বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Queen Elizabeth II Death: ‘মন থেকে দাসত্ব যায়নি এদের’, ব্রিটেনের রানির প্রয়াণে শোক করে ট্রোলড শুভশ্রী
রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে ট্রোলড শুভশ্রী। 

Queen Elizabeth II Death: ‘মন থেকে দাসত্ব যায়নি এদের’, ব্রিটেনের রানির প্রয়াণে শোক করে ট্রোলড শুভশ্রী

  • বৃহস্পতিবার ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুর খবর আসতেই শোকপ্রকাশ করেছেন বিশ্বের নানা শ্রেণির মানুষ। তবে ভারতের কিছু লোকের মনে এখনও দগদগে ইংরেজদের দিয়ে যাওয়া ঘা। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় শোকপ্রকাশ করে অনেকেই ট্রোল হচ্ছেন। 

বৃহস্পতিবার ৯৬ বছর বয়সে প্রয়াত হন ব্রিটেনের রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ। বৃহস্পতিবার রাতে বাকিংহাম প্যালেসর তরফে রানির মৃত্যুর খবর প্রকাশ করা হয়। ৭০ বছর ধরে সিংহাসন সামলেছিলেন তিনি। দীর্ঘদিন অন্তরালে ছিলেন। গত বছর অক্টোবর থেকেই ভেঙে পড়তে শুরু করে স্বাস্থ্য। মাঝে খবর মিলেছিল হাঁটাচলাও বন্ধ হয়ে গিয়েছে। গুরুতর অসুস্থ রানির জন্য উদ্বিগ্ন ছিল গোটা দেশ। স্কটল্যান্ডের বালমোরাল প্রাসাদেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

দ্বিতীয় এলিজাবেথের মরদেহ ইংল্যান্ডে নিয়ে আসা হবে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে। আর সেটা জানার পর থেকেই প্যালেসের সামনে অসংখ্য মানুষ ভিড় জমিয়েছেন। প্রায় সকলেরই চোখে জল, ভাঙা মন নিয়ে এসেছেন তাঁরা শেষ বিদায় জানাতে। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে রাষ্ট্রনেতারা শোকপ্রকাশ করেছেন রানির মৃত্যুতে। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর আত্মার শান্তিকামনা করেছেন তারকারাও। আর সেটা করতে গিয়েই ট্রোলড হলেন শুভশ্রী। আরও পড়ুন: ‘সবকিছুতে পাশে আছি’, বিরাটের কামব্যাক সেঞ্চুরিতে গর্বিত অনুষ্কা লিখলেন সোশ্যালে

শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায় রানি এবিজাবেথ ২-র যৌবনের একটা ছবি শেয়ার করেন সোশ্যালে। তবে এই পোস্ট সেভাবেও ভালো লাগেনি নেট-নাগরিকদের একটা অংশের। ভারতের উপর ব্রিটিশ শাসন টেনে এনেছেন তাঁরা। সঙ্গে কোহিনূর প্রসঙ্গও। একজন লিখলেন, ‘বোঝা যাচ্ছে মন থেকে দাসত্ব এখনও ঝেরে ফেলতে পারেননি’। অপরজন লিখলেন, ‘যদি মারা যাওয়ার আগে কোহিনূর ফেরত দিয়ে যেত তাও বুঝতাম আপনার এই পোস্টের গুরুত্ব আছে। সবাই যে কেন এত ন্যাকামো করছে, কে জানে!’ আরও পড়ুন: বেরিয়ে পড়ল ‘দিদি নম্বর ১’-এর সেটে রচনার লুকিয়ে রাখা খাবার, কী কী ছিল ওখানে?

দ্বিতীয় এলিজাবেথের মৃত্যুর পর সিংহাসনে বসবেন তাঁর ছেলে প্রিন্স চার্লস। যদিও এখনই হবে না রাজ্যাভিষেক। তবে ব্রিটেনের রাজপরিবারের নিয়ম অনুসারে রানির মৃত্যুর পরেই তাঁর উত্তরসূরীকে সিংহাসনে বসতে হয়। আর সিংহাসনে বসার পর চার্ল বলেন, ‘আমার মায়ের মৃত্যুর খবরে পরিবারের প্রতিটি সদস্যের হৃদয় ভেঙে গিয়েছে। সকলের প্রিয় রানি এবং মমতাময়ী মায়ের চলে যাওয়ার খবরে সকলেই মর্মাহত। আমি জানি, ওঁর চলে যাওয়ায় গোটা দেশ, রাজ্যপাট, কমনওয়েলথের সদস্য-সহ বিশ্বের অগুনতি মানুষ চোখের জল ফেলছে। এটা শোকের সময়। পরিবর্তনের সময়। তাঁর দেওয়া জ্ঞানকে পাথেয় করেই ভবিষ্যতে পথ চলব।’

 

বন্ধ করুন