বাড়ি > বায়োস্কোপ > 'নভেম্বরেই তোমাকে তাড়াব',ট্রাম্পের সমালোচনায় মুখর টেইলর সুইফট,রেকর্ড গড়ল গায়িকার টুইট
ট্রাম্পের সমালোচনা মুখর টেইলর সুইফট 
ট্রাম্পের সমালোচনা মুখর টেইলর সুইফট 

'নভেম্বরেই তোমাকে তাড়াব',ট্রাম্পের সমালোচনায় মুখর টেইলর সুইফট,রেকর্ড গড়ল গায়িকার টুইট

  • শুক্রবার ট্রাম্পের সমালোচনায় করা সুইফটের এই টুইট এখন পর্যন্ত গায়িকার সবচেয়ে বেশি লাইক পাওয়া টুইটের রেকর্ড গড়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ট ট্রাম্পের সামোচনায় বিস্ফোরক টুইট গ্র্যামী জয়ী সঙ্গীতশিল্পী টেইলর সুইফের। শুক্রবার ট্রাম্পের সমালোচনায় করা সুইফটের এই টুইট এখন পর্যন্ত তাঁর সবচেয়ে বেশি লাইক পাওয়া টুইটের রেকর্ড গড়েছে।

কৃষ্ণাঙ্গ তরুণ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুকে ঘিরে মিনিয়াপোলিস শহর উত্তপ্ত দিন কয়েক ধরেই। এই পরিস্থিতি সামলাতে ট্রাম্প ন্যাশনাল গার্ড মোতায়েন করে গুলি চালানোর হুমকি দেন। এই বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা সরব টেইলর সুইফট। মাত্র পাঁচ ঘণ্টায় এই টুইটটি এক মিলিয়নেরও বেশি লাইক পায়!

টুইটে টেইলর সুইফট লিখেছেন, ‘আপনি নিজের শাসনকালে শুধুমাত্র শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যবাদ ও বর্ণবিদ্বেষের আগুন ধরিয়েছেন, হিংসাত্মক এই হুমকি দেওয়ার আগে আপনার এতকটুও বিবেকে বাধলো না? লুটপাট শুরু হলেই গুলি শুরু হবে? আমরা নভেম্বরেই আপনাকেই ভোট আউট করব’।

এখনও পর্যন্ত ২০ লক্ষ মানুষ এই টুইটে লাইক দিয়েছেন। রি-টুইট করেছেন প্রায় ৫ লক্ষ মানুষ।

সোমবার পুলিশকর্মীর দ্বারা কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েডের হত্যার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে অগ্নিগর্ভ আমেরিকা। সোমবার মিনিয়াপোলিসে নাগাড়ে ৮ মিনিট হাঁটু দিয়ে গলা টিপে রেখে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয় ফ্লয়েডকে। সেই ভিডিয়ো ফুটেজেও ফাঁস হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই দিনই এই নক্কারজনক ঘটনার প্রতিবাদে পথে নেমেছে মার্কিনবাসী।পরিস্থিতি সামলাতে নাজেহাল পুলিশ-প্রশাসন।

মিনিয়াপোলিস শহর মুড়ে ফেলা হয়েছে পুলিশি প্রহরায়
মিনিয়াপোলিস শহর মুড়ে ফেলা হয়েছে পুলিশি প্রহরায় (AFP)

 এরপরই বৃহস্পতিবার বিক্ষোভকারী জনগণের উদ্দেশে হুমকি দিয়ে টুইট করেন ট্রাম্প। লেখেন, ‘…যে কোনো জটিলতাই আমরা নিয়ন্ত্রণে নিতে পারি। যখনই লুটপাট শুরু হবে তখনই গুলিও শুরু হবে।’

ট্রাম্পের টুইট ও টুইটারের সতর্কীকরণ বার্তা
ট্রাম্পের টুইট ও টুইটারের সতর্কীকরণ বার্তা

ট্রাম্পের এই টুইটকে ঘিরে সমালোচনার ঝড় সবমহলেই। এমনকি টুইটার কর্তৃপক্ষও একটি বিশেষ সর্তকীকরণ বার্তা জুড়তে বাধ্য হয়েছে এই টুইটের সঙ্গে। ট্রাম্পের টুইট টুইটারের গাইডলাইনের বিরুদ্ধে,কারণ এটি হিংসায় প্ররোচণা দিচ্ছে, তবুও জনসাধরণের স্বার্থে প্রেসিডেন্টের এই বার্তা মুছে না দিয়ে একটি সর্তকীকরণ বার্তা যুক্ত করেছে টুইটার।

 

.

বন্ধ করুন