বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > বিজেপির চেয়ে বড় 'মাফিয়া' খুব কম আছে, রুদ্রনীলকে পালটা তোপ সোহমের
রাজনীতির ময়দানে বাকযুদ্ধ শুরু সোহম-রুদ্রর 
রাজনীতির ময়দানে বাকযুদ্ধ শুরু সোহম-রুদ্রর 

বিজেপির চেয়ে বড় 'মাফিয়া' খুব কম আছে, রুদ্রনীলকে পালটা তোপ সোহমের

  • বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতে ‘মাফিয়ারাজ’ চলছে, রুদ্রনীলের কটাক্ষের মোক্ষম জবাব দিলেন সোহম চক্রবর্তী। 

ইন্ডাস্ট্রির বহু পুরোনো ‘বন্ধু’, তবে রাজনীতির ময়দানে আজ সম্পূর্ন ভিন্ন মেরুতে সোহম-রুদ্রনীল। বিজেপিতে যোগ দিয়েই টলিউডের রাজনীতি নিয়ে আক্রমণ শানিয়েছেন রুদ্রনীল ঘোষ। বিজেপির এই তরতাজা সৈনিক সম্প্রতি মন্তব্য করেছেন টলিউডের অন্দরে ‘মাফিয়ারাজ’ চলছে। সেই জন্যই নাকি ইন্ডাস্ট্রি ছেড়ে চলে যাচ্ছেন একের পর এক প্রযোজক। বৃহস্পতিবার হাওড়ার দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সাংবাদিক বৈঠকে এমন মন্তব্য করেন রুদ্রনীল। জোর জল্পনা শুরু হয়েছে হাওড়ার শিবপুর থেকে বিজেপির বিধায়ক পদের প্রার্থী হিসাবে লড়বেন রুদ্রনীল ঘোষ। 

রুদ্রনীলের এই আক্রমণের পালটা জবাব দিলেন তাঁর ‘কাঠমুন্ডু’ কো-স্টার সোহম চক্রবর্তী। সোহম ঘুরিয়ে প্রশ্ন করেন, তাহলে এতদিন প্রতিবাদ করেননি কেন? বিরোধী দলে নাম লিখিয়েই কি সবটা এই দলের খারাপ, ইন্ডাস্ট্রির সব খারাপ হয়ে গেল? এটা হতে পারে না। যুব তৃণমূলের সহ-সভাপতি সোহম বলেন, এটা ছোট ইন্ডাস্ট্রি। বাংলায় কোনওদিনই মাফিয়া রাজ চলে না। রদ্রনীলকে ‘খোঁচা’ দিয়ে সোহম বলেন, ‘রুদ্রনীল যে দলে যোগ দিয়েছেন, তাদের চেয়ে বড় মাফিয়া খুব কমই আছে। দেশবাসী এমন মাফিয়া রাজনৈতিক দল এর আগে কখনও দেখেনি’।

রুদ্রনীল গতকাল অভিযোগ করেন, ইন্ডাস্ট্রিতে যাঁদের দায়িত্ব দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী পদে বসিয়েছেন তাঁরা নিজেদের আধিপত্য বজায় রেখে স্বজনপোষণ করে যাচ্ছেন। এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে সোহমের দাবি, ‘বিরোধী দলে নাম লিখিয়ে বেশি ক্ষমতা পেলেন বলেই কি সুর পালটেছেন রুদ্রনীল’? 

এদিন দেবলীনা দত্ত, সায়নি ঘোষদের মতো সহকর্মীদের প্রতি বিজেপি নেতাদের কটুক্তি নিয়েও সরব হন সোহম। তিনি বলেন, 'বর্তমান সমাজে বা দেশে যা ঘটছে, সবাই তার সাক্ষী। সেই কারণেই সায়নী ঘোষ কিংবা দেবলীনা দত্তরা এই অনাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করলে তাঁদের প্রকাশ্যে ধর্ষণ এবং খুনের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। মফিয়ারাজ কে বা কারা করছে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না, সেটা স্পষ্ট'।

পাশাপাশি সোহম আরও বলেন, এতদিন বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে কোনও ভেদাভেদ বা রাজৈনতিক রং ছিল না, কিন্তু বিজেপি নানান ফন্দি এঁটে বাংলাকে দখল করতে চাইছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আসবার পর সকল শিল্পীকে তাঁর যোগ্য মর্যাদা দেওয়া হয়েছে, দাহি সোহমের। ইন্ডাস্ট্রিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব দিদি যাঁদের কাঁধে দিয়েছেন, তাঁরা সকলেই গন্যমান্য। দিদির প্রতি পূর্ণ আস্থা আছে টলিগঞ্জের জোর গলায় ঘোষণা করলেন সোহম। 

বন্ধ করুন