বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Boron: ‘এক মাথা সিঁদুর পরে গায়ে হলুদ!', বরণ-এর ‘গাঁজাখুরি’ গল্পে হাসির রোল নেটপাড়ায়
ফের বিয়ের পিঁড়িতে তিথি 
ফের বিয়ের পিঁড়িতে তিথি 

Boron: ‘এক মাথা সিঁদুর পরে গায়ে হলুদ!', বরণ-এর ‘গাঁজাখুরি’ গল্পে হাসির রোল নেটপাড়ায়

  • মাথায় অন্যের নামের সিঁদুর পরে কে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান সারে? প্রশ্ন নেটিজেনদের। 

বিয়ের ভূত যেন নামতেই চাইছে না তিথি-রুদ্রিকের ঘাড় থেকে। প্রত্যেকবারই বিয়ে নিয়ে নানান অদ্ভূত কাণ্ডকারখানা লেগেই রয়েছে ‘বরণ’ ধরাাবাহিকে। আপতত সিরিয়ালে রাজ-তিথির প্রাক-বিয়ের অনুষ্ঠান চলছে। 

 গল্পের একদম শুরুতে রাজ-তিথির বিয়ের সময় নাটকীয়ভাবে রুদ্রিকের হাত থেকে সিঁদুর পরেছিল তিথির মাথায়, আবার সেই বিয়ের মণ্ডপেই রুদ্রিকের গুলিতে আহত হয় রাজ। একটা সময় রুদ্রিককে শাস্তি পাইয়ে দিতে বদ্ধপরিকর তিথি আবার তাঁকে শোধরানোর জিম্মা ঘাড়ে নিয়ে হাজির হয় ব্যানার্জি পরিবারে। সেই বাড়ির ‘নকল’ বউ হয়ে। রুদ্রিককে আদর্শ মানুষ করে তোলাই ছিল তাঁর লক্ষ্য, বা বলা ভালো বড়োলোক বাবার বিগড়ে যাওয়া ছেলেকে একটু পথে নিয়ে আসা।

ঝগড়া,মান-অভিমানের মাঝে সময় যত এগিয়েছে পরস্পরের প্রতি টানও বেড়েছে রুদ্রিক-তিথির। কিন্তু নায়রার সঙ্গে আগেভাগেই বিয়ের কথা পাকা ছিল রুদ্রিকের। সেই বিয়ের প্রস্তুতি নিজের হাতে সেরেছিল তিথি, কিন্তু শেষ মুহূর্তে বিয়ের মন্ডপে নায়রার বদলে তিথির সিঁথি সিঁদুরে রাঙিয়ে দেয় রুদ্রিক। ফের একবার এই ধারাবাহিকে বিয়ের ট্র্যাক হাজির। রুদ্রিক-তিথির বিয়েটা আসলে ‘নাটক’ ছিল তা জানতে পেয়ে তিথির মায়ের নিদান রাজের সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়তে হবে তিথিকে। এবার সেই বিয়ের আয়োজনের দায়িত্ব নিয়েছে রুদ্রিক নিজে। অথচ তিথিকে নিজের স্ত্রীর মর্যাদা দেয় সে। বউয়ের বিয়ের আয়োজন নিয়ে বেজায় ব্যস্ত সে। নিজের হাতে আইবুড়ো ভাতের যাবতীয় পদ রেঁধে তিথিকে খাইয়েছে রুদ্রিক। এবার চলছে তিথির গায়ে হলুদ পর্ব। আর গায়ে হলুদের এই অনুষ্ঠানের সময় দেখা গেল রুদ্রিকের পরানো সিঁদুর মাথায় নিয়েই রাজের নামের গায়ে হলুদ মাখছে তিথি। সেই নিয়ে আলোচনার সেই নেই সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এ কেমন গায়ে হলুদ!
এ কেমন গায়ে হলুদ!

ফেসবুক পোস্টের কমেন্ট বক্সে নেটিজেনদের প্রশ্ন, ‘একমাথা সিঁদুর নিয়ে আবার একটা বিয়ে’, কেউ লিখেছেন, ‘গাঁজাখুরির লিমিট আছে তো নাকি, মাথাভর্তি সিঁদুর নিয়ে কার গায়ে হলুদ হয়’। অপর একজন লিখেছেন, ‘বারবার বিয়ে না দিলে  যেন নাটক পূর্ণতা পায় না…আজব’। 

যদিও তিথি-রুদ্রিক ভক্তরা কিন্তু তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করছে এই নাটকীয় বিয়ের আচার-অনুষ্ঠান। গতবারের মতো এবারও রুদ্রুিকের মাথায় যে কোনও ছক কষা রয়েছে সে ব্যাপারে নিশ্চিত তাঁরা। শেষ মুহূর্তে রাজ-তিথি নয়, ফের একবার রুদ্রিক-তিথিরই বিয়েটা সুসম্পন্ন হবে তা পাকা।

বন্ধ করুন