মিস্টার ইন্ডিয়া ট্রিলজি বিতর্কে এবার প্রতিক্রিয়া দিলেন সোনম কাপুর আহুজা (ছবি-সংগৃহীত)
মিস্টার ইন্ডিয়া ট্রিলজি বিতর্কে এবার প্রতিক্রিয়া দিলেন সোনম কাপুর আহুজা (ছবি-সংগৃহীত)

অপমানজনক! অনিলকে না জানিয়েই মিস্টার ইন্ডিয়া রিমেকের ঘোষণায় রেগে গেলেন সোনম

  • বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় ছবি ‘মিস্টার ইন্ডিয়া’কে নতুনভাবে পর্দায় হাজির করতে চলেছেন সুলতান পরিচালক আলি আব্বাস জাফর। এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই মিস্টার ইন্ডিয়া পরিবারের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের নানান মত প্রকাশ্যে এসেছে। এবার গোটা ঘটনা নিয়ে মুখ খুললেন অনিল কাপুর কন্যা সোনম কাপুর আহুজা।

বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় ছবি ‘মিস্টার ইন্ডিয়া’কে নতুনভাবে পর্দায় হাজির করতে চলেছেন সুলতান পরিচালক আলি আব্বাস জাফর। এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর থেকেই মিস্টার ইন্ডিয়া পরিবারের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের নানান মত প্রকাশ্যে এসেছে। এবার গোটা ঘটনা নিয়ে মুখ খুললেন অনিল কাপুর কন্যা সোনম কাপুর আহুজা। এই ক্লাসিক ছবি নিয়ে কাঁটাছেড়া করা হবে অথচ ছবির পরিচালক শেখর কাপুর বা মিস্টার ইন্ডিয়া অনিল কাপুরকে কেউ জানানোর প্রয়োজন পর্যন্ত মনে করল না! হতবাক সোনম! সোশ্যাল মিডিয়ায় এদিন কড়া ভাষায় আলি আব্বাস জাফরকে আক্রমণ করলেন অভিনেত্রী। ইন্সটাগ্রামে একটি বিবৃতিতে সোনম লেখেন, ‘অনেকেই আমাকে প্রশ্ন করছে মিস্টার ইন্ডিয়ার রিমেক নিয়ে, বিশ্বাস করুন আমার বাবাও এটা সম্পর্কে কিছু না। আমরা গোটা বিষয়টা জানতে পেরেছি সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে,যখন আলি আব্বাস জাফর টুইটারে খবরটি জানায়। ঘটনা অত্যন্ত অপমানজনক। কেউ একবার বাবাকে বা শেখর(কাপুর) কাকুকে বিষয়টি জানানোর প্রয়োজন মনে করলো না! যে দুজন মানুষ এই ছবিটার সাফল্যের মূল কান্ডারি! খুবই দুঃখের ব্যাপর..বাবা ছবিটা খুব পরিশ্রম করে করেছিল, সেরাটা উজাড় করে দিয়েছিল। ছবিটা নিয়ে বাবা একটু বেশি আবেগপ্রবণ। বানিজ্যিক সাফল্য, ঘোষণা সবকিছুর বাইরে মাথায় রাখতে হবে এটা বাবার লেগাসি। আমি আশা করছি কারুর কাজ এবং তাঁর অবদানের প্রতি সম্মান আমাদের কাছে ততটাই জরুরি যতটা বক্স অফিসের সাফল্যটা’।

View this post on Instagram

#FYI

A post shared by Sonam K Ahuja (@sonamkapoor) on


যদিও একজন ফ্যান সোশ্যাল মিডিয়াতেই সোনমকে মনে করিয়ে দিয়েছেন মিস্টার ইন্ডিয়ার সাফল্যের পিছনে শেখর কাপুর ও অনিল কাপুরের অবদান সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলেও ছবির সত্ত্বের উপর তাঁদের কোনও অধিকার নেই,তাই রিমেক তৈরির আগে তাঁদেরকে জানানো না আইনত নিষ্প্রয়োজন।

সোনমের কড়া জবাব
সোনমের কড়া জবাব

এতেও থেমে থাকেননি সোনম। অনিল কন্যা পাল্টা জবাব দেন, 'আমার বাবা এই ছবিতে অভিনয় করতে এক টাকা নেয়নি। এবং পার্টনারশিপে ছবিটির প্রযোজনা করেছিল,সুতরাং তিনি এই ছবির প্রযোজকও'।

পরিচালক শেখর কাপুরও মিস্টার ইন্ডিয়ার রিবুটের ঘোষণা নিয়ে নিজের হতাশা প্রকাশ করেছেন। টুইটারে তিনি লেখেন, কেউ একবার আমাকে জিজ্ঞাসা পর্যন্ত করেনি! যে মিস্টার ইন্ডিয়া টু হচ্ছে.. আমার মনে হয় তাঁরা মিস্টার ইন্ডিয়ার নাম ব্যবহার করতে চাইছে বক্স অফিসে সাফল্যের জন্য। তবে ছবির প্রকৃত নির্মাতাদের থেকে অনুমতি না নিলে চরিত্রগুলো এবং গল্প ব্যবহার করে যাবে না’।


দিন কয়েক আগেই টুইটারে পরিচালক আলি আব্বাস জাফর ঘোষণা করেন প্রয়োজক সংস্থা জি স্টুডিওকে সঙ্গে মিস্টার ইন্ডিয়ার ট্রিলজি তৈরি করতে চলেছেন তিনি।যেই ছবি ও তাঁর চরিত্রগুলো ভারতীয় সিনেপ্রেমীদের মনের মণিকোঠায় আজও জীবন্ত, সেই ছবিকে নতুনভাবে তুলে ধরা সহজ হবে না -সে কথা জানাতেও ভোলেননি আলি আব্বাস জাফর।



১৯৮৭ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত মিস্টার ইন্ডিয়ার প্রযোজক ছিলেন অনিল কাপুরের দাদা বনি কাপুর।

বন্ধ করুন