচেতন হওয়া উচিত ছিল। কিন্তু তাই বলে তাঁর গায়ে হাত? কিছুতেই এই ব্যাপারটি মেনে নিতে পারছেন না তিনি। বলেন, 'বসে কথা বলতে পারতেন তাঁরা। আমি ভুল করেছি। কুকুরছানার মৃত্যুতে আমিও ভীষণ কষ্ট পেয়েছি'। জোর গলায় জানিয়েছেন, তিনি যে একবর্ণ মিথ্যা কথা বলেননি তা পাড়ার লোককে জিজ্ঞেস করলেই যে কেউ জানতে পারবেন। তবে থানায় দায়ের করা সেই অভিযোগের ব্যাপারে মুখ খুলবেন বলে জানিয়েছেন শশাঙ্ক। তবে তাঁর আগে নিজের উকিলের সঙ্গে পরামর্শ করে নেবেন। এতকিছুর পরেও কাতর স্বরে তিনি এও জানান ' শ্রীলেখা মিত্রের সঙ্গে ডেটে যাওয়ার লোভে মোটেই কুকুরছানাটিকে তিনি পোষ্য নিইনি'।

শ্রীলেখার সঙ্গে কফি ডেটে গিয়েছিলেন রেড ভলান্টিয়ার শশাঙ্ক ভাবসর। কথা ছিল, পথ কুকুরদের দত্তক নিলে এবং তাদের ভালোবাসলে তাঁর সঙ্গে ডেটে যাবেন শ্রীলেখা। সেইমতো শশাঙ্কের সঙ্গে কফি ডেটেও গেছিলেন তিনি। নেটমাধ্যমে এই যুবকের প্রশংসাও করেছিলেন টলি-অভিনেত্রীর। বর্তমানে অবশ্য নেটপাড়ায় নিজের মন্তব্যের জন্য তুলোধনা হচ্ছেন শ্রীলেখা। নেট নাগরিকের একটি বড় অংশের বক্তব্য একজন তারকা হয়ে কী করে প্রকাশ্যে এমন গর্হিত কাজ করলেন অভিনেত্রী? প্রশ্ন উঠেছে অভিনেত্রীর সামাজিক দায়িত্বজ্ঞান নিয়েও।

নজর কেড়েছে এ ব্যাপারে DYFI নেতা অভীক সেনগুপ্তর করা একটি পোস্টও। শশাঙ্কের সমর্থনে এগিয়ে এসেছেন তিনি। আইনি লড়াইয়ে শশাঙ্কের পাশে থাকার ভরসা দিয়ে নেটমাধ্যমেই শ্রীলেখার বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন অভীক।

বন্ধ করুন