বাড়ি > বায়োস্কোপ > ৩৫ বছরে প্রথমবার ভাইয়ের হাতে রাখি পরানো হল না.. আবেগঘন সুশান্তের 'রানি দিদি'
নীতু সিংয়ের সঙ্গে সুশান্ত (ছবি-ফেসবুক)
নীতু সিংয়ের সঙ্গে সুশান্ত (ছবি-ফেসবুক)

৩৫ বছরে প্রথমবার ভাইয়ের হাতে রাখি পরানো হল না.. আবেগঘন সুশান্তের 'রানি দিদি'

  • তোকে ছাড়া আমি বাঁচতে জানি না, আমাকে বাঁচতে শিখিয়ে দিয়ে যা…রাখির দিন ভাইয়ের স্মরণে হৃদয় নিংড়ানো বার্তা সুশান্তের দ্বিতীয় মা, তাঁর সবচেয়ে বড় দিদি নীতু সিংয়ের।

চার দিদির আদরের একমাত্র ভাই সুশান্ত সিং রাজপুত। নীতু,মীতু, প্রিয়াঙ্কা এবং শ্বেতা- দিদিদের আদরের ‘গুলশন' সুশান্ত। বাড়িতে এই নামেই সুশান্তকে ডাকেন সকলে। গত ১৪ই জুন আচমকাই চলে গিয়েছেন সুশান্ত, এই কঠিন সত্যিটা মেনে নেওয়ার লড়াই চালাচ্ছে তাঁর পরিবার। সুশান্তের মৃত্যুর পর এই প্রথম ভাইয়ের স্মরণে আবেগঘন বার্তা দিলেন সুশান্তের ‘রানি দিদি’ নীতু সিং।

সোমবার গোটা দেশে পালিত হচ্ছে রাখি বন্ধন। আজ ভাইয়ের হাতে রাখি বেঁধে তাঁর মঙ্গলকামনা করেন দিদি,বোনেরা। গত ৩৪ বছর ধরে সেটাই করে এসেছেন নীতু সিং। সুশান্তের চার দিদির মধ্যে সবচেয়ে বড় তিনি। কোনওদিনও দিদির কথা ফেলতেন না সুশান্ত। মাত্র ১৬ বছর বয়সে মা'কে হারানো সুশান্তের কাছে মায়ের চেয়ে চেয়ে কোনও অংশে কম জায়গা ছিল না 'রানিদি'র। অথচ আজকে এই প্রথম রাখির দিনে ভাইকে জড়িয়ে ধরতে পারছেন না নীতু।  

টাইমস নাওয়ের তরফে প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে, নীতু লেখেন, ‘আজ তোর দিন, আজ আমাদের দিন। আজ রাখি। ৩৫ বছরে এই প্রথমবার আজ পূজার থালা সাজনো হয়েছে, আরতির প্রদীপ জ্বলেছে কিন্তু ওই মানুষটা নেই যার আরতি আমি করব।ওই হাতটা নেই যেখানে রাখি বাঁধতে পারব। ওই মুখটা নেই যাকে মিষ্টি খাওয়াতে পারব।ওই মাথা নেই যেখানে স্নেহচুম্বন করতে পারব, ওই ভাই নেই যাকে আলিঙ্গন করতে পারব। যেদিন তুই এসেছিল আমার জীবনটা ঝলমলিয়ে উঠেছিল,যখন ছিলিস চারিদিকে শুধু আলো ছিল। আজ তুই নেই আমি ভেবে পাচ্ছি না কী করব!  তোকে ছাড়া আমি বাঁচতে জানি না। কোনওদিন ভাবি না এইরকমও দিন আসবে, যে রাখি আসবে কিন্তু তুই থাকবি না। কত জিনিস তো আমরা একসঙ্গে শিখেছি ভাই বল…তোকে ছাড়া একা থাকাটা কী করে শিখব? তুই কোথায়। আজীবন শুধু তোর রানি দি’। 

অঙ্কিতা লোখান্ডে রিপাবলিক টিভিকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন, ‘গত বছর নভেম্বর নাগাদ রানি দি আমাকে ফোনে বলেছিল আমি আমার ভাইকে ধীরে ধীরে হারিয়ে ফেলছি’। অঙ্কিতা তাঁকে আশ্বাস জানিয়ে বলেছিলেন, সুশান্তকে একটু সময় দিতে সব ঠিক হয়ে যাবে। কেন ভাইয়ে হারিয়ে ফেলবার চিন্তা মাথায় এসেছিল নীতু সিংয়ের? অঙ্কিতা বলেন, 'সুশান্ত কোনওদিনও রানিদিদির কথা ফেলত না। যেহেতু মায়ের পর উনি সুশান্তকে আগলে রেখেছিলেন। তাই সবার উপরে ওঁনার স্থান ছিল। সুশান্ত কেন কোনও বোন,আমি কেউ ফেলতাম না রানিদিদির কথা। কিন্তু সেই সময় সুশান্তের ডেঙ্গু হয়েছে জানতে পেরে রানিদিদি ওকে সঙ্গে নিয়ে যেতে চেয়েছিল। প্রথমে রাজি হলেও পরে বেঁকে বসেন সুশান্ত। জানান তিনি সঙ্গে যাবেন না। ভাইয়ের মুখে প্রথমবার না শুনে মন ভেঙে গিয়েছিল নীতুর। সেই কথাই অঙ্কিতাকে জানিয়েছিলেন তিনি। 

সুশান্তের হাতে রাখি বাঁধছেন তাঁরা দিদিরা। এই ছবি শেয়ার করেছেন দিদি শ্বেতা। (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)
সুশান্তের হাতে রাখি বাঁধছেন তাঁরা দিদিরা। এই ছবি শেয়ার করেছেন দিদি শ্বেতা। (ছবি-ইনস্টাগ্রাম)

মার্দাস ডে'র দিনেও মা হিসাবে নীতু সিংয়ে স্মরণ করে পোস্ট করতে দেখা গিয়েছে সুশান্তকে। যেখানে প্রয়াতও অভিনেতাও জানিয়েছেন, তাঁর 'দ্বিতীয় মা রানি দিদি'।

বন্ধ করুন