বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Soumitra Chatterjee's Death Anniversary: ‘এই নাটকে বাপির ছোঁয়া আছে’, মৃত্যুবার্ষিকীতে সৌমিত্র-স্মরণ কন্যা পৌলমীর
আজ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী
আজ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী

Soumitra Chatterjee's Death Anniversary: ‘এই নাটকে বাপির ছোঁয়া আছে’, মৃত্যুবার্ষিকীতে সৌমিত্র-স্মরণ কন্যা পৌলমীর

  • ‘বাপি (সৌমিত্র) বলতেন জীবনের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিও না, আমরাও এগিয়ে যাচ্ছি… কাজ করেই ওঁনাকে শ্রদ্ধার্ঘ্য জানাতে চাই’, জানালেন পৌলমী বসু।

আজ বাঙালির মন জুড়ে একটা চাপা কান্না। তিনি অপরাজিত, তিনি বাঙালির মননে, জীবনে চিরন্তন- তবুও তাঁর চলে যাওয়ার শূন্যতা পূরণ হওয়ার নয়। আজ কিংবদন্তি অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। গত বছর ১৫ই নভেম্বর কোভিড পরবর্তী অসুস্থতার জেরে প্রাণ হারান বাঙালির সবচেয়ে প্রিয় ‘ফেলুদা’। 

বাংলার প্রতি ছিল তাঁর অগাধ ভালোবাসা। ছবির পাশাপাশি মঞ্চের প্রতি টানও ছিল প্রবল। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যুবার্ষিকীর ঠিক আগের দিন, তাঁর রচিত নাটক ‘টাইপিস্ট’ মঞ্চস্থ হল অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টস-এ। আর সেই নাটকের নির্দেশনার দায়িত্বভার সামলালেন সৌমিত্রর সুযোগ্য কন্যা পৌলমী বসু। এদিন ‘মুখোমুখি ' নাট্যগোষ্ঠীর তরফে মোট দুটি নাটক মঞ্চস্থ করা হয়। একটা নতুন (টাইপিস্ট), একটা পুরনো। পুরনো নাটকটির নাম ‘দুটি কাপুরুষের কথা’। 

পৌমলী দেবী জানান, ‘ভালো লাগছে, কারণ এই নাটকের মাধ্যমে বাবাকে আবার কাছাকাছি পাচ্ছি। এই নাটকের মাধ্যমে বাপির ছোঁয়া খুঁজে পাচ্ছি, প্রত্যকেটা সংলাপে মনে হচ্ছে বাবা আমার সঙ্গে আছে, পাশে আছে’। পৌলমী বসুর পাশপাাশি এই নাটকে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করছেন দেবশংকর হালদার। তাঁর কথায়, ‘প্রত্যেকটা দিনই সৌমিত্র স্মরণের দিন। তাঁকে স্মরণ করবার জন্য আলাদা দিনের দরকার পরে না। তবুও আমাদের মন খারাপ হয়। তবে এই নাটকের রিহার্সালের সময় যখন ওঁনার ব্যবহৃত কোট, মাফলার ব্যবহার করছি তখন শিহরিত হচ্ছি’।

রবিবার মঞ্চস্থ হল টাইপিস্ট (ছবি সৌজন্যে- ফেসবুক)
রবিবার মঞ্চস্থ হল টাইপিস্ট (ছবি সৌজন্যে- ফেসবুক)

সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ওতোপ্রোতভাবে জড়িয়ে থাকতেন তাঁর নাটকের প্রত্যেকটা বিষয়ের সঙ্গে, সেটি মঞ্চস্থ হওয়ার আগে পর্যন্ত প্রত্যেকটা ডিপার্টমেন্টের দিকে কড়া নজর থাকত তাঁর। সেই শূন্যতা কাটিয়ে উঠা সম্ভবপর নয়। তবে পৌমলী এক সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন, সৌমিত্রবাবু নিজে চাইতেন তাঁরা (মুখোমুখি নাট্যগোষ্ঠী) যেন সবসময় কাজ করে, কেউ যেন বসে না থাকে। আদ্যোপান্ত পজিটিভ মানুষ ছিলেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, কাজ পাগল মানুষ। মেয়ের কথায়, ‘বাপি বলতেন, জীবনকে আলিঙ্গন করো। জীবনের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিও না। সেই জন্য জীবনের থেকে মুখ না-ফিরিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। কাজের মধ্য দিয়েই ওঁনাকে ট্রিউউট দিতে চাই’। 

 

 

 

বন্ধ করুন