বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'ভোটের বেলায় চুপচাপ ফুলে ছাপ,দরকারে রেড ভলান্টিয়ার্স,এটা মানা যায় না': শ্রীলেখা
শ্রীলেখা মিত্র (ছবি-ফেসবুক)
শ্রীলেখা মিত্র (ছবি-ফেসবুক)

'ভোটের বেলায় চুপচাপ ফুলে ছাপ,দরকারে রেড ভলান্টিয়ার্স,এটা মানা যায় না': শ্রীলেখা

  • বাংলা থেকে বামদলের অস্তিত্ব মুছে ফেলাই তৃণমূলের লক্ষ্য, তাই শূন্য আসন পাওয়ার পরেও অত্যাচারিত হচ্ছেন বাম সমর্থকরা, দাবি শ্রীলেখার। 

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের ফল সামনে এসেছে প্রায় এক সপ্তাহ হতে চলল। বাংলার মানুষের রায়ের ফল বলছে এবারের বিধানসভা বাম শূন্য। ২৯২ বিধানসভা আসনের মাত্র একটিতে জয় পেয়েছে সংযুক্ত মোর্চা, তবে বাম বা কংগ্রেস নয় সেটি হাসিল করেছে ISF। তবে এই ভরাডুবির পরেও শাসকদল বিরোধী পোস্ট করা থেকে পিছপা হচ্ছেন না কট্টর বাম সমর্থক অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। ‘সবুজ সাথী’, ‘স্বাস্থ্য সাথী’ থেকে রাজ্যের মহিলা সুরক্ষা সব নিয়েই মমতা সরকারকে বিঁধছেন শ্রীলেখা। 

সম্প্রতি নিজের ফেসবুকের দেওয়ালে একটি পোস্ট শেয়ার করেন শ্রীলেখা, সেখানে বলা হয়েছে তৃণমূলের রাজত্বে কারুর চাকরির দরকার নেই। কারণ যাতায়াতের জন্য ‘সবুজ সাথী’ সাইকেল, খাওয়ার জন্য ২ টাকা কেজি রেশনের চাল, চিকিৎসার জন্য ‘স্বাস্থ্য সাথী’ কার্ড রয়েছে। এবং সন্তানদের মানুষ করবার জন্য তো ‘কন্যাশ্রী’, ‘যুবশ্রী’, ‘রূপশ্রী’ প্রকল্প রয়েছে, আর মৃত্যুর পরের ব্যবস্থাও রয়েছে। সরকার ২ হাজার টাকা দেবে, তাতে সৎকার হবে। এই পোস্ট শেয়ার করে শ্রীলেখা বাংলার মানুষের উদ্দেশে বার্তা দিয়েছেন, ‘ হরিবোল না হরিবল (ভয়ঙ্কর) পছন্দ আপনাদের!’

২১৩টি বিধানসভা আসনে জয় লাভের পর ইতিমধ্যেই তৃতীয়বার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেন এখনও শাসকদলের বিপক্ষে সুর চড়াচ্ছেন শ্রীলেখা? 

এই প্রসঙ্গে এক সংবাদমাধ্যমে শ্রীলেখা মিত্র জানান, ‘যাঁরা জেগে ঘুমবেন তাঁদের সজাগ করব কী করে? আমি যতই পোস্ট করি তাঁরা তাঁদের মতোই চলবেন’। এখানেই থেমে থাকেননি শ্রীলেখা,  আনন্দবাজারকে দেওয়া ওই সাক্ষাত্কারে করোনা মোকাবিলায় রেড ভয়েলন্টিয়ার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মনে করিয়ে অভিনেত্রীর পালটা আক্রমণ- ‘ভোটের বেলায় চুপচাপ ফুলে ছাপ আর দরকারে ‘রেড ভলান্টিয়ার্স’! দিনের পর দিন সত্যিই এটা মানা যায় না’।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় পরোক্ষভাবে দেবলীনা কুমারের সঙ্গেও কথা কাটাকাটিতে জড়ান শ্রীলেখা। অভিনেত্রীর কথায়, তিনি বা বাম দলের কেউই ভুয়ো খবর ছড়াচ্ছেন না। শাসকদলের তরফে বারবার আক্রান্ত হচ্ছে বামকর্মী-সমর্থকরা। এমনকি  ‘রেড ভলান্টিয়ার্স’-দের কাজেও বাধা দেওয়া হচ্ছে। শ্রীলেখার যুক্তি, বাংলা থেকে বামদলের অস্তিত্ব মুছে ফেলাই নাকি তৃণমূলের লক্ষ্য, তাই শূন্য আসন পাওয়ার পরেও অত্যাচারিত হচ্ছেন বাম সমর্থকরা।

বন্ধ করুন