সম্প্রতি ইন্দীপের সঙ্গে একটি মিউজিক ভিডিয়োর শ্যুটিং সেরেছেন কনিকা (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
সম্প্রতি ইন্দীপের সঙ্গে একটি মিউজিক ভিডিয়োর শ্যুটিং সেরেছেন কনিকা (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে করোনা আক্রান্ত কনিকা,পাশে দাঁড়ালেন বন্ধু ইন্দীপ বক্সি

শুক্রবারই গায়িকা কনিকা কাপুরের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসে। লন্ডন থেকে ফিরে হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ানোর জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় কনিকার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন সকলেই।

করোনা ভাইরাসের আক্রান্ত হওয়ার খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই নেটদুনিয়ায় কটাক্ষের মুখে বলিউড গায়িকা কনিকা কাপুর। প্রশাসনের তরফেও আঙুল তোলা হয়েছে কনিকার দায়িত্ব জ্ঞানহীন আচরণের জন্য। কনিকার পাশে দাঁড়িয়ে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছেন অভিনেত্রী সোনম কাপুরকে, এবার গায়িকার সমর্থনে মুখ খুললেন তাঁর বন্ধু তথা জনপ্রিয় গায়ক ইন্দীপ বক্সি। শীঘ্রই ইন্দীপের সঙ্গে দুটি মিউজিক ভিডিয়োতেও দেখা যাবে কনিকাকে। হিন্দুস্তান টাইমসকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাত্কারে ইন্দীপ জানিয়েছেন কনিকা করোনা সংক্রমিত এই খবর প্রকাশ্যে আসার পরেই বেবি ডল গায়িকার সঙ্গে যোগাযোগ করেন তিনি। তাঁর কথায়, ‘সোশ্যাল মিডিয়ায় কনিকাকে নিয়ে লেখা একাধিক বিরূপ মন্তব্যে আমি মর্মাহত। কেউ কেউ তো এমনটাও লিখেছে ‘কাল কেন মরবি, আজকেই মরে যা’, ‘এয়ারপোর্ট থেকে পালিয়ে গিয়েছে’। আমার খুব রাগ হচ্ছিল, মানুষজন সত্যিটা না জেনে কেমনভাবে এইসব কথা বলছে। এয়ারপোর্ট থেকে কি কারুর পালিয়ে যাওয়া সম্ভব?

ইন্দীপ বলেন, ‘কনিকা মেসেজে আমাকে জানিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর ওঁর করোনা পরীক্ষা করতে দুদিন টালবাহান করেছে,ওকে জানানো হয়েছিল সাধারণ জ্বর হয়েছে, আরাম কর। কনিকা নিজেই হাসপাতালে গিয়েছে। কনিকা নিজে অসুস্থ, এই অবস্থায় লোকজনের ওর প্রতি এই আচরণে খুব ভেঙে পড়েছে।

তিনি আরও বলেন, যদি কনিকা কোনও আইন ভেঙে থাকে তাহলে নিঃসন্দেহে ও সাজা পাবে। কিন্তু একটা অসুস্থ মানুষের বিরুদ্ধে মন্তব্য করে, তাকে কটাক্ষ করে কী লাভ? ও কিছু চুরি করেনি যে আপনার ওর পিছনে এইভাবে পড়ে যাবেন!


সম্প্রতি কালার্সের রিয়ালিটি শো মুঝসে শাদি করোগিতে দেখা মিলেছে ইন্দীপের। সেখান থেকে ফিরেই কনিকার সঙ্গে আরও এতটি নতুন প্রোজেক্টের ঘোষণা সেরেছিলেন এই পঞ্জাবি গায়ক। পাশাপাশি মার্চের শেষেই মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল ইন্দ্রীপ ও কনিকার একটি মিউজিক ভিডিয়ো। তবে করোনার জেরে এখন সবই বিশ বাঁও জলে।

প্রসঙ্গত, ইতিমধ্যেই গায়িকার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮,২৬৯ এবং ২৭০ ধারায় এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। শনিবার বিহারের এক আদালতে গায়িকার বিরুদ্ধে জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়েছে সরকারের নির্দেশ অবমাননা করা এবং নোবল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য। ৩১ মার্চ এই মামলার শুনানি।




বন্ধ করুন