বাড়ি > বায়োস্কোপ > ভারতীয় থিয়েটার জগতে নক্ষত্রপতন,চলে গেলেন ইব্রাহিম আলকাজি
নক্ষত্রপতন ভারতীয় থিয়েটার জগতে 
নক্ষত্রপতন ভারতীয় থিয়েটার জগতে 

ভারতীয় থিয়েটার জগতে নক্ষত্রপতন,চলে গেলেন ইব্রাহিম আলকাজি

  • ভারতীয় থিয়েটারে একটা যুগের ইতি। ৯৪ বছরে চলে গেলেন ইব্রাহিম আলকাজি। 

 কুরুক্ষেত্র তৈরি হতে পারে ফাঁকা মঞ্চে শুধু সঞ্জয়ের চোখ দিয়ে- এমনটাই বলতেন ইব্রাহিম আলকাজি। ভারতীয় থিয়েটারকে আমূলে পাল্টে ফেলেছিলেন তিনি,অনেকের মতেই তিনি আধুনিক ভারতীয় থিয়েটার জগতের রূপকার। মঙ্গলবার চলে গেলেন ইব্রাহিম আলকাজি, জানিয়েছে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। বয়স হয়েছিল ৯৫ বছর।দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিক সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। এদিন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে দিল্লির এক বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর। আলকাজির মৃত্যুর খবর সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন এই থিয়েটার ব্যক্তিত্বের পুত্র ফয়জল আলকাজি।

 চল্লিশ ও পঞ্চাশের দশকে মুম্বইয়ের থিয়েটার জগতের পরিচিত মুখ ছিলেন তিনি। তবে অচিরেই সেই খ্যাতি ছেড়ে দিল্লি চলে আসেন আলকাজি। তখন তাঁর বয়স ৩৭ বছর। ন্যাশান্যাল স্কুল অফ ড্রামায় আগামী ১৫ বছর একটানা ডিরেক্টরের পদে ছিলেন তিনি। ১৯৬২ থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত দেশের সবচেয়ে অভিনয়ের স্কুলের দায়িত্বভার সামলেছেন তিনি, আজ পর্যন্ত তিনি এনএসডি'র ইতিহাসের সবচেয়ে দীর্ঘসময় কাটানো ডিরেক্টর। 

মর্ডান ইন্ডিয়ান থিয়েটারের অ-আ-ক-খ বদলে দিয়েছিলেন আলকাজি। তাঁর হাত ধরেই এনএসডি'র পাঠ্যক্রমে এসেছিল বিপুল রদবদল। শিল্পের প্রশংসক ছিলেন তিনি,মুক্তমনা চিন্তাধারার জন্য সবসময়ই প্রশংসা কুড়িয়েছেন আলকাজি। সময়ের চেয়ে অনেক এগিয়েছিল তাঁর ভাবনা। বিজয় মেহতা, ওম শিবপুরি, বলরাজ পন্ডিত, ওম পুরি, নাসিরুদ্দিন শাহ, মনোহর সিং-এর মতো অসংখ্য প্রতিভাবনা অভিনেতাকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন তিনি। আলকাজি ছাড়া অসম্পূর্ন ভারতীয় থিয়েটারের চালচিত্র।

হ্যামলেট নাটকে হ্যামলেটের ভূমিকায় অভিনয়রত আলকাজি, সাল ১৯৪৭- বম্বে থিয়েটার (সৌজন্যে-Alkazi Foundation for the Arts)
হ্যামলেট নাটকে হ্যামলেটের ভূমিকায় অভিনয়রত আলকাজি, সাল ১৯৪৭- বম্বে থিয়েটার (সৌজন্যে-Alkazi Foundation for the Arts)

১৮ই অক্টোবর, ১৯২৫ সালে পুনেতে জন্ম ইব্রাহিম আলকাজির।  জন্মসূত্রে তাঁর বাবা সৌদি আরবীয়,মা কুয়েতের বাসিন্দা ছিলেন। নয় ভাই-বোন ছিলেন আলকাজিরা। দেশভাগের পর সকলেই পাকিস্তানে গিয়ে নতুন জীবন শুরু করেন। তবে ভারতেই থেকে গিয়েছিলেন আলকাজি। বম্বের সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের এই ছাত্র সুলতান ‘ববি’ পদমসীর থিয়েটার গ্রুপ কোম্পানিতে যোগ দেন চল্লিশের দশকের গোড়ায়। এরপর লন্ডনে গিয়ে রয়্যাল অ্যাকাডেমি অফ ড্রামাটিক আর্টসে যোগ দেন তিনি। সালটা ১৯৪৭। তিন বছরের মধ্যে বিবিসি পুরস্কার জিতে সকলকে চমকে দিয়েছিলেন তিনি। ৫০টিরও বেশি নাটকের নির্দেশনার দায়িত্বভার সামনেছেন তিনি। গিরীশ কন্নড়ের তুঘলক, মোহন রাকেশের আষাড় কা এক দিন, ধর্মবীর ভারতীর অন্ধ যুগ এবং শেক্সপিয়ারের লেখা একাধিক নাটক ও অজস্র গ্রীক নাটক ভারতীয় দর্শকদের কথা মাথায় রেখে মঞ্চস্থ করতেন ইব্রাহিম আলকাজি। 

ভারতীয় থিয়েটার জগতে তাঁর অবদানের জন্য ভারত সরকারের তরফে পদ্মশ্রী,পদ্মভূষণ,পদ্মবিভূষণ সম্মানে ভূষিত হয়েছেন তিনি। তাঁর চলে যাওয়ায় ভারতীয় থিয়েটারে একটা যুগের অবসান ঘটল। 

বন্ধ করুন