বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > Sushant-Vivek: ‘ওরা আমাকেও ছাড়বে না!’, সুশান্ত-খুন দাবিতে প্রতিক্রিয়া বিবেক অগ্নিহোত্রীর

Sushant-Vivek: ‘ওরা আমাকেও ছাড়বে না!’, সুশান্ত-খুন দাবিতে প্রতিক্রিয়া বিবেক অগ্নিহোত্রীর

সুশান্তের মৃত্যুর তদন্ত চান বিবেক অগ্নিহোত্রী। 

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃতদেহের ময়নাতদন্তের দায়িত্বে থাকা এক ব্যক্তি সম্প্রতি দাবি করেন তিনি অভিনেতার মরদেহ দেখেই বুঝতে পেরেছিলেন এটা আত্মহত্যা নয় খুন। আর তারপর থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় উঠেছে ঝড়। এবার প্রতিক্রিয়া এল বিবেক অগ্নিহোত্রীর তরফ থেকেও।

মুম্বইয়ের কুপার হাসপাতালে সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃতদেহের ময়নাতদন্তে থাকা এক ব্যক্তি সম্প্রতি দাবি করেন যে, আত্মহত্যা নয়, খুনই হয়েছেন সুশান্ত। এমনকী যখন দেহ তাঁদের কাছে আসে তখনই তিনি শরীরে নানা আঘাতের চিহ্ন দেখেছিলেন। নিজের ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে এই ব্যাপারে জানিয়েওছিলেন। 

এই বিবৃতি সামনে আসার পরেই সুশান্ত সিং রাজপুতের দিদি শ্বেতা সিং কির্তী থেকে শুরু করে হাজার ভক্ত অনুরোধ করেন যেন সিবিআইকে যেন তাঁরা এই ব্যক্তির মন্তব্যে গুরুত্ব দেওয়া হয়। এবার তা নিয়ে মুখ খুললেন পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রী। 

বিবেক অগ্নিহোত্রী ন্যায়বিচার দাবি করেছেন

'Justice for Sushant Singh Rajput' ফের ট্রেন্ড করছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। এবার এই ময়নাদতন্তের বিতর্ক নিয়ে টুইট করলেন দ্য কাশ্মীর ফাইলস পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রি। সুশান্ত সিং রাজপুতের সঙ্গে ছবি শেয়ার করে লিখলেন, 

‘ওরা আমাকেও ছাড়বে না’… এই ‘ও’ কারা? সুশান্ত, আমার বন্ধু?

কী বলেছে কুপার হাসপাতালে সেই কর্মী?

টিভি নাইন মারাঠিকে রূপকুমার শাহ নামের এক ব্যক্তি যিনি সুশান্তের মৃতদেহের ময়নাতদন্ত করেছেন, জানান ‘ময়নাতদন্ত করতে গিয়ে জানতে পারি, সেটি সুশান্তের দেহ। ওঁর সারা গায়ে বেশ কিছু চিহ্ন ছিল। আর গলা-ঘাড়ের কাছেও তিনটি দাগ ছিল। মৃতদেহের ময়নাতদন্তের ভিডিয়ো রেকর্ড হওয়ার কথা। কিন্তু উচ্চপদস্থরা বলেন, শুধু স্টিল ছবিই তোলা হবে। আমরা সেভাবেই কাজটি করি।’ ওই ব্যক্তি আরও দাবি করেন, তিনি মৃতদেহ দেখেই বুঝতে পেরেছিলেন এটা আত্মহত্যা নয়, খুন। আর তা তিনি জানিয়েছিলেন নিজের উচ্চপদস্থকে। কিন্তু তাঁর ঊর্ধ্বতন তাঁকে নির্দেশ দেয়, দ্রুত ছবি তুলে কাজ সেরে দেহ পুলিশকে দিয়ে দিতে।

সুশান্তের দিদির টুইট

মঙ্গলবার ভাইকে নিয়ে টুইট করেছেন সুশান্ত সিং রাজপুতের দিদি শ্বেতা। লেখেন, ‘যদি এই দাবিতে এককণাও সত্যি থাকে তাহলে আমরা সিবিআইকে অনুরোধ করতে চাই এটার দিকে নজর দিন সঠিকভাবে। আমরা সবসময় আশা করে এসেছি আপনারা সঠিক তদন্ত করবেন। এখনও পর্যন্ত কোনও পরিণতি সামনে আসেনি ভাবলেও আমাদের বুক ব্যথা করে।’

প্রসঙ্গত, আড়াই বছর হতে চলল সুশান্ত না থাকার। মুম্বইয়ের বাড়িত ২০২০ সালে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় অভিনেতার দেহ। তদন্তে একাধিক অব্যবস্থার অভিযোগ উঠেছে। তারপরই এই মামলার তদন্তের দায় মুম্বই পুলিশের হাত থেকে সঁপে দেওয়া হয় সিবিআইকে। 

 

বন্ধ করুন