বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'যদি এখন চলে যেতে হয়..সঙ্গে কী নেবেন সৌমিত্র? অকপট জবাব গীতবিতান ও আবোল-তাবোল’
সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় 
সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় 

'যদি এখন চলে যেতে হয়..সঙ্গে কী নেবেন সৌমিত্র? অকপট জবাব গীতবিতান ও আবোল-তাবোল’

  • সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের কালজয়ী কন্ঠে সামনে আসতে চলেছে সুকুমার রায়ের সৃষ্টি 'আবোল-তাবোল'। মুক্তি পেল টিজার। 

সাহিত্যিক সুকুমার রায়ের এই অমর অক্ষয় সৃষ্টির মহিমা আজও একটুও ক্ষুন্ন হয়নি। শিশু মহলে আজও আবোল তাবোলের চাহিদা অমলিন। কিন্তু বর্তমানে ডিজিটাইজেশনের যুগ , তাই কোথাও গিয়ে হয়তো নব প্রজন্মের কাছে হার্ডকোর দুই মলাটের গুরুত্ব কিছুটা কমেছে। কাজেই এবার ভার্চুয়াল দুনিয়ায় অডিও ভিজুয়াল মাধ্যমে এই অমর সৃষ্টিকে বাঁচিয়ে রাখতে অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে ‘মিনিস্ট্রি অফ মিউজিক’ ইউটিউব চ্যানেল। প্রবাদ প্রতিম শিল্পী তথা অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের কালজয়ী কণ্ঠের ব্যবহারে এবং উপযুক্ত ভিজুয়াল অ্যানিমেশনের সহায়তায় আসতে চলেছে আবোল তাবোল।

আগামী ১৪ নভেম্বর শিশু দিবসের শুভ লগ্নে মুক্তি পেতে চলেছে এই অজেয় সৃষ্টি। তার আগে সম্প্রতি সামনে এর টিজার। আবোল তাবোলের মহিমা ঠিক কি তা হয়তো বাঙালির অপুর এই একটি কথাতেই পরিষ্কার। একবার এক সাক্ষাৎকারে তাঁকে জানতে চাওয়া হয়েছিল আচ্ছা , আজ যদি হঠাৎ করেই চলে যেতে হয় কী নিয়ে যাবেন ? সৌমিত্র বাবু উত্তর দিয়েছিলেন-বই। কী বই নেবেন? উত্তর- গীতবিতান এবং মহাভারত। কিন্তু আজ যদি এই প্রশ্ন ওঠে তাহলে উত্তরটা পালটে ফেলবেন ফেলুদা। তিনি জানাবেন- ‘আজ আমি সঙ্গে নিয়ে যেতে চাই অবশ্যই গীতবিতান, ওটা ছাড়া তো বাঁচবই না। আর সেই সঙ্গে আমি নেব আবোল-তাবোল। এর মধ্যে দিয়ে জীবনের যে অন্য রূপটা দেখা যায় সেটা বংলা সাহিত্যে আর কোথাউ নেই'। 

দেখুন সেই টিজার-

 ফেলুদার স্বাস্থ্য নিয়ে যখন চিন্তায় গোটা বাংলা, সেই সময় আবোল-তাবালের এই টিজার বাঙালিকে স্মৃতিমেদুর করে তুলছে। তবে এখন আগের চেয়ে অনেকখানি সুস্থ বর্ষীয়ান অভিনেতা। 

অডিও-ভিস্যুয়ালের মাধ্যমে আবোল-তাবোল হাজির করতে চলেছেন মিনিস্ট্রি অফ মিউজিকের ডিরেক্টর তথা যৌথ প্রতিষ্ঠাতা  শিলাদিত্য চৌধুরী। জানা গেছে তাঁরই অনুরোধে টানা দু দিন ধরে কলকাতার ফিল্ম সার্ভিসেস স্টুডিওতে মোট ৪৬ টি শিরোনাম যুক্ত এবং ৭টি অনামী সুকুমার সৃষ্টির মধ্যে নতুন প্রাণ সঞ্চার করেছেন সৌমিত্র বাবু।

এই প্রসঙ্গে শিলাদিত্যর বক্তব্য, ‘আবোল তাবোল আজও আমায় ছেলেবেলার সেই মা, ঠাকুমার স্নেহ মাখা দিনগুলোতে ফিরিয়ে নিয়ে যায়। আর এখনতো কয়েক বছর ধরে এটি আমার নিত্যসঙ্গী হয়ে দাঁড়িয়েছে। আপাতত ‘আবোল-তাবোল’কে উপস্থাপন করে আমরা শৈশব স্মৃতির নস্ট্যালজিয়াকে পুনরুজ্জীবিত করার চেষ্টা করেছি। আর এক্ষেত্রে আবৃত্তির দুনিয়ায় এই মুহূর্তে বাংলায় সৌমিত্র বাবু ছাড়া আর কারোর নাম আমার মাথায় আসেনি'। আপাতত মুক্তি পেয়েছে টিজার। ভালোই সাড়াও পাচ্ছেন বলে জানালেন আশাবাদী শিলাদিত্য।

বন্ধ করুন