বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > অভিনয় জীবনের শুরুতেই ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা! কাস্টিং কাউচ নিয়ে মুখ খুললেন সোহিনী
সোহিনী সরকার (ছবি-ফেসবুক)
সোহিনী সরকার (ছবি-ফেসবুক)

অভিনয় জীবনের শুরুতেই ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতা! কাস্টিং কাউচ নিয়ে মুখ খুললেন সোহিনী

  • টলিউডে কাস্টিং কাউচ নিয়ে মুখ খুললেন সোহিনী সরকার। 

টলিউডের পরিচিত মুখ সোহিনী সরকার। টেলিভিশন দিয়ে অভিনয় কেরিয়ার শুরু করেছিলেন খড়দহের এই মেয়ে। এরপর লম্বা জার্নি পার করেছেন সোহিনী। সহজ ছিল না অভিনয়ের দুনিয়ায় তাঁর এই যাত্রাপথ, সোহিনীকে প্রতিমুহূর্তে খারাপ অভিজ্ঞতার শিকার হতে হতে হয়েছে। অন্ধকারে ভরা সেই দিন আজ মনে রাখতে চান না কারণ স্মৃতি সততই সুখের নয়! 

কেরিয়ারের শুরুতে পরিচালক-প্রযোজকের লালসার শিকার হতে হতে বেঁচে গিয়েছেন তিনি, সম্প্রতি সেই সব ‘রাক্ষস-খোক্কসদের’ সম্পর্কে মুখ খুলেছেন নায়িকা। আনন্দবাজার পত্রিকাকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে সোহিনী বলেন, তাঁর জীবন ঠিক রূপকথার মতো।সেই গল্পের শুরুতেই থাবা বসিয়েছিল রাক্ষস-খোক্কসরা। কিন্তু রূপকথার মতো এখানেও রাজপুত্র এসে সোনার কাঠি,রূপোর কাঠি ছুঁইয়ে রাজকন্যাকে জ্যান্ত করেছে। অভিনেত্রীর কথায়, এখন তাঁর জীবনে কোনও রাক্ষস নেই, তাদের উপযুক্ত ব্যবস্থা করেছেন তিনি। 

কারুর নাম না করেই সোহিনী বলেন, খুব অল্প বয়সে সিরিয়ালে কাজ শুরু করেন তিনি। সেই সময় এক ব্যক্তি তাঁকে খারাপভাবে স্পর্শ করবার চেষ্টা করতেন। যদিও সোহিনী তাঁকে ধারে কাছে ঘেঁষতে দেননি। সোহিনী বলেন,'তখন আমি ক্লাস এলেভেন বা টুয়েলভে পড়ি। মন দিয়ে কাজ করতাম, কিন্তু সে আমাকে প্রচণ্ড বকছে। আমি বুঝতে পারতাম না কেন! পরমূূহূর্তেই মেক-আপ রুমে গিয়ে সে আমার সঙ্গে আন্তরিক হওয়ার চেষ্টা করত। তবে আমি তার জালে কোনওদিন ধরা দিইনি'। 

সোহিনী বলেন ২০০৫-০৬ সালের ঘটনা এটি। সেই সময় ফেসবুক ছিল না- তাই বিষয়টা জানাজানি হয়নি। কিন্তু সেটের বহু সহকর্মী সোহিনীর পাশে দাঁড়িয়েছিল বলে জানান অভিনেত্রী। 

‘অদ্বিতীয়া’ সিরিয়ালের সঙ্গে পরিচিতি লাভ করেছিলেন সোহিনী। এরপরই সুযোগ আসে ‘রূপকথা নয়’ ছবিতে অভিনয়ের। সে প্রায় এক দশক আগের কথা। দ্বিতীয় ছবি ‘ফড়িং’-এ ব্যাপক প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন সোহিনী। আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ধীরে ধীরে টলিগঞ্জের অন্যতম পরিচিত মুখ হয়ে উঠেন। এখন রুপোলি পর্দা হোক বা ওটিটি প্ল্যাটফর্ম দাপটের সঙ্গে কাজ করছেন সোহিনী। নিজের সম্পর্কের ব্যাপারেও খুল্লমখুল্লা তিনি। রণজয় বিষ্ণুর সঙ্গে প্রণয় ডোরে আবদ্ধ। তবুও মাঝেমাঝে অতীতের স্মৃতি হাতড়ে সেই 'রাক্ষসদের' কথাও মনে পড়ে তাঁর। কিন্তু আজ আর তাদের দেখা মেলে না। সোহিনীর কথায়, যোগ্যতা না থাকার জেরেই হারিয়ে গিয়েছেন তারা। 

 

বন্ধ করুন