বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ‘ফায়দা তুলেছে সুশান্ত, আমাকে ব্যবহার করেছে', জামিনের আর্জিতে দাবি রিয়ার
সুশান্তের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল রিয়ার  (MINT_PRINT)
সুশান্তের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল রিয়ার  (MINT_PRINT)

‘ফায়দা তুলেছে সুশান্ত, আমাকে ব্যবহার করেছে', জামিনের আর্জিতে দাবি রিয়ার

  • ‘সুশান্ত আমাকে, আমার ভাইকে ব্যবহার করেছে, নিজের ড্রাগের অভ্যাস বজায় রাখতে', বম্বে হাইকোর্টে দাখিল জামিনের আর্জিতে বিস্ফোরক দাবি রিয়ার। 

সুশান্তের মৃত্যু মামলার সঙ্গে জড়িত মাদককাণ্ডে গ্রেফতার রিয়া চক্রবর্তী ফের অভিযোগের আঙুল তুললেন সুশান্তের দিকে। বম্বে হাইকোর্টে দাখিল জামিনের আর্জিতে রিয়া জানিয়েছেন- সুশান্ত নিজের ড্রাগের অভ্যস্ত বজায় রাখতে ফায়দা তোলবার চেষ্টা করেছেন তাঁর আশেপাশের মানুষজনের'। আপতত বাইকুল্লা জেলে বন্দী রিয়া। সুশান্ত সিং রাজপুতের জন্য ড্রাগ সংগ্রহ ও নিষিদ্ধ মাদকের আর্থিক লেনদেনের সঙ্গে জড়িত থাকার অপরাধে গত ৮ সেপ্টেম্বর এনসিবির হাতে গ্রেফতার হন রিয়া চক্রবর্তী। 

রিয়া ও শৌভিকের আইনজীবী সতীশ মানশিন্দে গতকালই বম্বে হাইকোর্টে দুই অভিযুক্ত ভাই-বোনের জামিনের আর্জি পেশ করেন বম্বে হাইকোর্টে, আজ আদালতে এই মামলার শুনানির দিন নির্দিষ্ট ছিল। তবে মাত্রাতিক্ত বৃষ্টির জেরে আজ আদালতের কাজ বাতিল হওয়ায় এই মামলার শুনানি হবে আগামিকাল। সুশান্তের মৃত্যু মামলার মূল অভিযুক্ত রিয়া চক্রবর্তী। প্রয়াত অভিনেতার পরিবার রিয়ার দিকে সুশান্তকে আত্মহত্যায় প্ররোচণা দেওয়ার অভিযোগ এনেছে। 

এনডিটিভিতে প্রকাশিত রিপোর্টে বলা হয়েছে রিয়া নিজের জামিনের আর্জিতে জানিয়েছেন- ‘সুশান্ত শুধু ড্রাগ সেবন করত না, নিজের স্টাফেদের নির্দেশ দিত ওর জন্য মাদক সংগ্রহ করবার’। রিয়া আরও জানান- ‘যদি সুশান্ত আজ বেঁচে থাকত তাহলে ড্রাগ সেবেনের অভিযোগ উঠত তাঁর বিরুদ্ধে, এবং সেটার পরিমাণ অল্প হওয়ায় খুব বেশি হলে এক বছরের সাজা হত সুশান্তের এবং সেটি জামিনযোগ্য অপরাধ’। 

রিয়া আরও বলেন- ‘সুশান্ত আমাকে, আমার ভাইকে ব্যবহার করেছে, ওঁর অনান্য হাউজ স্টাফেদের সঙ্গে ওর নিজের ড্রাগের অভ্যাসকে চালিয়ে যাওয়ার জন্য। এবং খুব বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে কোনওরকম ইলেকট্রনিক এভিডেন্স রাখেনি নিজের এই চক্রে জড়িত থাকার। এটা খুব দুর্ভাগ্যের বিষয় যে সুশান্ত সিং রাজপুত নিজের আশেপাশের মানুষদের ফায়দা তুলেছে।

সুশান্ত তাঁর রাঁধুনি নীরজকে ওঁর জন্য মৃত্যুর তিনদিন আগে একটি বক্সের মধ্যে নিষিদ্ধ মাদক ভরে বেডরুমে রেখে দিতে বলেছিল, বলে দাবি করেন রিয়া। সেটি মৃত্যুর পর ফাঁকা অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এবং এটা থেকেই বোঝা যাচ্ছে সুশান্তই শুধু ড্রাগ সেবন করত, যোগ করেন রিয়া চক্রবর্তী। 

সুশান্তের মৃত্যুর সঙ্গে জড়িত আর্থিক তছরুপের মামলার তদন্তে নেমে রিয়ার মাদকযোগের হদিশ পায় এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। এরপর ইডির আহ্বানে এই মামলার তদন্তে যোগ দেয় এনসিবি। এরপর বলিউডের রন্ধ্রে রন্ধ্রে লুকিয়ে থাকা মাদকচক্রের জোরকদমে তল্লাশি শুরু করেছে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো। এই তদন্তে ইতিমধ্যেই উঠে এসেছে দীপিকা পাড়ুকোনের মতো প্রথম সারির তারকার নাম।

বন্ধ করুন