বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Sreelekha Mitra: ‘কচি ছেলেদের মাথা চিবিয়ে…', মাংস না খাওয়া নিয়ে মন্তব্য করে 'দিদির চামচা'র হাতে ট্রোলড, জবাব শ্রীলেখার

Sreelekha Mitra: ‘কচি ছেলেদের মাথা চিবিয়ে…', মাংস না খাওয়া নিয়ে মন্তব্য করে 'দিদির চামচা'র হাতে ট্রোলড, জবাব শ্রীলেখার

শ্রীলেখা মিত্র (ছবি-টুইটার)

সদ্যই মুখ্যমন্ত্রীকে ‘হীরকের রানি’ বলে আক্রমণ শানিয়েছেন শ্রীলেখা। এবার ট্রোলারকে জবাব দিতে গিয়েও ‘দিদি’র প্রসঙ্গ টানলেন অভিনেত্রী। বাংলাদেশে করা শ্রীলেখার ‘মাংস-মন্তব্য’ ভাইরাল। সেই নিয়েই অশালীন ট্রোলের শিকার অভিনেত্রী। 

টলিউড অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র প্রায় প্রতিদিনই থাকেন খবরে। সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ সক্রিয় তিনি। তাঁর মন্তব্য নিয়ে যেমন কাটাছেঁড়া চলে, তেমনই শ্রীলেখা ট্রোলারদেরও মোক্ষম জবাব দিতে ওস্তাদ। শাসক দলের বিরোধিতার জেরে বাম ঘনিষ্ঠ এই অভিনেত্রীকে বহুবার বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছে, তবুও পিছু হঠতে না-রাজ তিনি।

সম্প্রতি নিজের পরিচালিত শর্ট ফিল্ম ‘এবং ছাদ’ স্ক্রিনিংয়ে ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে হাজির হয়েছিলেন শ্রীলেখা। বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে পশুপ্রেমী শ্রীলেখা জানান, মাংস খাওয়া ত্যাগ করেছেন তিনি। তাঁর বাড়িতে মাংস আসে ঠিকই, তবে শুধু মাত্র তাঁর চারপেয়ে সন্তানদের জন্য। শ্রীলেখা বলেন, ‘আমি ন্যাকামি করে বলছি না, আজকাল বেসিনের মধ্যে পিঁপড়ে থাকলে যদি আমি ভুল করে কল খুলে ফেলি তাহলে পিঁপড়কে সরি সরি বলতে থাকি। আসলে প্রাণীহত্যাটা এখন আর পারি না। আমি কিন্তু একটা সময় খুব ভালো মটন রান্না করতাম। আমার মেয়ে মাছ, মাংস, ডিম কিছুই মুখে দেয় না।’ শ্রীলেখার এই মাংস মুখে না দেওয়ার মন্তব্য ঘিরে নেটমাধ্যমে শুরু হয়ে গিয়েছে ট্রোলিং। অনেকেই নানান কুরুচিকর ইঙ্গিত দিয়ে শ্রীলেখাকে আক্রমণ করেন।

একজন নেটিজেন শ্রীলেখার উদ্দেশে লেখেন- ‘কচি কচি ছেলেদের মাথা ছিবিয়ে খাওয়া যার নেশা, শুধু শুধু মাংস খাওয়া তার কাছে বিলাসিতা মাত্র, তাই তো কমরেড শ্রীলেখা মিত্র?’ এই পোস্টের স্ক্রিন শট নিজের প্রোফাইলে শেয়ার করে বোমা ফাটান শ্রীলেখা। তিনি লেখেন- ‘দিদির চামচারা কি শিক্ষিত তাই না? কু…’।

প্রতিবেশি রাষ্ট্রে গিয়েও মমতাকে বিঁধতে ছাড়েননি তিনি। ‘কলকাতা আন্তর্জাতিক ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল’কে ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল’ বলে বসেন তিনি। পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রীকে ‘হীরক রানি’ বলেও আক্রমণ শানান শ্রীলেখা। স্বভাবতই শ্রীলেখার মন্তব্য হজম হয়নি বহু তৃণমূল সমর্থকের। সেই রোষ থেকেই কি শ্রীলেখার মাংস মন্তব্য নিয়ে এমন অশালীন আক্রমণ?

তৃণমূল সমর্থকদের সঙ্গে শ্রীলেখার এই ‘তু তু মেয় মেয়’ বহু পুরোনো। দু-দিন আগেই মেঘালয়ের ‘শিস গ্রাম’ কংথং-য়ের প্রসঙ্গ শোনা যায় মমতার মুখে। সেখানে রাজনৈতিক সভায় দাঁড়িয়ে মমতা বলেন, ‘এই গ্রামের প্রতিটা নামই একটা সুর’। নিজমুখেই অদ্ভূত শব্দ করে তা দেখিয়ে দেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। ভাইরাল সেই ভিডিয়ো নিয়ে ফুট কেটেছিলেন শ্রীলেখা।

মমতার মুখে কংথং গ্রামের ভাষা আর শিস ধ্বনির সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয় ‘বাহুবলী’ সিনেমার একটি দৃশ্য, যা শেয়ার করে শ্রীলেখা লেখেন- ‘সংগৃহীত…. মাথাটাই নষ্ট’।

 

 

 

 

বন্ধ করুন